লসএঞ্জেলেসে কনসাল প্রিয়তোষ সাহার সৃষ্ট অনুপ্রবেশকারীরা আওয়ামী পরিবারকে ধংস করছে

May 10, 2018, 10:22 AM, Hits: 1242

লসএঞ্জেলেসে কনসাল প্রিয়তোষ সাহার সৃষ্ট অনুপ্রবেশকারীরা আওয়ামী পরিবারকে ধংস করছে

হ-বাংলা নিউজ, হলিউড থেকে:  গত ৩০শে এপ্রিল কনসাল বাংলাদেশ থেকে লসএঞ্জেলেস এয়ারপোর্টে আসার আগেই তার জন্য অপেক্ষায় ছিলেন তারই সৃষ্ট কয়েকজন অনুপ্রবেশকারী। এসব অনুপ্রবেশকারীরা কনস্যুলেট অফিসের গত বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে আওয়ামীলীগের একজন শীর্ষ ত্যাগী নেতার উপর হামলার অপচেষ্টা করেন। এছাড়াও গত একুশের অনুষ্ঠানে ক্যালিফোর্নিয়া আওয়ামীলীগের আরেকজন ত্যাগী সিনিয়র নেতা ও সাবেক যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ ক্যালিফোর্নিয়া শাখার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সোহেল রহমান বাদলের উপর হামলা করেছিলেন এসব অনুপ্রবেশকারীরা। কনসুলেটের এসব ঘটনা গনমাধ্যমে প্রকাশের পর আওয়ামী পরিবার ও সাধারণ জনগণ তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। আওয়ামীলীগ দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকায় স্বার্থের জন্য কিছু অনুপ্রবেশকারী আওয়ামী পরিবারে ঢুকে পরেছে। কনসাল প্রিয়তোষ সাহা এখন লসএঞ্জেলেসের আওয়ামীলীগে কিছু অনুপ্রবেশকারীদের দিয়ে তার অপকর্মের সমর্থন আদায়ের অপচেষ্টা করছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে দেশে বিদেশে অনুপ্রবেশকারীদের তালিকা তৈরী হচ্ছে। শীঘ্রই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কনসাল প্রিয়তোষ সাহার সাথে লসএঞ্জেলেস এয়ারপোর্টে তার কর্মচারীদের সাথে কয়েকজন অনুপ্রবেশকারীকে দেখা যায়। এসব অনুপ্রবেশকারীরাই গত বছর মাননীয় অর্থমন্ত্রীর অনুষ্ঠানে একইভাবে একে অপরেরর উপর হামলা চালিয়ে অনুষ্ঠান পন্ড করেন। যা কমিউনিটির সাধারণ জনগণসহ আওয়ামী পরিবারের সচেতন ব্যক্তিরা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং কনসাল প্রিয়তোষ সাহার দিকেই অভিযোগের তীর ছুড়েন। কনসাল লসএঞ্জেলেস এয়ারপোর্টে পৌঁছার কয়েক ঘন্টা পূর্বে অনুপ্রবেশকারীসহ কয়েকজন আওয়ামীলীগ পরিবারের সদস্য তার অফিসের এক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যৌন কেলেঙ্কারীর মিথ্যা অভিযোগ করে তাকে হেনস্থা করার অপচেষ্টা করেন। গত দুই বছরে হিন্দু কমিউনিটি, আওয়ামী পরিবারসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের মধ্যে বিভক্তি ও দন্দ্বের জন্য কনাসলকেই দায়ী করছেন। তার মিথ্যাচারের কারনে কনসুলেট অফিসের ভেতরে ও বাইরে যে বিভক্তি তা লসএঞ্জেলেসবাসীর বুঝতে এতটুকু অসুবিধা হচ্ছে না। লসএঞ্জেলেসে আওয়ামীলীগের কয়েকটি বৈধ অংগসংগঠন থাকা সত্ত্বেও কনসালের নেতৃত্বে কয়েকজন অনুপ্রবেশকারী অবৈধভাবে সংগঠনের নাম ব্যবহার করছে। তার বিস্তারিত তথ্য সাধারণ জনগণের মধ্যে শীঘ্রই প্রকাশ করা হবে। ঐসব অনুপ্রবেশকারীরা নিজেদের কোন প্রোগ্রাম করার সক্ষমতা না থাকায় কনসাল কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত ও কনসালের অফিসকে রাজনৈতিক প্লাটফর্ম বানানোর অপচেষ্টা করে যাচ্ছেন বলে সাধারণ মানুষের মন্তব্য।

  কনসাল প্রিয়তোষ সাহার আওয়ামী বিরোধী কর্মকান্ড দেখে আওয়ামী পরিবারের অনেকেই মন্তব্য করছেন তিনি বিচারপতি সিনহার পথেই হাটছেন, যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কখনই মেনে নেবেন না।

 

 
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ