যুক্তরাষ্ট্র আ. লীগের মতবিনিময় সভা

July 18, 2018, 8:02 PM, Hits: 147

যুক্তরাষ্ট্র আ. লীগের মতবিনিময় সভা

নিউইয়র্ক (ইউএনএ): গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশারফ হোসেন এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এবং তার অধীনেই আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আর নির্বাচন কালীন সরকার প্রধান হিসেবেও থাকবেন শেখ হাসিনা। সংবিধানে প্রধানমন্ত্রীকে নির্বাচনকালীন যে ক্ষমতা দেয়া হয়েছে ততোটুকুই ব্যবহার করবেন তিনি। ‘আগামী ডিসেম্বরেরই নির্বাচন আর অক্টোবর মাসে ১০/১২ সদস্যের নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করা হবে’ এমন আভাষ দিয়ে মন্ত্রী আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে পুনরায় নির্বাচিত করতে দলীয় নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থেকে কাজ করার আহ্বান জানান।যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন। গত ১৩ জুলাই শুক্রবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে পালকি পার্টি সেন্টারে এই সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন এবং নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটে নিযুক্ত কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুননেসা। খবর ইউএনএ’র।যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামসুদ্দিন আজাদ-এর সভাপতিত্বে সভা পরিচালনা করেন সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ। সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দলের সহ সভাপতি লুৎফুল করীম, সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন দেওয়ান, প্রচার সম্পাদক হাজী এনাম, প্রবাস বিষয়ক সম্পাদক সোলায়মান আলী, মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক মিসবাহ আহমেদ, সহ প্রচার সম্পাদক তৈয়বুর রহমান টনি, আওয়ামী লীগ নেতা জয়নাল আবেদীন, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক সাখাওয়াত বিশ্বাস, যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জামাল আহমেদ, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি কাজী আজিজুল হক খোকন প্রমুখ।সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত ও বিশেষ দোয়া পরিচালনা করেন মওলানা সাইফুল আলম সিদ্দিকী।

এরপর ‘জাতির জনক’ বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের নিহতদের সহ বাংলাদেশের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।মুজাজাতে জনপ্রশাসন মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের রোগমুক্তি কামনা করা হয়। অনুষ্ঠানে সামসুদ্দিন আজাদ তার লিখিত বই মন্ত্রী ও অতিথিদের উপহার দেন এবং প্রবাসী ফুরদপুর জেলাবাসী সহ নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগ,স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ, শেখ হাসিনা মঞ্চ প্রভৃতি সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুলের তোরা দিয়ে  মন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানানো হয়। উল্লেখ্য, জাতিসংঘে টেকসই উন্নয়ন সম্পর্কিত উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে অংশ নিতে খন্দকার মোশারফ নিউইয়র্কে সফর করেন।সভায় মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ বলেন, বর্তমান সরকার সংবিধান মোতাবেকই দেশ পরিচালনা করছে। বিরোধীরা যতোই দাবি জানাক, আগামী নির্বাচন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনেই হবে। নির্বাচনকালীন সরকারও গঠন করবে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীই। তবে এই সরকারে বিরোধী পক্ষের রাজনীতিকদেরও আমন্ত্রই জানানো হতে পারে।মন্ত্রী বলেন, সরকার উন্নয়নমূলক কর্মকা- চালিয়ে যাচ্ছে। বিগত যে কোন সময়ের তুলনায় বাংলাদেশের অর্থনীতি মজবুত অবস্থায় আছে। আর দেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকা শক্তি হচ্ছে এই প্রবাসীরা।

দেশের উন্নয়নে প্রবাসীদের অবদান অনস্বীকার্য বলেও মন্তব্য করেন তিনি।খন্দকার মোশাররফ বলেন, বাংলাদেশ এখন আর তলাবিহীন ঝুড়ি নয়, বরং বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেলের দেশে পরিণত হয়েছে। বিশ্ববাসী এখন বাংলাদেশের উন্নয়ন-অগ্রগতির কথা শুনতে চায়।তিনি বলেন, বিশ্বের প্রায় ১৬৬টি দেশে প্রায় এক কোটি বাংলাদেশী বসবাস করছেন। তারা সৎ,পরিশ্রমী। সরকার প্রবাসী বাংলাদেশীদের ব্যাপারে আন্তরিক। আমি, যখন শ্রম মন্ত্রী ছিলাম তখন রেমিটেন্স আসতো ৩ বিলিয়ন ডলার। আর আমার শেষ সময়ে এই রেমিডেন্সের পরিমান দাঁড়ায় ১৭ বিলিয়ন ডলার। বর্তমানে প্রবাসীদের রেমিটেন্সের পরিমান ২২ মিলিয়ন ডলার।রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন বলেন, বাংলাদেশ তার লক্ষ্য অর্জনে এগিয়ে যাচ্ছে এবং স্বাস্থ্য ও শিক্ষাক্ষেত্রে বিশ্বের অন্যান্য দেশের কাছে রোল মডেল বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেন, বিশুদ্ধ পানি এবং স্যানিটেশনে বাংলাদেশ বিশ্বে রোল মডেল হিসেবে আবিভূত হয়েছে। দেশের শতকতা৮৮ ভাগ মানুষ বিশুদ্ধ পানি পান করে এবং একই ৯০ শতাংশ জনগণ স্বাস্থ্যকর স্যানিটেশনের আওতায়। জাতিসংঘ আয়োজিত হাই লেভেল পটেলিকাল ফোরামেও বাংলাদেশের এমন অর্জনের প্রশংসা করা হয়েছে।সভায় যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ তাদের বক্তব্যে বাংলাদেশের উন্নয়নে কথা তুলে ধরে আগামীতেও শেখ হাসিনার সরকার প্রতিষ্ঠায় সবাইকে ঐক্যবন্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানান।

সভায় দলের উল্লেখযোগ্য নেতৃবৃন্দের মধ্যে নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুর রহমান ও সহ সভাপতি সাইকুল ইসলাম, যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জামাল হোসাইন ও সেবুল মিয়া, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল আহমেদ সহ সর্বস্তরের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।মন্ত্রীর উপস্থিতিতেই হাতাহাতি: এদিকে বিভক্ত যুবলীগের নেতাদের বক্তব্য দেয়া না দেয়ার সুযোগের ঘটনায় সভায় মন্ত্রীর উপস্থিতিতেই হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। ঘোীষত সময় সন্ধ্যা ৭টার সভা শুরু হয় রাত ৯টার দিকে। ফলে সময় স্বল্পতার কারণে অনেককেই সভায় বক্তব্য দিতে না পারার পাশাপাশি যারা বক্তব্য দেবেন তাদেরকে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেয়ার আহ্বান জানান সভা পরিচালনাকারী আব্দুস সামাদ আজাদ। সভার এক পর্যায়ে যুবলীগের এক গ্রুপের এক নেতাকে বক্তব্য দেওয়ার পর অন্য গ্রুপের কাউকে বক্তব্য রাখার সুযোগ না দেয়ায় উপস্থিত যুবলীগের নেতাকর্মীরা উত্তেজিত, বাক-বিতন্ডা এবং এক পর্যায়ে হাতাহাতিতে লিপ্ত হয়ে পড়েন। অবশ্য পরবর্তীতে দলের সিনিয়র নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

এই ঘটনায় বিব্রত মন্ত্রী বলেন, সভায় এমন ঘটনা হওয়ার কথার ছিলো না। সবাইকে সময় ও পরিবেশ বুঝতে হবে। এমন ঘটনা দলের জন্য ক্ষতিকর। এখন ঐক্যবদ্ধ থাকার সময়। অপরদিকে এই সভার হাতাহাতির ঘটনার রেশ ধরে পরবর্তীতে ঐদিন রাতে জ্যাকসন হাইটসে কয়েকজন নেতা নাজেহাল হন বলে জানা গেছে।বাংলাদেশ কনস্যুলেট পরিদর্শন: এদিকে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন গত ১১ জুলাই বুধবার নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট পরিদর্শন করেন।এসময় কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুননেসাসহ কন্স্যুলেটের অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মচারী তাকে স্বাগত জানান। কনসাল জেনারেল কনস্যুলেট এর কার্যক্রম মন্ত্রীকে অবহিত করেন।এক তথ্য বিবরণীতে বলা হয়, খন্দকার মোশাররফ হোসেন কনস্যুলেট এর বিভিন্ন শাখা ঘুরে দেখেন এবং কনস্যুলার সেবাপ্রার্থী অপেক্ষমান প্রবাসীদের সাথে কথা বলেন ও তাদের খোঁজ-খবর নেন।

পরিদর্শনের সময় কনস্যুলেটের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সাথে মতবিনিময়কালে মন্ত্রী প্রবাসীদের কল্যাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকারের দৃঢ় প্রতিজ্ঞার কথা উল্লেখ করেন।বর্তমান সরকারের রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ এর বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সম্মিলিতভাবে কাজ করার জন্য মন্ত্রী বিদেশে বাংলাদেশ মিশনসমূহে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের প্রতি আহ্বান জানান। স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান, জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

  

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ