প্রবাসীদের সেবা দেয়াই স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস’র লক্ষ্য ॥ দেশপ্রেম ছাড়া দূর্নীতি বন্ধ করা যাবে না

July 11, 2018, 1:26 AM, Hits: 324

প্রবাসীদের সেবা দেয়াই স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস’র লক্ষ্য ॥ দেশপ্রেম ছাড়া দূর্নীতি  বন্ধ করা যাবে না

নিউইয়র্ক (ইউএনএ): বিশিষ্ট শিল্পপতি, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড বাংলাদেশ-এর চেয়ারম্যান ও এফবিসিসিআই’র সাবেক সভাপতি কাজী আকরামউদ্দিন আহমেদ বলেছেন, বাংলাদেশের ব্যাংকিং সেক্টর সহ সকল ক্ষেত্রেই দূর্নীতি বন্ধ করতে হলে সবার আগে সর্বস্তরে সকলের মাঝে দেশপ্রেম জাগ্রত করতে হবে। সেই সাথে ব্যক্তি স্বার্থ ত্যাগ করতে হবে। দেশপ্রেম ছাড়া দূর্নীতি বন্ধ করা যাবে না। তিনি বলেন, কোন মুনাফা’র জন্য নয়, সততার সাথে প্রবাসীদের সেবা দেয়াই স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস এক্সচেঞ্জের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য।প্রবাসীদের সার্বিক সহযোগিতায় গত আট বছর ধরে স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস তার ৭টি শাখার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রে সুনামের সাথে কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। আর এই সুনাম ধরে রাখার লক্ষ্যেই নিউইয়র্কের বাফেলো শহরে আরো একটি শাখা খোলা হচ্ছে।বাংলাদেশের স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান ‘স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস’-এর নিউইয়র্ক তথা যুক্তরাষ্ট্রে স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস-এর ৮ বছর পূর্তী উপলক্ষ্যে সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড বাংলাদেশ-এর চেয়ারম্যান কাজী আকরামউদ্দিন আহমেদ উপরোক্ত কথা বলেন। গত ৯ জুলাই সোমবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্কের উডসাইডস্থ গুলশান ট্যারেসে আয়োজিত এই সভায় বিশেষ অথিতি ছিলেন স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড বাংলাদেশ-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মামুন উর রশীদ, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের শরীয়াহ সুপারভাইজারী কমিটির সদস্য কাজী খুররম আহমেদ। সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস ইউএসএ’র সিইও মোহাম্মদ আব্দুল মালেক।উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের নেভাদা অঙ্গরাজ্যের লাসভেগাসে গত ৩ জুলাই পর্যন্ত ৫ দিনব্যাপী ১০১তম আন্তর্জাতিক লায়ন্স ক্লাবের বার্ষিক সম্মেলনে কাজী আকরাম সংগঠনটির আন্তর্জাতিক পরিচালক’ পদে নির্বাচিত হন। বিশ্বেও ১২০ দেশের ২০ হাজার লায়ন এতে অংশ নিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। নির্বাচনে তিনি বিপুল ভোটে বিজয়ী হন।মতবিনিময় সভায় কাজী আকরামউদ্দিন আহমেদ বলেন, একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতা লাভের পর বাংলাদেশ শুন্য থেকে যাত্রা শুরু করেছে। ‘জাতির পিতা’ শেখ মুজিবের নেতৃত্বে যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশটি সম্মুখে এগিয়ে চলার পথে উঠতে যাচ্ছিল, ঠিক সে সময়েই ষড়যন্ত্রকারীরা বঙ্গবন্ধুকে নৃশংসভাবে হত্যা করে সবকিছু ভন্ডুল করে। এর ২১ বছর পর তারই কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সেই দেশটির হাল ধরেছেন। এখন বাংলাদেশকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। সামাজিক নিরাপত্তা সূচকেও বাংলাদেশ ভালো অবস্থানে রয়েছে।সেই দেশটি যাতে আরো বেগবানভাবে এগিয়ে চলে সে জন্যে প্রবাসীদের সরব থাকতে হবে। দেশের প্রবৃদ্ধির হার বেড়েছে, রিজার্ভও বেড়েছে।কাজী আকরামউদ্দিন বলেন, নানা সমস্যার মধ্যেও বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রয়েছে। ব্যাংকগুলোতে জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা হচ্ছে। ব্যাংকের অর্থ লুটপাটকারীদের বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নিচ্ছে। সব সবমিলিয়ে ব্যাংক ব্যবস্থায় সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে একটু সময় লাগবে।ইন্টারন্যাশনাল লায়ন ক্লাবের আন্তর্জাতিক পরিচালক পদে তার বিজয়ের কথা উল্লেখ করে কাজী আকরাম বলেন, লায়ন ক্লাবের সম্মেলনে আমার বিজয় বাংলাদেশের বিজয়, দেশের জনগণের বিজয়। তিনি বলেন, এই সম্মেলনে ভারতের বিরুদ্ধেও নানা অভিযোগ উঠেছে।পাকিস্তানকে জঙ্গীরাষ্ট্র হিসেবে বলাবলি হয়েছে। অপরদিকে বাংলাদেশের ব্যাপারে তারা পজেটিভ ধারণা পোষণ করেছে। বাংলাদেশকে সকলেই ‘উন্নয়নের মডেল’ হিসেবে বিবেচনা করেছেন।কাজী আকরাম বলেন, যমুনা সেতু নির্মাণের ফলে উত্তরবঙ্গ থেকে মঙ্গা দূর হয়েছে। পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ শেষ হলে বাংলাদেশে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হারে ১.৫% কওে বার্ষিক যোগ হবে। অর্থাৎ উন্নয়নের মহাসড়কে উঠা বাংলাদেশের এগিয়ে চলা ত্বরান্বিত হবে। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা ও তার সরকার এই সেতু নির্মাণের প্রকল্পকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছেন। পরে তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।সভায় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে কাজী আকরাম বলেন, বাংলাদেশে কর্মরত ভারতীয়রা বার্ষিক ৬ বিলিয়ন ডলারের মত নিয়ে যাচ্ছে। তবে এই অর্থ বৈধপথে ভারতে যায়, নাকি হুন্ডি’র মাধ্যমে যায় তা বলা মুশকিল। তিনি বলেন, বাংলাদেশে দক্ষ কর্মী (স্কীল্ড লেবার) তৈরী করতে পারলে এই ৬ বিলিয়ন ডলার বিদেশে যাবে না। বাংলাদেশের মানুষেরাই তা ব্যবহারে সক্ষম হবে।সভায় স্বাগত বক্তব্যে স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস ইউএসএ’র সিইও মোহাম্মদ আব্দুল মালেক বলেন,প্রবাসীদের সেবায় স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস বাংলাদেশে অর্থ প্রেরণে ‘স্ট্যান্ডার্ড’ বজায় রেখে চলেছে। ৩২ হাজার প্রবাসী প্রতি মাসে গড়ে ৬ মিলিয়ন ডলার করে বাংলাদেশে অর্থ পাঠাচ্ছেন। স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস-এর মধ্যমে গত ৭ বছরে ৩ বিলিয়ন ডলার বাংলাদেশে প্রেরণ করা হয়েছে।অনুষ্ঠানে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের এমডি ও সিইও মামুন অর-রশীদ, ব্যাংকের পরিচালক কাজী খুররম আহমেদও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন।  

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ