সাবওয়েতে সাবধানে চলুন

April 14, 2018, 12:11 AM, Hits: 96

সাবওয়েতে সাবধানে চলুন

হ-বাংলা নিউজ :  নজির বিহীন অব্যবস্থাপনা চলছে নিউইয়র্কের সাবওয়েতে। প্রতিটি লাইনের রেল চলাচলে দেরি, কামরা ভর্তি হয়ে উপচে পড়া কমিউটারসহ হঠাৎ করে মাঝপথে থেমে যাওয়ার যন্ত্রণা এখন নিত্য দিনের ঘটনা। বর্তমানে গোদের ওপর বিষফোড়ার মতো আরও একটি যন্ত্রণা দেখা যায় নিয়মিত- যাত্রীদের অসহিষ্ণুতা। প্রতিদিনের এই অনিশ্চিত রেলযাত্রায় অধিকাংশ যাত্রী থাকেন নানা উৎকণ্ঠায়। এরই প্রভাবে প্রায় সব যাত্রীরই মেজাজ অনেক সময় চড়া থাকে। 

বিগত বছরগুলোয় ট্রেনের কামরার অনেক যাত্রীকে নিবিষ্ট মনে দৈনিক পত্রিকাসহ নানা সাময়িকী পাঠ করে যাত্রাকাল কাটাতে দেখা যেত। আজকাল সে স্থান দখল করেছে ফেসবুক। অধিকাংশ যাত্রী নিমগ্ন থাকেন মুঠোফোনের রকমারি বিনোদনে। এই সব বিনোদনে সাময়িক বিঘ্ন হলেই ঘটে বিপত্তি। প্রতিদিনের যাত্রা পথের বেশির ভাগ সমস্যা দেখা যায় ম্যানহাটনগামী রেলে। দিনের প্রথম ভাগে লাখ লাখ কর্মজীবী সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে দ্রুত ছোটেন কর্মস্থলের দিকে। তাই নগরীর পুরো সাবওয়েতে মাত্রাতিরিক্ত যাত্রীর চাপ সৃষ্টি হয় দিনের শুরুতেই।

তেমনি সমান চাপ সৃষ্টি হয় দিনের শেষে কমিউটারদের ফিরতি যাত্রা পথে। মাত্রাতিরিক্ত ভিড় ঠেলে যাওয়ার পথে আজকাল অনেককে নানা ধরনের বিড়ম্বনার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। বিশেষত নারী যাত্রীদের অস্বস্তিকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয় বেশি। প্রচণ্ড ভিড়ের মধ্যে রেলের বেমক্কা দুলুনি সামাল দিতে গিয়ে অনেক যাত্রীকেই একে অন্যের গায়ে উঠে পড়তে দেখা যায়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে তা অনিচ্ছাকৃত হলেও আজকাল অনেকের সঙ্গেই অপ্রীতিকর ঘটনার প্রথম সূত্র এই ঘটনা থেকেই হয়। অবশ্য এসব ঘটনা ঘটবার পরপরই ত্বরিত দুঃখ প্রকাশ করলে অনেকে মেনে নেন। তবে দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, কিছু কিছু রগচটা যাত্রী এসব বিষয়কে কেন্দ্র করেই বচসা শুরু করে দেন, যা কখনো কখনো মারাত্মক রূপ নেয়। ক্ষেত্র বিশেষে সমস্যার সমাধানে পুলিশের সাহায্য নিতে হয়। কিন্তু এই পরিস্থিতি এড়িয়ে চলাই বুদ্ধিমানের কাজ। এ জন্য নিজেকে আগে সহিষ্ণু হতে হবে।

এ ক্ষেত্রে পরামর্শ হলো প্রতিদিনের যাত্রা পথে বড় বড় হ্যান্ডব্যাগের পরিবর্তে ছোট ছোট হাতে ঝোলানো ব্যাগ ব্যবহার করুন। কেননা ঢাউস মার্কা ব্যাগ জায়গা দখল করে বেশি। ফলে শুধু ব্যাগের কারণেই এই নজিরবিহীন ভিড়ে যে কারও সঙ্গে ধাক্কা লেগে যেতে পারে।

যাত্রাপথের সময় বর্ধিত করুন। কর্মক্ষেত্রে যোগদানের উদ্দেশ্যে যখন বের হবেন তখন হাতে যেন অতিরিক্ত সময় থাকে, যা আপনাকে যাত্রাপথে নিরুদ্বেগ রাখবে। পারতপক্ষে অতিরিক্ত যাত্রী রয়েছে এমন কামরা এড়িয়ে চলুন। যাত্রার পুরো সময় শুধু ফোনের দিকে মনোযোগ না রেখে আশপাশের দিকে খেয়াল রাখুন। যাত্রাপথে বিশেষ করে গন্তব্য স্থানে পৌঁছে নেমে যাওয়ার সময় কখনো তাড়াহুড়া করবেন না। সর্বোপরি প্রতিদিনের এই সাবওয়ের নিয়মিত যাত্রাপথে সদা সর্বদা হুঁশিয়ার থাকা খুবই জরুরি। 

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ