মনিকা নিয়ে বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিলেন ক্লিনটন

June 6, 2018, 9:35 PM, Hits: 222

মনিকা নিয়ে বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিলেন ক্লিনটন

হ-বাংলা নিউজ :  হোয়াইট হাউসের আলোচিত সাবেক শিক্ষানবিশ মনিকা লিউনস্কিকে নিয়ে করা নিজের বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন। ২০ বছর আগে মনিকার সঙ্গে যৌন কেলেঙ্কারির অভিযোগে অভিশংসনের মুখে পড়তে হয়েছিল এই সাবেক প্রেসিডেন্টকে।

গত সোমবার এনবিসি নিউজের ‘টুডে’ অনুষ্ঠানে এক সাক্ষাৎকারে বিল ক্লিনটন বলেছিলেন, তিনি মনে করেন, যৌন কেলেঙ্কারির এই ঘটনায় তিনি যথেষ্ট ক্ষমা চেয়েছেন। এবং এ নিয়ে মনিকার কাছে তাঁর সরাসরি ক্ষমা চাওয়ার কিছু নেই। কারণ, তিনি এ জন্য প্রকাশ্যে ক্ষমা চেয়েছেন।

এরপরই তাঁকে নিয়ে সমালোচনার ঝড় শুরু হয়।

ঠিক এর পরের দিনই ক্লিনটন নিজের বই ‘দ্য প্রেসিডেন্ট ইজ মিসিং’-এর প্রচারকাজের অংশ হিসেবে হাজির হন ‘দ্য লেট শো উইথ স্টিফেন কোলবেয়া’-র অনুষ্ঠানে। সেখানে তিনি তাঁর আগের দিনের বক্তব্যের ব্যাখ্যা দেন।

ক্লিনটন বলেন, ‘এখানে আমি বলতে চাই, এটা আমার জীবনের সুসময় ছিল না। গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, ২০ বছর আগে যা ঘটেছে তা খুবই দুঃখজনক। এ জন্য আমি আমার পরিবারের কাছে, মনিকা লিউনস্কি ও তাঁর পরিবারের কাছে, সর্বোপরি মার্কিন জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়েছি।’ আমি তখনো এটা বুঝিয়েছি, এখনো এটাই বোঝাতে চাইছি। এই ঘটনার যে পরিণাম, তা নিয়ে আমাকে প্রতিদিন চলতে হচ্ছে। আমি এখনো বিশ্বাস করি, হ্যাশট্যাগ মি টু এমনিতেই অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে, এর প্রয়োজন রয়েছে এবং সবার এটি সমর্থন করা উচিত।

ক্লিনটন আরও বলেন, বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের একের পর এক যৌন কেলেঙ্কারির ঘটনায় জনগণ হতাশ। তাই এখন তাঁকে নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়েছে।

মনিকা লিউনস্কি

মনিকা লিউনস্কি

২০১৪ সালে জনপ্রিয় সাময়িকী ভ্যানিটি ফেয়ারে নিজের জবানে পাক্কা চার হাজার শব্দের কাহিনি লেখেন মনিকা লিউনস্কি। মনিকা এতে বলেন, সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ক্লিনটন তাঁর কাছ থেকে সুযোগ নিয়েছিলেন। তবে একই সঙ্গে বলেছেন, যা হওয়ার তা হয়েছে দুজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের সম্মতিতেই। অন্যায় তাঁর সঙ্গে যা হয়েছে, তা ঘটনার পর। ক্ষমতাবান প্রেসিডেন্টকে বাঁচানোর জন্য প্রশাসন, উভয় পক্ষের রাজনৈতিক নেতৃত্ব, মিডিয়াসহ সবাই বলির পাঁঠা করেছিল অবলা এই তরুণীকেই।

অন্যদিকে, চূড়ান্ত হেনস্তা হতে হয় এমনিতে বেশ জনপ্রিয় প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনকেও। শপথ নিয়ে মিথ্যা বলার দায়ে অভিশংসনের মুখোমুখি হতে হয় তাঁকে। কোনোমতে গদি রক্ষা পায়। ‘মনিকা লিউনস্কি নামের এই নারীর সঙ্গে আমার কোনো প্রেমট্রেম নেই’—তদন্তে সাক্ষ্য দিতে গিয়ে এ রকম একটি ডাহা মিথ্যা বলেছিলেন বিল ক্লিনটন। পরে তাঁকে মিথ্যা কথার জন্য দুঃখ প্রকাশও করতে হয়েছে।

ক্লিনটনের বিরুদ্ধে তিনজন নারী যৌন হয়রানির অভিযোগ এনেছিলেন। এর মধ্যে জুয়ানিতা ব্রডরিক একজন। এই নারীর অভিযোগ ছিল, ১৯৭৮ সালে ক্লিনটন তাঁকে ধর্ষণ করেছিলেন। তবে ক্লিনটন এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। 

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ