হাথুরুসিংহে–জনসনদের দেখানো পথে মিরাজ

October 2, 2018, 4:54 AM, Hits: 144

 হাথুরুসিংহে–জনসনদের দেখানো পথে মিরাজ

হ-বাংলা নিউজ : ‘মর্নিং শোজ দ্য ডে’—সকালেই বোঝা যায় দিনটা কেমন যাবে। যে কোনো কাজের সূচনাটা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। ভালো শুরু কাজকে এগিয়ে দেয় অনেকটা পথ। এশিয়া কাপে মরিয়া হয়ে এই ভালো শুরুর খোঁজ করেছিল বাংলাদেশ। ফাইনালে এসে বাংলাদেশ দারুণ একটা শুরু পেল এক ফাটকা খেলার সুবাদে। লিটন দাসের সঙ্গে ওপেনিংয়ে নামিয়ে দেওয়া হলো মেহেদী হাসান মিরাজকে। তামিম ইকবাল ছিলেন না, বাকি ওপেনাররা ব্যর্থ—মিরাজকে নামানোর ব্যাপারটা অনেকটাই যেন সবাই যখন ব্যর্থ তখন যা হওয়ার হোক। খারাপ হলে ক্ষতি নেই, ভালো হলে ভালো।

কিন্তু বাংলাদেশের এই ফাটকাই দারুণ সফল। কেবল সফলই নয়, রীতিমতো বাহবা পাওয়ার মতো। ১২০ রানের ওপেনিং জুটিতে দান মেরে দেন লিটন-মিরাজ। বোলিংয়ের সময় দেখা গেছে আরও অবাক কাণ্ড। বাংলাদেশের বোলিংয়ের শুরুতেও সেই মিরাজ!

ব্যাপারটা নজর কাড়ার মতোই। নব্বই দশকের ক্রিকেটপ্রেমীদের অনেকেরই তখন মনে পড়ছে নিল জনসনকে। ফ্লাওয়ার ভাইদের জিম্বাবুয়ের হয়ে ব্যাটিং-বোলিং ওপেন করতেন জনসন। আর মিরাজ এশিয়া কাপের ফাইনালে সেই কাজটি করলেন। ব্যাপারটি সাধারণ কিছু নয়। রীতিমতো রেকর্ড! ওয়ানডেতে বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ব্যাটিং আর বোলিং ওপেন করেছেন এই অফ স্পিনার। ওয়ানডে ক্রিকেটে এমন নজির দেখা গেছে মোট ১৭১বার।

মিরাজ এই ব্যতিক্রমী ‘ডাবল’দের তালিকায় সর্বশেষ সংযোজন। মোট ৪৫ জন ক্রিকেটার এই বিশেষ কৃতিত্ব দেখিয়েছেন। মিরাজ হলেন ৪৫তম। এর মধ্যে দেশের হয়ে একই ম্যাচে ব্যাটিং-বোলিং সবচেয়ে বেশিবার ওপেন করেছেন এক ভারতীয়—মনোজ প্রভাকর।

ওয়ানডেতে দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ম্যাচে ব্যাটিং-বোলিংয়ে ওপেন করার রেকর্ড মনোজ প্রভাকরের। 

প্রভাকর ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ নিষিদ্ধ হয়েছিলেন। ১৯৯৬ সালের বিশ্বকাপের গ্রুপ ম্যাচে সনৎ জয়াসুরিয়ার কাছে বেধড়ক পিটুনি খেয়ে ক্যারিয়ারের শেষ দেখেছিলেন তিনি। লঙ্কান ব্যাটসম্যানের মারকুটে ব্যাটিংয়ে নিজের মিডিয়াম পেস বাদ দিয়ে প্রভাকরের অফস্পিন করার সেই দৃশ্য ক্রিকেটপ্রেমীরা হয়তো কোনো দিনই ভুলতে পারবেন না। সাবেক এই ভারতীয় অলরাউন্ডার ওয়ানডেতে ভারতের হয়ে একই ম্যাচে ব্যাটিং-বোলিংয়ে ওপেন করেছেন ৪৫বার। টেস্টেও তাঁকে একই ভূমিকায় দেখা গেছে ২০বার। এই দুই সংস্করণেই রেকর্ডটির মালিক তিনি।

ওয়ানডেতে প্রভাকরের পরই আছেন জনসন। জিম্বাবুয়ের হয়ে একই ম্যাচে ২৫বার তিনি ব্যাটিং-বোলিং ওপেন করছেন। এরপর যুগ্মভাবে রয়েছেন মোহাম্মদ হাফিজ (১৩বার) ও তিলকারত্নে দিলশান (১৩বার)। বাংলাদেশের সাবেক কোচ চণ্ডিকা হাথুরুসিংহেও রয়েছেন এই তালিকায়। শ্রীলঙ্কার হয়ে দুটি ম্যাচে তাঁকে ব্যাটিং-বোলিং ওপেন করতে দেখা গেছে। প্রথমটি ১৯৯৩ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ঘরের মাঠের সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে। এর দুই বছর পর সিঙ্গার চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে ব্যাটিং-বোলিংয় ওপেন করেছিলেন সাবেক এই অলরাউন্ডার। এই দুই ম্যাচে হাথুরুসিংহের ব্যাটিং-বোলিং সেভাবে নজর কাড়তে পারেননি।

প্রশ্ন উঠতে পারে, দেশের হয়ে একই ম্যাচে ব্যাটিং-বোলিংয়ে ওপেন করা প্রথম ক্রিকেটারটি কে? তিনি পাকিস্তানে জন্ম নেওয়া অলরাউন্ডার ফ্রাসাত আলী। তিনি অবশ্য পাকিস্তানের হয়ে এই কীর্তি গড়েননি। ক্রিকেটের মানচিত্র থেকে বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া পূর্ব আফ্রিকা ক্রিকেট দলের হয়ে তিনি ব্যাটিং-বোলিংয়ে ওপেন করেছিলেন ১৯৭৫ বিশ্বকাপের ম্যাচে। সেই বিশ্বকাপে পূর্ব আফ্রিকার তিনটি ম্যাচেই ব্যাটিং-বোলিংয়ে ওপেন করেছিলেন ফ্রাসাত আলী। 

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ