ক্যালিফোর্নিয়া আওয়ামিলীগের সার্কাস রাজীনীতি !

November 15, 2017, 6:24 PM, Hits: 1899

ক্যালিফোর্নিয়া আওয়ামিলীগের সার্কাস রাজীনীতি !

হ-বাংলা নিউজ, হলিউড থেকে:  দেশে বিদেশে আওয়ামিলীগের রাজনীতিতে সব জায়গায় দলীয় কোন্দল রয়েছে, তবে ক্যালিফোর্নিয়া আওয়ামিলীগের রাজনীতি কোন্দলের চেয়ে আরো একটু বেশি কিছু ৷ দলীয় এই বিভক্তি ক্ষেত্র বিশেষ কমিউনিটিবাসীদের হাসি তামাশার বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে ৷ চায়ের টেবিলে চলে আওয়ামিলীগের রাজনীতি নিয়ে হাস্য রসের আলোচনা ৷ আওয়ামিলীগের এক গ্রূপের নেতা তৌফিক সোলায়মান খান তুহিন এটাকে বিভিন্ন সময় ঘরোয়া আলোচনায় সার্কাসের সাথে তুলনা করে থাকে ৷

ক্যালিফোর্নিয়া আওয়ামিলীগ দৃশ্যত দীর্ঘদিন যাবৎ দুটি ধারায় বিভক্ত ছিল ৷ বর্তমানে সেটা এখন তৃধারায় রূপ লাভ করেছে ৷

আওয়ামিলীগের সাধারণ কোনো অনুষ্ঠানে ২৫/৩০ জনের বেশি কখনো লোক হয়না এবং কমিউনিটিতে আওয়ামিলীগের তেমন কোনো প্রতিনিধিত্ব নেই ৷ আওয়ামিলীগের এই কোন্দলের মধ্য দিয়ে জন্ম নিচ্ছে একের পর এক সহযোগী সংগঠন ৷ এর শুরুটা আওয়ামী সেচ্ছাসেবকলীগের জন্মের মধ্য দিয়ে ৷ সেচ্ছাসেবকলীগের জন্ম বিতর্কহীন হলেও,দলীয় কোন্দল নতুন করে চাঙ্গা হয়ে ওঠে এদের স্বতন্ত্র পথচলার মধ্য দিয়ে ৷ সেচ্চাসেবকলীগ প্রাথমিক পর্যায়ে কমিউনিটিতে আওয়ামিলীগের রাজনীতিতে ইতিবাচক শক্তি জোগালেও বর্তমানে এই সহযোগী সংগঠন তৃতীয়ধারার গ্রূপের সাথে জড়িত ৷ সেচ্ছাসেবকলীগকে কোনঠাসা করতে,ডাঃ রবি আলম যুবলীগের ক্যালিফোর্নিয়া শাখা তৈরী করেন ৷ এই কমিটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন তাপস নন্দী ও সাইফুল চৌধুরী ৷ সাইফুল চৌধুরীর কমিউনিটিতে ডিগবাজির কুখ্যাতি রয়েছে ৷ আদর্শহীন এই মানুষটি কিছুদিন আগেও মুক্তিযুদ্ধ আদর্শ পরিপন্থী বলে আওয়ামিলীগের কাছে বর্জনীয় সংগঠনের মুখপাত্র ছিল ৷ রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে তিনি আওমি সরকারের বিরুদ্ধে লসএঞ্জেলেসে সুশীল আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছেন ৷ 

তাপস নন্দীকে নিয়ে তুহিন গ্রূপ একটি রসাত্বক মন্তব্য করে আড্ডার টেবিলে ৷ তারা বলে," আমাদের ওসি রবির দারোগা হয়েছে" ৷ এর কারণ তাপস নন্দী তুহিন গ্রূপের ভ্যালি আওয়ামিলীগের নেতা ছিল ৷ আওয়ামিলীগ নেতা যুবলীগ হয়েছে,এই নিয়ে তাদের এই ব্যাঙ্গাত্বক মন্তব্য ৷ ক্যালিফোর্নিয়া যুবলীগের আরেকটি কমিটি রয়েছে,এই কমিটির নেতৃত্বে রয়েছে কামরুল হাসান এবং সোহেল আহমেদ ৷ 

এ দুটো যুবলীগ গঠনেই বিতর্ক রয়েছে ৷ এই বিতর্কের মধ্যে হাস্যকরভাবে তাপস-সাইফুল কমিটি ভ্যালি এবং লসএঞ্জেলেসে যুবলীগের আরো দুটো শাখা খুলেছে ৷ 

মহিলা আওয়ামিলীগের এখানে দুটো কমিটি রয়েছে,একটি শফিকুর রহমান সমর্থিত অপরটি ডাঃ রবি আলম সমর্থিত ৷ সাহানা পারভীন ডাঃ রবি আলম সমর্থিত মহিলালীগের নেত্রী ৷ ডাঃ রূবী হোসেন শফিকুর রহমান সমর্থিত ৷

আওয়ামিলীগের এই সহযোগী সংগঠনের কোনোটিতেই তুহিন গ্রূপের সমর্থন নেই ৷ তাদের ইচ্ছা আগে  আওয়ামিলীগের কোন্দল মিটিয়ে একটি গ্রহযোগ্য আওয়ামিলীগের কমিটি করে,তারপর আওয়ামিলীগের সহযোগী সংগঠন করতে হবে ৷

ছাত্রলীগেরও এখানে এক সদস্য বিশিষ্ট কমিটি রয়েছে ৷ ছাত্রলীগ নিয়েও চলে আড্ডার টেবিলে হাসাহাসি ৷ সৌকত চৌধুরী নামে এই কথিত ছাত্রলীগ নেতা দশ বছর আগে বিয়ে করেছিলেন এবং বিচ্ছেদও হয়ে গেছে বেশ আগে ৷ তিনি চাকুরীজীবি ৷ 

ডাঃ রবি আলম গ্রূপের সার্বিক সমর্থন দেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামিলীগের উপদেষ্টা মুস্তাইন দারা বিল্লাহ ৷ আওয়ামিলীগের অনেক নেতা-কর্মী এই দারা বিল্লাহকে আওয়ামিলীগের সমস্ত কোন্দলের জন্য দায়ী করেন ৷

অনেকে তাকে বোম্বের ভিলেন ওমেশ পুরীর সাথে তুলনা করে,ক্যালিফোর্নিয়া আওয়ামিলীগের ভিলেন ওমেশ পুরী বলে ডাকে ৷

তবে ডাঃ রবি আলম গ্রূপ সাম্প্রতিক আওয়ামিলীগের সমস্ত কোন্দলের জন্য আরিজোনাতে অবস্থারত ফিরোজ আলমকে দায়ী করে ৷ ডাঃ রবি গ্রূপের অভিযোগ,"ফিরোজের বুদ্ধি পরামর্শে যুবলীগ কামরুল-সোহেল,সেচ্ছাসেবকলীগ এবং আওয়ামিলীগের শফিক গ্রূপ পরিচালিত হয় ৷ ফিরোজের সাথে তুহিন গ্রূপেরও সুসম্পর্ক রয়েছে বলে জানা যায় ৷ 

আওয়ামিলীগের এই কোন্দলকে কেন্দ্র করে কিছুদিন আগে,ক্যালিফোর্নিয়া আওয়ামিলীগের সাবেক সভাপতি সোহেল রহমান বাদল,মুস্তাইন দারা বিল্লাহকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে ৷ পরবর্তীতে সোহেল রহমান বাদল ক্ষমা চেয়ে ডাঃ রবি গ্রূপের সাথে সমঝোতা করে নেয় ৷

আওয়ামিলীগের এই কোন্দলের কারণে সম্প্রতি লসএঞ্জেলেসে ঘুরে যাওয়া দুই মন্ত্রী কোনো পক্ষের সম্বর্ধনা গ্রহণ করেনি ৷ মন্ত্রী আবুল মাল মুহিতের সফরকালে এখানে একটি অনলামগখিত ঘটনাও ঘটে ৷

কমুনিটির সাধারণের মন্তব্য," আওমিলীগের ৯/১০ টি সংগঠন থাকতেও তারা কখনো ৩০/৪০ জনের বেশি সদস্য কর্মসূচিতে হাজির করতে পারেনা ৷ প্রতিটা অনুষ্ঠানে চেয়ার নিয়ে চলে মন কষাকষি ৷ কর্মীর চেয়ে নেতা বেশি ৷

এ ভাবেই চলছে ক্যালিফোর্নিয়া আওয়ামিলীগের রাজনীতির নামে সার্কাস ৷ অনেক নব্য পাতি নেতা আবার ফেসবুকে নিজেদের বড় বড় ছবি ও পদবি দিয়ে দলীয় শুভেচ্ছা দেয় ৷ আওয়ামিলীগের এই হাস্যকর কর্মকান্ড দেখে মুক্তিযোদ্ধা মজিবর রহমান খোকা ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছিলেন," চিড়িয়া দেখতে এখন আর চিড়িয়াখানায় যেতে হবেনা,আওয়ামিলীগের অনুষ্ঠানে গেলেই পাতি চিড়িয়া দেখা যাবে"৷ 

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ