পারিবারিক ইমিগ্রেশন বিতর্ক, Dreamer-দের ভাগ্য এবং ট্রাম্পের শ্বশুরালের ইমিগ্রেশন স্ট্যাটাস্

February 17, 2018, 5:06 PM, Hits: 3528

পারিবারিক ইমিগ্রেশন বিতর্ক, Dreamer-দের ভাগ্য এবং ট্রাম্পের শ্বশুরালের ইমিগ্রেশন স্ট্যাটাস্

হানিফ সিদ্দিকী,হ-বাংলা নিউজ,হলিউড থেকে: 

২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির মনোনয়ন প্রাপ্তির পর থেকেই ইমিগ্রেশন বিরোধী কথাবার্তা ও তৎপরতা চালাচ্ছিলেন তিনি । তবে ২০১৭ সাল পর্যন্ত সেটা ছিল অবৈধ ইমগ্রেশনের বিরুদ্ধে । তবে ২০১৮ সালে এসে যেমনি ভাবা হচ্ছিল তেমন অবস্থানই নিলেন । তাঁর ডোজ আরো কড়া করলেন । ৩০শে জানুয়ারি ২০১৮ রাতে মার্কিন কংগ্রেসের উভয়কক্ষের সম্মিলিত স্টেট অব দ্য ইউনিয়ন ভাষণে ইমিগ্রেশন পর্বে এসে খড়্গ নামানোর কথা বললেন বহু বহু বছর ধরে বিরাজিত বৈধ পারিবারিক ইমিগ্রেশনের ওপরও । বললেন বর্তমানে বিরাজিত Chain Immigration আমেরিকার বর্তমান বাস্তবতার সংগে সামন্জস্যপূর্ণ নয় । বললেন, পারিবারিক ইমিগ্রেশন সিস্টেমে কাঁচি চালিয়ে একে কেটে ছোট করে বর্তমান সময়ের আমেরিকার গায়ে ফিট্ করতে হবে । ইমিগ্রেশন সংক্রান্ত নতুন যে চারটি পিলার কংগ্রেসের সামনে প্রস্তাবাকারে দাঁড় করালেন তাতে একটি পিলারে আছে পারিবারিক ইমিগ্রেশন সীমিত করে শুধু স্পাউস( স্বামী -স্ত্রী ) এবং অপ্রাপ্ত বয়স্ক সম্তানদের আমেরিকায় আনা যাবে কিন্তু এখনকার মত আর বাবা মা কিংবা প্রাপ্তবয়স্ক সন্তানদের আনা যাবে না এমন প্রস্তাব । এই প্রস্তাব ট্রাম্পের মুখ থেকে বের হওয়া মাত্র অধিবেশনে উপস্থিত জেমোক্রেটিক পার্টির সিনেটরেরা দুয়ো ধ্বণি দিলেন । অধিবেশন শেষে সিনেট মাইনরিটি লিডার চাক শ্যুমার( ডেমোক্রেটিক- নিউইয়র্ক) বললেন, এটা আমরা এতো সহজে হতে দেব না । হলোও তাই । এই সপ্তাহের পুরোটা জুডে মার্কিন সিনেটে আপোষের মাধ্যমে দ্বিদলীয় একটি ইমিগ্রেশন বিল পাশ করিয়ে আনার জন্য কতভাবেই না চেষ্টা করলো রিপাবলিকানরা । তবে এইরকম বিল সিনেটে পাশ করাতে নূন্যতম ৬০ টি ভোটের প্রয়োজন কিন্তু রিপাবলিকান পার্টির এককভাবে ৬০ ভোট নেই কারণ সিনেটে তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা এখনো পর্যন্ত মাত্র দুই ভোটের (৫১-৪৯) । তাই ডেমোক্রেটদের ভোট ছাড়া তারা বিল পাশ করাতে পারে না । ট্রাম্প হুমকি দিলেন তাঁর চাহিদা ও দাবী গুলো মেনে বিলে অন্তর্ভূক্তে করে পাশ না করালে তিনি সেই বিলে ভেটো দিবেন । তবু ডেমোক্রেটিকেরা কেয়ার করল না । ফলে DACA কর্মসূচির আওতায় থাকা Dreamerদের ইমিগ্রেশন স্ট্যাটাস বাতিল হওয়া ঠেকানোর জন্য আসন্ন ৮ই মার্চের মধ্যে একটি সমন্বিত ইমিগ্রেশন বিল পাশ করানোর বাধ্য বাধকতা থাকলেও এই সপ্তাহের পুরোটা জুডে সিনেটে তুমুল তর্ক বিতর্কের পরেও শেষ পর্যন্ত উভয় দলের সিনেটরেরা দ্বিপক্ষীয় সমঝোতার মাধ্যমে কোন বিল পাশ করাতে না পারায় ঝুলে গেল সোয়া লাখেরও বেশ Dreamer-দের ভাগ্য । সেই সংগে অমিমাংসিত রয়ে গেল ট্রাম্পেরপ্রস্তাবিত মেক্সিকো সীমান্তজুডে বর্ডার ওয়াল নির্মাণ এবং পারিবারিক ইমিগ্রেশন সীমিত করার বিষয়ও ।

তবে ট্রাম্পের পারিবারিক ইমিগ্রেশন বিরোধী অবস্থান নিয়ে বিদ্রুপ উপহাস করছে সারা আমেরিকাজুডে ইমিগ্রেশন এডভোকেসি গ্রুপ গুলো এবং উদারনৈতিক পত্রপত্রিকাগুলো । এর মধ্যে বহুল প্রচারিত এলিট দৈনিক Washington Post-এর সাম্প্রতিক একটি বিশ্লেষণ বেশ আলোচিত হচ্ছে । Glenn Kessler-এর লেখা এই রিপোর্টে পারিবারিক ইমিগ্রেশনের সবচেয়ে উৎকৃষ্ট উদাহরণ হিসেবে ট্রাম্পের বর্তমান শ্বশুর শ্বাশুডিকে টেনে এনে ফোকাস করা হয়েছে । Glen বলেছেন , এই যে ট্রাম্প বহু বছর ধরে প্রচলিত পারিবারিক ইমিগ্রশনের প্রথায় পরিবর্তন চাইছেন , বাবা মাকে স্পন্সর করে আমেরিকায় আনার সুযোগ বন্ধ করতে বলছেন , তিনি নিজ স্ত্রীর বাবা মার কেসের দিকে তাকিয়ে দেখেছেন কি ? তাঁর শ্বশুর শ্বাশুড়ি Victor and Amalija Knavs যে বর্তমানে আমেরিকায় Permanent Resident হিসেবে থাকার সুযোগ নিচ্ছেন সেতো তাদের কন্যা মেলানিয়া ট্রাম্পের কল্যাণে । স্লোভানিয়া নামের দেশের এক মডেল তার আমেরিকায় থাকার ভিজিটর ভিসার মেয়াদ শেষেও আমেরিকায় ওভারস্টে করে ফিগারের কারণে প্রৌঢ় ট্রাম্পের নজরে পড়ে তাঁর ব্যক্তিগত স্পন্সরে আমেরিকায় থাকার সুযোগ পান এবং সেই সূত্রে ২০০৫ সালে বিয়ে করে তাঁর তিন নম্বর স্ত্রী হবার সুবাদে পারমানান্ট রেসিডেন্সি এবং পরে নাগরিকত্ব পান এবং সেই সুবাদে নিজের বাবা মাকে স্পন্সর করে স্থায়ীভাবে আমেরিকায় নিয়ে আসেন পারমেনান্ট রেসিডেন্ট করে । তাঁর বাবা মা আমেরিকায় কোন কাজই করেন না । পাবলিক বেনিফিট ও মেয়ের সাহায্য নিয়ে মোটামুটি ভালই আছেন ।

Glenn তাঁর বিশ্লেষণে প্রশ্ন তুলেছেন, যদি মেলানিয়ার বাবা মা অন্য কোন যোগ্যতা না থাকা সত্বেও পারিবারিক ইমিগ্রেশনের সুবিধা নিয়ে আমেরিকার স্থায়ী বাসিন্দা হতে পারেন তাহলে অন্য নাগরিকদের বাবা মারা কেন পারবেন না ! এক যাত্রায় দুই রকম ফল হবে কেন ? Glenn ট্রাম্পকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন আপনার পরিবার যেটা পালন করেনি তা অন্য পরিবারকে পালন করতে বলবেন কোন নীতিতে ? আপনি আচারি ধর্ম পরে শেখাও !

( ২য ছবি : Victor ও Amalija Knavs, মেলানিয়ার বাবা মা )

ছবি কৃতজ্ঞতা : Washington Post

  


 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ