নিউইয়র্কসহ সারা দেশে স্কুল ধর্মঘট ২০ এপ্রিল!

March 10, 2018, 6:54 AM, Hits: 480

নিউইয়র্কসহ সারা দেশে স্কুল ধর্মঘট ২০ এপ্রিল!

হ-বাংলা নিউজ :  শিরোনাম দেখেই চমকে উঠতে পারেন। যুক্তরাষ্ট্রের স্কুলেও বন্দুক নিয়ে রাজনৈতিক হানাহানি শুরু হলো নাকি? হানাহানি বিষয়টি অবশ্য নতুন নয়। স্কুলে গোলাগুলিতে হরহামেশা প্রাণহানির ঘটনা বন্ধ করতে রাজনীতিবিদেরা কতটা উদাসীন হতে পারেন, সেটিই দেখছে স্কুলের শিক্ষার্থীরা। আর শিখছে কীভাবে তাদের দাবি পূরণে মাঠে নামতে হয়। সে লক্ষ্যেই প্রতিদিনই নতুন নতুন স্কুলে ক্লাস বর্জন কর্মসূচি চলছে। এপ্রিলের ২০ তারিখে নিউইয়র্কসহ যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ১ হাজার ৪৫০টি স্কুল থেকে শিক্ষার্থীরা ওয়াকআউটের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস বলছে, এসবের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা নতুন করে রাজনৈতিক নেতাদের তাদের পক্ষে আনতে কী করতে হয়, সেটাই শিখতে শুরু করেছে। কেননা, কিছুদিন আগে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প স্কুলশিক্ষকদের হাতে বন্দুক তুলে দেওয়ার যে পরামর্শ দিয়েছেন, সেটির পরিপ্রেক্ষিতেই প্রতিদিন ঘটছে নতুন নতুন ঘটনা। সম্প্রতি জর্জিয়ার একটি স্কুলের সামাজিক বিজ্ঞানের শিক্ষক যখন বন্দুক হাতে নিজের স্কুলের ক্যাম্পাসেই গুলি চালিয়ে নিরাপত্তা মহড়া শিখছিলেন, তখন শিক্ষার্থীরা ভয়ে পালিয়েছিল। এক শিক্ষার্থী টুইটারে লিখেছে, ‘আমার প্রিয় ও আদর্শ শিক্ষকের হাতে বন্দুক দেখলাম, তিনি দরজা বন্ধ করে গুলি ছুড়ছেন।’ ব্যাস, এতটুকু কথারই টুইট ১৭ হাজার শেয়ার হয়েছে। ওই স্কুলশিক্ষককে পুলিশ গ্রেপ্তার ও জিজ্ঞাসাবাদ করছে। তিনি কোনো কিছু বলতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। তবে পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে ওই শিক্ষক বলেন, কোনো ক্ষতির জন্য বন্দুক নিয়ে স্কুলে আসেননি। ফ্লোরিডার একটি স্কুলে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ১৭ খুদে শিক্ষার্থীকে হত্যার দুই সপ্তাহ পরেই ঘটেছে এই ঘটনা। 

বাবা–মা, অভিভাবক আর মনোবিজ্ঞানীরা এর নেতিবাচক প্রভাব নিয়ে আলোচনা শুরু করেছেন। ভাবছেন, কীভাবে তাঁদের সন্তানদের স্কুলে নিরাপদ করা যায়। শিক্ষকদের হাতে বন্দুক উঠিয়ে দেওয়াটা কি সমাধান, নাকি এটা ‘শিক্ষক ভীতি’–এর জন্ম দেবে? শিক্ষার্থী আর অভিভাবকেরা চান, একটি নিরাপদ স্কুল ক্যাম্পাস। তার জন্য নির্বিচারে বন্দুক বিক্রি বন্ধ করার আইন চায় একটি পক্ষ। আর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পসহ আরেকটি পক্ষ চায়, বন্দুক সীমিত না করে, স্কুলে স্কুলে শিক্ষকদের হাতে বন্দুক তুলে দিতে। কোনটিতে নিরাপত্তা আসবে, সেটি নিয়েই চলছে নানান হিসাব–নিকাশ।

২০ এপ্রিল নিউইয়র্কসহ সারা যুক্তরাষ্ট্রের স্কুলগুলো থেকে শিক্ষার্থীরা একযোগে ওয়াকআউট করার কর্মসূচি দিয়েছে। এর মধ্যেই ১ হাজার ৪৫৬টি স্কুল এই ওয়াকআউট কর্মসূচি পালন করতে নাম নিবন্ধন করেছে। এই কর্মসূচি সফল করার পেছনে কাজ করছে ডেমোক্র্যাট রাজনীতির সমর্থক আমেরিকান সিভিল রাইটস সংস্থাগুলো। এই বন্দুক বন্ধ করার নীতি প্রণয়নের দাবিতে ডেমোক্র্যাট রাজনীতির পুরো যন্ত্রই এখন ব্যস্ত। আর ট্রাম্পসহ রিপাবলিকান রাজনীতিবিদের বড় অংশটি অস্ত্র বাজার সীমিত করার পক্ষে নয়। এই নিয়েই রাজনীতির যে মাঠ, সেটিতে নিজেদের অবস্থানের কথা জানাতে প্রতিদিন সক্রিয় হচ্ছে খুদে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন। 

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ