প্রগ্রেসিভ ফোরাম, জর্জিয়া- এর উদ্যোগে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

September 7, 2018, 8:48 AM, Hits: 1284

প্রগ্রেসিভ ফোরাম, জর্জিয়া- এর উদ্যোগে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

আটলান্টা জর্জিয়া থেকে বশীর উদ্দীন আহমেদঃ- হ-বাংলা নিউজ :  গত পহেলা সেপ্টেম্বর, ২০১৮, প্রগ্রেসিভ ফোরাম, জর্জিয়া- এর  উদ্যোগে এক আলোচনা  সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান স্থানীয় পুনা রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের আহবায়ক অ্যাডভোকেট ইলা চন্দ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (ডি. এন. সি.)-এর কার্যকরী সদস্য এবং জর্জিয়া-৫ আসনের সিনেটর ইলেক্ট শেখ চন্দন রহমান, সম্প্রতি অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ এসোশিয়েশন অফ্ জর্জিয়ার নির্বাচনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও কমিউনিটি নেতা মশিউর রহমান এবং প্রগ্রেসিভ ফোরাম, ইউ. এস. এ. -এর নেতা জাকির হোসেন বাচ্চু।

তিন পর্বে বিভক্ত অনুষ্ঠানের প্রথমেই ছিল প্রগ্রেসিভ ফোরাম, জর্জিয়ার লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য তুলে ধরা, এবং সড়ক দূর্ঘটনায় ছাত্র হত্যার প্রতিবাদে সম্প্রতি বাংলাদেশের কিশোর-ছাত্র আন্দোলনের উপর গুরুত্ববহ একটি প্রবন্ধ পাঠ। দ্বিতীয় পর্বে ডি. এন. সি.- এর কার্যকরী সদস্য এবং জর্জিয়া-৫ আসনের সিনেটর ইলেক্ট শেখ চন্দন রহমানকে সংবর্ধিত করা, এবং শেষ পর্বে অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সর্বশেষে আগত অতিথিদেরকে ডিনারে আপ্যায়িত করা হয়।জর্জিয়া-৫ আসনের সিনেটর ইলেক্ট, মি. চন্দন রহমান তার নির্বাচনী অভিজ্ঞতা তুলে ধরে বলেন কিভাবে তিনি জর্জিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চলে দ্বারে দ্বারে ক্যাম্পেইন করেছেন এবং নানান ধরনের মানুষের সান্নিধ্যে এসেছেন। তার পরিশ্রমই তাকে বিজয়ের শেষ হাসিটি এনে দিয়েছে। এছাড়া, কিভাবে সিটিজেন ইমিগ্র্যান্টরা অনলাইনে আবেদন পত্র পূরণ করে ভোটার রেজিষ্ট্রেশন করার মাধ্যমে সহজেই ভোটার হতে পারেন তা ব্যাখ্যা করেন। তার প্রাঞ্জল ও চৌকষ বক্তব্যে তিনি প্রগ্রেসিভ ফোরামের অগ্রগতি কামনা করেন এবং বেশি বেশি প্রবাসী বাংলাদেশিকে মূল ধারার রাজনীতিতে যুক্ত হবার তাগিদ দেন।বিশেষ অতিথি প্রগ্রেসিভ ফোরাম, ইউ.এস.এ. এর সম্মানিত নেতা নিউইয়র্ক প্রবাসী জাকির হোসেন বাচ্চু প্রগতিশীল আন্দোলনকে অগ্রসর করে নিতে জর্জিয়ার এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানান।

সংগঠনের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য নিয়ে আলোচনার সূত্রপাত করে শ্যাম চন্দ বলেন- জর্জিয়া তথা আটলান্টায় প্রবাসী বাংলাদেশী কমিউনিটিতে একটি দেশপ্রেমিক ও নিরপেক্ষ চিন্তা-ভাবনার প্রগতিশীল সংগঠনের দীর্ঘ দিনের শূন্যতা রয়েছে এবং তার ফলশ্রুতিতেই একটি সৃজনশীল, বাস্তবমুখী এবং কমিউনিটির কাছে গ্রহণযোগ্য রাজনীতি-সচেতন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন হিসেবে প্রগ্রেসিভ ফোরাম জর্জিয়া’র আত্মপ্রকাশ।বাংলাদেশে সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনায় দুজন ছাত্রের মৃত্যু, পরিবহন সেক্টরে দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার প্রতিবাদে ‘কিশোর-ছাত্র বিক্ষোভ এবং প্রবাসের ভাবনা’ শিরোনামে প্রগ্রেসিভ ফোরামের পক্ষ থেকে লিখিত প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ডা. মুর্শেদুল হাকিম শুভ্র। তিনি বলেন Overload, Overtake এবং আইনের শাসনের অনুপস্থিতি বাংলাদেশের সড়ককে করেছে দূর্দমনীয়। অসাধু পরিবহন মালিকদের পক্ষাবলম্বনের কারণে শাসক শ্রেণী বিচ্ছিন্ন হয়েছে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে। যার কারণে দুর্ঘটনা বেড়েই চলেছে। প্রতিনিয়ত মারা যাচ্ছে শত শত মানুষ। তাই বিক্ষোভ প্রতিবাদ নিয়ে রাস্তায় নেমে এসেছে ছোট ছোট কিশোর ছাত্ররা। তিনি আরো বলেন সড়ক দুর্ঘটনার মূলে রয়েছে ‘Profit before People’ মানে ‘মালিকের লাভটা আগে, মানুষের জীবন পরে’।

পঠিত প্রবন্ধের আলোকে ড. নাসির উদ্দিন বাংলাদেশের সাম্প্রতিক রাজনীতির বিষয়গুলিকে সুন্দরভাবে ব্যাখ্যা করেন। তিনি বলেন, শাসন ব্যবস্থায় দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা এবং অবহেলার কারণে প্রভূত ক্ষতি হচ্ছে। অথচ, সমস্যা সমাধানে সরকার কোন কার্যকর উদ্যোগ/ ভূমিকা নিতে ব্যর্থ। ফলে মানুষের মনে দানা বেঁধেছে বিক্ষোভ এবং তা’ বিস্ফোরিত হয়ে বেরিয়ে এসেছে রাস্তায়।কমিউনিটি সংগঠক ও সংস্কৃতি ব্যাক্তিত্ব গোলাম মহিউদ্দিন মুহিত দীর্ঘ প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতার আলোকে ‘প্রবাসের টুকিটাকি’ তে কম/বিনা পারিশ্রমিকে কোচিং করানো, কমিউনিটির মধ্যে বিজ্ঞান মনস্কতা বাড়াতে ভূমিকা নেয়া সহ বিভিন্ন প্রস্তাব তুলে ধরেন। সাংবাদিক আশফাক স্বপন ‘আমি তোমাদেরই লোক’ জানিয়ে এই সংগঠন গড়ে তোলা খুবই সময়োপযোগী এবং প্রশংসনীয় বলে অভিমত ব্যক্ত করেন এবং এর পরিধি বাড়াতে উদ্যোগ নেয়ার পরামর্শ দেন। মূল ধারার রাজনীতিক মোস্তফা জাহিদ টিটু তার আলোচনায় ভবিষ্যত প্রজন্মের স্বার্থে সকলকে মূলধারার রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হতে অনুরোধ জানান।সব শেষে পরিবেশিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। পরিচালনা করেন রুবিনা শম্পা। অংশগ্রহণ করেন গোলাম মহিউদ্দিন, স্নিগ্ধা দত্ত, মুর্শেদুল হাকিম, হাসিনা আখতার, কাকলি বিশ্বাস এবং অন্যান্যরা। তবলায় সহযোগিতা করেন অভিষেক ঘোষ। স্বপন মন্ডল বেশ কয়েকটি কবিতা আবৃত্তি করেন।সমাবেশ থেকে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে জর্জিয়া-বাংলাদেশ সমিতির নির্বাচিত কর্মক্ররতাদেরকে অভিনন্দন জানানো হয় এবং কমিউনিটিতে গণতান্ত্রিক চর্চা অব্যাহত রাখতে সমিতির সাথে অথবা যৌথ উদ্যোগে নানা কর্মকান্ড অনুষ্ঠিত করার ঘোষণা দেয়া হয়। প্রবাসে বাঙালির পরিচয় ও সংস্কৃতি বিকাশের উদ্যোগ হিসেবে আটলান্টায় একটি শহীদ মিনার গড়ে তুলতে BAG সহ সকল সংগঠন ও আগ্রহী ব্যাক্তিকে আহ্বান জানানো হয়। ২০১৮-এর নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে গভর্নর হিসেবে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী স্টেইসি আব্রাহ্ম কে সমর্থন করা এবং তার ক্যাম্পেইনকে সহযোগিতা করার ঘোষণা করা হয়।অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন জর্জিয়ার সফল রিয়েল্টর শাহিদুল হক, জর্জিয়া-বাংলাদেশ সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, জর্জিয়া প্রবাসী কথা সাহিত্যিক ও বলাকা ইন্স্যুরেন্স-এর স্বত্বাধিকারী শরীফ ইসলাম, প্রাক্তন উদীচী কর্মি সুলতানা আলো, মুক্তচিন্তক রবীন্দ্র কুমার, সুপর্ণা মন্ডল, প্রফুল্ল সূত্রধর, অনিলা হাবিব, অর্ণব দত্ত সহ আরো অনেকে। জর্জিয়া-বাংলাদেশ সমিতির সাবেক সভাপতি নাদিরা রহমান অনুষ্ঠানে না আসতে পারার জন্যে দু:খ প্রকাশ করে জানিয়েছেন- তিনি প্রগ্রেসিভ ফোরাম, জর্জিয়ার সাথে আছেন এবং এর শুভ কামনা করেন।সভার অন্তিমে ইলা চন্দ উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান এবং ভবিষ্যতে আবারও সকলের সহযোগিতা কামনা করে সভা শেষ করেন।  সবশেষে ডিনার পরিবেশনের মধ্য দিয়ে সভা শেষ হয়। ফোরামের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়!  

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ