মন্দিরের নিচে এত ধন সম্পদ !

July 3, 2011, 8:55 AM, Hits: 4602

মন্দিরের নিচে এত ধন সম্পদ !

 

হ-বাংলা নিউজ : গুপ্তধন নাকি পাহারা দেয় যক্ষরা! পুরাণে এমন বর্ণনা আছে। শুধু যক্ষ নয়, ধনের দেবতা কুবেরের হয়ে এমন সম্পদ নাকি পাহারা দেয় তাঁর রাজ্যের অগণিত আত্মা! তবে তাদের সেই পাহারায় আর কাজ হয়নি। কেরালার শ্রী পদ্মনাভস্বামী মন্দিরের নিচে শত বছর ধরে 'গোপনে' ধাকা গুপ্তধন ঠিক ঠিক বের করে নিয়ে এসেছেন সরকারি লোকজন। গত বৃহস্পতিবার প্রাচীন ওই মন্দিরের নিচের গোপন কুঠুরি থেকে প্রায় এক টন সোনা, রুপা, মণি-মুক্তা উদ্ধার করা হয়। ভারতের সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, এর আর্থিক মূল্য অন্তত ৫০ হাজার কোটি রুপি।


হিন্দুদের দেবতা বিষ্ণুর পদ্মনাভস্বামী মন্দিরটির অবস্থান ভারতের দক্ষিণের রাজ্য কেরালার থিরুভানান থাপুরাম নগরীতে। সারা বিশ্বে ১০৮টি বিষ্ণুমন্দির আছে। এর ১০৫টিই ভারতে। এর মধ্যে পদ্মনাভস্বামী মন্দির অন্যতম। শৈল্পিক সৌন্দর্যের জন্যও এটি নজর কাড়ে সবার। মন্দিরটি তৈরি ষোড়শ শতকে।


গুপ্তধন উদ্ধারের পদ্ধতিও সাদামাটা ছিল না। অনেক কসরত করতে হয়েছে কর্মীদের। অনেকটা হারকিউলিসের মতো বীরত্ব দেখিয়ে সেই ধন বের করে আনতে হয়েছে। মন্দিরের নিচের কুঠুরিতে রয়েছে ছয়টি সিন্দুক। এর মধ্যে দুটি প্রায় দেড় শ বছর খোলা হয়নি। পাথরের তৈরি সিঁড়ি ভেঙে, অঙ্েিজন মাঙ্ পরে মন্দিরের নিচে নামেন দমকল বাহিনী ও গণপূর্ত বিভাগের কর্মীরা। সঙ্গে ছিলেন প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের কর্মকর্তারাও। তাঁদের উপস্থিতিতেই ভাঙা হয় তালা। এরপর একটু একটু করে বের করে আনা হয় মহামূল্য সম্পদ।


কেরালার মুখ্যমন্ত্রী কে জয়কুমার জানিয়েছেন, উদ্ধার হওয়া সম্পদের মূল্য অন্তত ৫০ হাজার কোটি রুপি। তবে প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ এসব খতিয়ে দেখার পরই সঠিক মূল্য জানা যাবে। তিনি বলেন, 'এখনো একটি সিন্দুক খোলা বাকি আছে। ১৪০ বছর ধরে সেটি কেউ খোলেনি।'


একটি সূত্রের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, সিন্দুক থেকে সোনা ও রুপার তৈরি গহনা, মুদ্রা ও মূল্যবান পাথর উদ্ধার করা হয়েছে। গহনাগুলোও অন্য রকম বাহারি। যেমন সোনার তৈরি একটি গলার হার পাওয়া গেছে, যার ওজন আড়াই কেজি! আর লম্বায় তা ৯ ফুট!


এক টন ওজনের ধন-সম্পদের মধ্যে আরো আছে সোনার তৈরি হাতি, হীরা ও পান্না খচিত গহনা, ইস্ট ইন্ডিয়া কম্পানির আমলের ১৭ কেজি স্বর্ণমুদ্রা, সম্রাট নেপোলিয়ানের আমলের ১৮টি মুদ্রা। এ ছাড়া পাওয়া গেছে সিল্ক কাপড়ে মোড়া এক হাজার কেজির বেশি ওজনের মূল্যবান পাথর।


প্রসঙ্গত, পদ্মনাভস্বামী মন্দিরের সিন্দুকে কী পরিমাণ সম্পদ আছে তা দেখার জন্য সম্প্রতি ভারতের সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দেন। এ জন্য আদালত সাত সদস্যের একটি প্যানেলও গঠন করেন। এ নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতেই মন্দিরের সিন্দুক খোলা হয়। মন্দির থেকে উদ্ধার করা সম্পদ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন কেরালার হাইকোর্ট।


এ ঘটনার কিছুদিন আগে সাঁই বাবার কক্ষ থেকে কোটি কোটি রুপি উদ্ধার করা হয়। এরপর এ মন্দির থেকে বিপুল পরিমাণ সম্পদ উদ্ধার করা হলো। ফলে মন্দিরের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনার পর ভারতের মন্দিরগুলোর নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।


সূত্র : এএফপি, বিবিসি ও বিভিন্ন ওয়েবসাইট।

 

 


 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ