মার্কিনবিরোধী জনপ্রিয় শিয়া নেতা ইরাকের নির্বাচনে জিতলেন

May 15, 2018, 6:17 AM, Hits: 279

মার্কিনবিরোধী জনপ্রিয় শিয়া নেতা ইরাকের নির্বাচনে জিতলেন

হ-বাংলা নিউজ : ইরাকে পার্লামেন্ট নির্বাচনে সব হিসাব ওলট-পালট হয়ে গেছে। ভোটের আগে একরকম ধরেই নেওয়া হয়েছিল, প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল-আবাদিই আবার জিতছেন। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে, জনপ্রিয় শিয়া সম্প্রদায়ের ধর্মীয় নেতা মুকতাদা আল-সদরের জোট কার্যত নির্বাচনে জিতেছে। আল-সদর কট্টর মার্কিনবিরোধী বলে পরিচিত। ভোটে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ইরানসমর্থিত শিয়া মিলিশিয়া-প্রধান হাদি আল-আমিরির ব্লক। আর আবিদির অবস্থান তিন নম্বরে। ইসলামিক স্টেটের (আইএস) পতনের পর ইরাকে এই প্রথম ভোট অনুষ্ঠিত হলো।

রয়টার্স জানায়, এই প্রাথমিক ফল ঘোষিত হয়েছে ওই ১৬ প্রদেশের প্রদত্ত ভোটের ৯১ শতাংশেরও বেশি গণনার ভিত্তিতে। নির্বাচনে ৪৪ দশমিক ৫২ শতাংশ ভোট পড়ে।

আল-সদরের নেতৃত্বাধীন জোট অন্য দুটি প্রদেশের ভোটে অংশ নেয়নি। প্রদেশ দুটি হলো কুর্দিশ দোহুক ও কিরকুক। অবশ্য সেখানকার ফলাফল আল-সদরের জয়ে কোনো প্রভাব ফেলবে না। আল-সদর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইরান উভয়েরই প্রতিদ্বন্দ্বী। ইরাকে অবস্থানরত মার্কিন সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে দুটি গণবিদ্রোহে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তিনি। আল-সদর হাতে গোনা কয়েকজন শিয়া নেতার অন্যতম, যিনি ইরানের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখেন।

তবে পার্লামেন্ট চাইলে নির্বাচনে বিপর্যয় সত্ত্বেও আল-আবাদি দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় থাকতে পারেন। তিনি সব পক্ষকে ফলাফল মেনে নিতে বলেছেন এবং জানিয়েছেন, সরকার গঠনে তিনি আল-সদরের সঙ্গে কাজ করতে রাজি আছেন।

এক সরাসরি সম্প্রচারে আবাদি বলেন, ‘ইরাকে একটি শক্তিশালী ও দুর্নীতিমুক্ত সরকার গড়তে আমরা সব ধরনের সহায়তা করতে তৈরি।’ কয়েক বছর ধরে আল-সদরের প্রধান এজেন্ডা ছিল দুর্নীতিমুক্ত ইরাক।

আল-সদর নিজেকে একজন ইরাকি জাতীয়তাবাদী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তরুণ, দরিদ্র, বাস্তুহারা গোষ্ঠীর মধ্যে তাঁর জনপ্রিয়তা ঈর্ষণীয়। কিন্তু এতকাল তিনি ইরান-সমর্থিত প্রভাবশালী নেতাদের কারণে কিছুটা কোণঠাসা হয়ে ছিলেন।

আল-সদর প্রধানমন্ত্রী হতে পারবেন না, কেননা তিনি নির্বাচনে সরাসরি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি। কিন্তু এ জয়ের ফলে তিনি অন্য যে-কাউকে প্রধানমন্ত্রী পদে বসাতে পারবেন।

কিন্তু তারপরও আল-সদরের দল পরবর্তী সরকার গঠন করতে পারবে না। যে-ই বেশির ভাগ আসনে জয়লাভ করুক না কেন, সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য তাঁকে অবশ্যই জোট সরকার গঠন করতে হবে। নির্বাচনের ফল প্রকাশের ৯০ দিনের মধ্যে সরকার গঠন করার বিধান রয়েছে। 

 
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ