স্বামীর ঝুলন্ত লাশ, স্ত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ

March 21, 2019, 12:19 PM, Hits: 201

স্বামীর ঝুলন্ত লাশ, স্ত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ

হ-বাংলা নিউজ : চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলায় স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যার পর স্বামী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গত বুধবার দিবাগত রাতে উপজেলার ভাংবাড়িয়া ইউনিয়নের বড় বোয়ালিয়া আদর্শ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার পুলিশ দুজনের লাশ চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। ওই ব্যক্তির নাম ইবাদত আলী জোয়ার্দ্দার এবং তাঁর স্ত্রী হলেন জাহানারা বেগম।

স্থানীয় ব্যক্তিদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ইবাদত আলী জোয়ার্দ্দার মানসিক প্রতিবন্ধী (পাগল) ছিলেন। প্রায়ই তিনি পাগলামি করতেন। স্ত্রীকে খুনের পর তিনি আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন। সাংসারিক অভাব-অনটনের কারণে পারিবারিক কলহের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে।

ওই দম্পতির ছেলে আশরাফুল ইসলাম বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার আলমডাঙ্গা থানায় হত্যাকাণ্ড ও অপমৃত্যুর পৃথক দুটি মামলা করেছেন। মামলার এজাহারে তিনি উল্লেখ করেন, তাঁর বাবা ইবাদত আলী জোয়ার্দ্দার মানসিক প্রতিবন্ধী ছিলেন। তাঁর মা জাহানারা বেগম অন্যের বাড়িতে কাজ করে সংসার চালাতেন। বাবা ছোটখাটো বিষয় নিয়ে মা এবং তাঁর (আশরাফুল) সঙ্গে প্রায়ই ঝগড়া করতেন। বুধবার বিকেলে বাদাম বিক্রি করতে তিনি মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলার মানিকদিহি গ্রামে গিয়েছিলেন। সেখানে থাকাকালে রাত নয়টার দিকে প্রতিবেশী আবদুল জব্বার তাঁকে ফোন করে বলেন, তাঁর বাবা তাঁর মাকে ঘরের ভেতরে বঁটি দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করেছেন এবং পরে একই ঘরের বাঁশের আড়ার সঙ্গে রশি দিয়ে ঝুলে তিনি আত্মহত্যা করেছেন।

বৃহস্পতিবার আশরাফুল ইসলাম বলেন, প্রতিবেশীদের কাছ থেকে তিনি জেনেছেন, বুধবার রাতে তাঁর বাবা-মায়ের মধ্যে ঝগড়া হয়। এ ঘটনার জেরে বাবা বঁটি দিয়ে তাঁর মাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করেন। পরে নিজে রশিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেছেন।

আলমডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান বলেন, হত্যা ও আত্মহত্যার ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। লাশ দুটির ময়নাতদন্তসহ সব আইনি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। 

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ