সিঙ্গাপুর সর্বাধিক কর্মী নেবে : সুযোগ নিচ্ছে ভারত : উদাসীন বাংলাদেশ

June 19, 2011, 8:41 AM, Hits: 1833

সিঙ্গাপুর সর্বাধিক কর্মী নেবে : সুযোগ নিচ্ছে ভারত : উদাসীন বাংলাদেশ


চলতি বছর সিঙ্গাপুর সর্বাধিক জনশক্তি আমদানি করবে। বিশ্বের সর্বোচ্চ বিদেশি কর্মী নিয়োগকারীদের অন্যতম অবস্থানে উঠে আসবে দেশটি। এ সুযোগ গ্রহণ করতে এরই মধ্যে সিঙ্গাপুরের বিভিন্ন শিল্পে ৩ লাখ বিদেশি শ্রমিকের চাহিদা ও তালিকাভুক্তি চূড়ান্ত হয়েছে। তবে এ কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের জন্য তেমন কোনো সুখবর নেই। কূটনৈতিক ব্যর্থতা ও অবৈধভাবে সিঙ্গাপুরে গমন রোধ করতে না পারায় বাংলাদেশ এ সুযোগ থেকে বঞ্চিত হতে যাচ্ছে। নানা অভিযোগের কারণে বাংলাদেশী কর্মীদের ব্যাপারে সিঙ্গাপুর কর্তৃক্ষের আগ্রহ এখন শূন্যের কোটায়। বিশেষ করে পর্যটক ভিসায় সিঙ্গাপুর এসে চাকরি করার চেষ্টা এবং চাকরি না পেয়ে জীবনধারণে নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ার কারণে এক সময় সিঙ্গাপুরের শ্রমবাজারে গুডবুকে থাকা বাংলাদেশীরা এখন বিপজ্জনক তালিকায়। সম্প্রতি এক বাংলাদেশীর হাতে ইন্দোনেশীয় মহিলা খুন এবং তার লাশ পানির ট্যাংক থেকে উদ্ধারের ঘটনা বাংলাদেশীদের সম্পর্কে এ দেশের সরকারের মনোভাবকে আরও কঠোর করে তুলেছে। যদিও পরিশ্রমী হিসেবে বিভিন্ন শিল্পে বাংলাদেশীদের সুনামেরও কমতি নেই।


পত্রিকায় প্রকাশিত এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, চলতি বছর সিঙ্গাপুর বিশ্বে সর্বোচ্চ বিদেশি কর্মী নিয়োগকারী দেশগুলোর মধ্যে একটিতে পরিণত হবে। আর এ সুযোগের ষোলআনাই লুফে নিচ্ছে ভারত। সিঙ্গাপুর সরকারের নতুন ঘোষণা ভারতীয় নাগরিকদের কর্মসংস্থানের অভূতপূর্ব সুযোগ সৃষ্টি করেছে বলে সমপ্রতি টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক খবরেও উচ্ছ্বাস প্রকাশ করা হয়।


খবরে বলা হয়, এ বছর সিঙ্গাপুরে তালিকাভুক্ত হওয়া ৩ লাখ মাঝারি ও উচ্চ পর্যায়ের সুদক্ষ কর্মীর মধ্যে ২০ শতাংশই ভারতীয় নাগরিক। তারা প্রধানত ব্যাংক, রেস্তোরাঁ, তথ্যপ্রযুক্তি, নির্মাণ, তেল, প্রাকৃতিক গ্যাস, স্বাস্থ্যরক্ষা, খনি খনন ও বস্ত্রসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে কাজ করবেন।


সিঙ্গাপুরের জনসংখ্যা ৫০ লাখ অতিক্রম করেছে। এর মোট জনসংখ্যার এক-তৃতীয়াংশেরও বেশি বিদেশি। সিঙ্গাপুর পরিসংখ্যান দফতরের হিসাবে দেখা যায় গত বছর জুনের শেষে দেশটির জনসংখ্যা ৫০ লাখ ৮০ হাজারে পৌঁছেছে। এক বিবৃতিতে ওই দফতর থেকে এ তথ্য জানানো হয়। বিবৃতিতে দেয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী ৫০ লাখ ৮০ হাজারের মধ্যে স্থানীয় নাগরিক ৩২ লাখ ৩০ হাজার, বিদেশি স্থানীয় নাগরিক পাঁচ লাখ ৪০ হাজার এবং বিদেশি পেশাজীবী ও শ্রমিক ১৩ লাখ। অর্থাত্ দেশটির নাগরিকের ৩৬ শতাংশই বিদেশি।


জানা গেছে, সিঙ্গাপুরে শিশু জন্মহার কম হওয়ার কারণে সরকার বহু বছর থেকে বিদেশিদের সহজে সিঙ্গাপুরে প্রবেশের সুযোগ দিয়ে আসছে। ২০০৪ থেকে ২০০৭ সালের অর্থনৈতিক উন্নয়নের সময় এ সংখ্যা ব্যাপকহারে বেড়ে যায়। কিন্তু ২০০৮ সালে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সঙ্কটের সময় চাকরি ও চিকিত্সাসেবার ক্ষেত্রে বিদেশিদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা বেড়ে যাওয়া নিয়ে দেশটির নাগরিকরা অভিযোগ করতে থাকেন। এ পরিপ্রেক্ষিতে গত বছর সরকার অভিবাসন নীতি পর্যালোচনা এবং বিদেশিদের প্রবেশে কড়াকড়ি আরোপ ও জনগণের সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর অঙ্গীকার করে। কিন্তু দক্ষকর্মীর চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এক বছর না যেতেই বিপুল সংখ্যক বিদেশি শ্রমিক নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে সরকারকে।

 


 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ