কানাডার কোর্ট অব কুইন বেঞ্চে এক মিলিয়ন ডলারের মানহানীর মামলা করেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিক দেলোয়ার জাহিদ

October 22, 2018, 2:02 PM, Hits: 3351

কানাডার কোর্ট অব কুইন বেঞ্চে এক মিলিয়ন ডলারের মানহানীর মামলা করেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিক দেলোয়ার জাহিদ

হ বাংলা নিউজ,এডমন্টন, আলবার্টা, কানাডা থেকে : স্বেচ্চাসেবী সংগঠন বাংলাদেশ কানাডা এসোসিয়েশন অব এডমন্টন (বিসিএই) এর তিন কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম, ফিরোজ আলী, এইচ. এম. আশরাফ আলী সহ নির্বাচন কমিশনের প্রধান সমন্বয়ক মানস সৌমের বিরুদ্ধে কানাডার কোর্ট অব কুইন বেঞ্চ অব আলবার্টায় (মামলা# ১৮০৩ ২০৫৮৪) এক মিলিয়ন ডলারের সন্মানহানীর মামলা রুজু করেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিক দেলোয়ার জাহিদ.

মামলার বাদী ১৯৭৯ সালে বাংলাদেশ কানাডা এসোসিয়েশন অব এডমন্টন (বিসিএই) এর প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য সর্বজন শ্রদ্ধেয় ডা: সৈয়দ আমীর সভাপতিত্বে গত ২১ শে জানুয়ারী অনুষ্ঠিত এক সমযোতা সভায় সিদ্ধান্তে নির্বাচিত হল কমিটির সদস্য এবং এর পূর্বে ড. মানস সৌমের অধীন অনুষ্ঠিত  স্পেশাল প্রজেক্ট কমিটির নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত চেয়ারপার্সন।

গত ৮ই সেপ্টেম্বর একটি বিশেষ সাধারন সভায় বিনা এজেন্ডার এক আকস্মিক আলোচনায় বিবাদী শহীদুল ইসলামের প্রস্তাবে বাদীকে আজীবনের জন্য “পার্সন নন-গ্রেটা’ হিসাবে ঘোষণা করা হয়  এবং সংগঠনটির বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায়  দ্বিতীয়বারের মতো  নির্বাচিত সভাপতি মহ. লস্করকে আজীবনের জন্য সংগঠন থেকে বহিস্কার করা হয়। বর্নিত সভার কার্য্যবিবরনীতে মিথ্যা তথ্য সন্নিবেশ করে শহীদুল ইসলামের প্রস্তাবকে কেউ সেকেন্ড না করা, এবং কয়জন সন্মানিত সদস্যের চরম বিরোধীতা সত্বেও তা পাস হয়েছে বলে দেখানো হয়।

বিবাদীদের  ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তের কারনে এসোসিয়েশনের ২৪ ডিসেম্বর ২০১৭ এর সাধারন/বিশেষ সাধারন সভা সফল হয়নি, এ অসফল সভার কাজকে পূর্ণতা দিতে ২১শে ফেব্রুবয়ারী ২০১৮ আরেকটি বিশেষ সাধারন সভা অনুষ্ঠিত হয় এতেও বিবাদীদের ইপ্সিত সফলতা না আসায় গত ৩০শে সেপ্টেম্বর এক ম্যাগা শো এর আড়ালে আরো একটি বিশেষ সাধারন সভা দেখিয়ে কিছু অবৈধ ও বে-আইনী সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়। যা কানাডীয় মানবাধিকার ও আইনের পরিপন্থী।

বিবাদী  শহীদুল ইসলামের নেতৃত্বে ও তার দ্বারা তৈরীকৃত স্বৈরতান্ত্রিকভাবে একটি বাই-লজ পূনঃস্থাপন করা হয়, এবং তারই প্রস্তাবনায় ডি-ফেক্টো ওই বিশেষ সাধারন সভায়  আইনের পরিপন্থী এসকল কাজ করা হয়। এসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্যদের প্রনীত নীতিমালাকে পদদলিত করে একই সভায় সংবিধান পরিবর্তন ও পূনঃস্থাপন করে সম্পূর্ণ নজির এবং এজেন্ডা বিহীনভাবে হঠকারী সিদ্ধান্ত নেয়ায় কমিউনিটিতে তীব্র উত্তেজনা ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। জানা যায়, আরো ক জন নিবেদিত প্রান সাবেক সভাপতি ও কর্মকর্তার মাথার উপর এ বহিস্কার প্রক্রিয়া ঝুলছে।

কোর্ট অব কুইন বেঞ্চ অব আলবার্টায় মামলা রুজু হওয়ায় সংগঠনের বিতর্কিত নির্বাচন ও কর্মকান্ড বর্তমানে আদালতের বিচারাধীন বিষয়  

 
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ