চোর সর্দার নাছির ১০ বছরে কোটিপতি

June 11, 2011, 8:21 AM, Hits: 2557

চোর সর্দার নাছির ১০ বছরে কোটিপতি



হ-বাংলা নিউজ  : চট্টগ্রাম থেকে :
মাত্র দুই মিনিটের মধ্যে জানালার গ্রিল কেটে বাসায় ঢুকতে পারে চোর সর্দার নাছির। আর কোনো সিঁড়ি ছাড়াই উঠে যেতে পারে বহুতল ভবনে। এভাবে গত ১০ বছরে শতাধিক চুরির নেতৃত্ব দিয়েছে সে। এর মধ্যে সে বনে গেছে কোটিপতি। এলাকার লোকজনের কাছে একজন দানবীর হিসেবেই পরিচিতি তার। নগরীর গোলপাহাড় মোড়ে মিশম্যাক ডেভেলপমেন্ট কোম্পানির অফিস চুরির ঘটনায় চার সহযোগীসহ গ্রেফতারের পর এসব কথা স্বীকার করেছে নাছির।


চোর সর্দার নাছিরের পুরো নাম মোঃ বদিউল হক ওরফে নাছির। চট্টগ্রামের চন্দনাইশ থানার পূর্ব ধোপাছড়ি এলাকায় তার বাড়ি। জেলার লোহাগাড়া থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে সিএমপির ডিবি ও কোতোয়ালি থানা পুলিশ। গ্রেফতারের পর গতকাল পুলিশ হেফাজতে নাছির জানায়, চুরির কাজের জন্য মাসে ৪০ হাজার টাকা ভাড়ায় একটি প্রাইভেট কার ব্যবহার করে তার সিন্ডিকেট। সাধারণত অভিজাত ফ্ল্যাট বাড়ি, ব্যাংক, বীমা অফিস, বিভিন্ন সরকারি অফিস, স্বর্ণের দোকান ও ডেভেলপমেন্ট প্রতিষ্ঠানগুলোতে চুরির প্রতি তাদের দৃষ্টি থাকে বেশি। সে জানায়, কোনো প্রতিষ্ঠানে চুরির টার্গেট করার পর দুই মাস ধরে রেকি করা হয়। বিভিন্ন ছদ্মবেশে সংগ্রহ করা হয় ওই প্রতিষ্ঠানের বিস্তারিত তথ্য। এরপর প্রয়োজনীয় কৌশল ঠিক করে তার নেতৃত্বে সাত-আটজনের একটি দল ওই প্রতিষ্ঠানে চুরির মিশনে যায়। সাথে থাকে গ্রিল কাটা আর তালা ভাঙ্গার প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম। কোনো সিঁড়ি ছাড়াই মাত্র পাঁচ থেকে সাত মিনিটের মধ্যে বহুতল ভবনের কয়েকতলা উঠে যেতে পারে নাছির। আর দুই মিনিটের মধ্যে গ্রিল কেটে ঢুকে পড়তে পারে ভেতরে।


আলাপকালে নাছির জানায়, গত ১০ বছরে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, রাজশাহী, রংপুর, বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় স্বর্ণের দোকান, ব্যাংক, মার্কেটসহ বিভিন্ন ধরনের শতাধিক চুরির ঘটনায় নেতৃত্ব দিয়েছে সে। সর্বশেষ গত ৩১ মে চট্টগ্রাম নগরীর গোলপাহাড় মোড়ের মিশম্যাক ডেভেলপমেন্ট লি. নামে একটি প্রতিষ্ঠানে গ্রিল কেটে ঢুকে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা নিষ্ত্র্নিয় করে ভল্ট ভেঙে ২৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা চুরি করে তার দল। চুরির টাকায় সে এখন একটি অভিজাত দোতলা বাড়ি, মাছের প্রজেক্ট, একাধিক সিএনজি অটোরিকশার মালিক। এ ছাড়া ওই টাকা থেকে সে এলাকার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে দান-খয়রাত এবং স্থানীয় ইউপি নির্বাচনে তার পছন্দের প্রার্থীদের অনুদান দিয়ে থাকে।


যেভাবে গ্রেফতার


মিশম্যাক ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের চুরির ঘটনার পর এর রহস্য উদ্‌ঘাটনে মাঠে নামে জেলা পুলিশ, সিএমপি ডিবি ও কোতোয়ালি থানা পুলিশের যৌথ টিম। গত ৬ জুন বিকেলে তারা নগরীর জিইসি মোড় এলাকা থেকে গ্রেফতার করে নাছির সিন্ডিকেটের সদস্য মোঃ আজিজকে। এরপর পাহাড়তলী এলাকা থেকে মোঃ জামাল, এ কে খান গেট থেকে মোঃ আলমগীর ও ড্রাইভার বিপ্লবকে গ্রেফতার এবং তাদের কাছ থেকে আট লাখ ৯০ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মঙ্গলবার রাতে লোহাগাড়া থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় চোর সর্দার বদিউল হক ওরফে নাছিরকে। পরে তার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করা হয় আরো তিন লাখ ২০ হাজার টাকা। একই সাথে উদ্ধার করা হয় চুরির কাজে ব্যবহৃত প্রাইভেট কার।
অভিযানে অংশগ্রহণকারী ডিবির এসআই মোঃ মহসিন জানান, নাছির একজন পেশাদার চোর। ইতঃপূর্বে দেশের বিভিন্ন স্থানে চুরির ঘটনায় অন্তত পাঁচবার পুলিশের হাতে সে গ্রেফতার হয়েছে। পরে কারাগার থেকে জামিনে বেরিয়ে এসে আবারো ফিরে যায় পুরনো পেশায়।

 


 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ