YouTube - থেকে আয় করুন ইচ্ছামতো

April 29, 2019, 12:17 PM, Hits: 258

YouTube - থেকে আয় করুন ইচ্ছামতো

এম. জুয়েল, হ-বাংলা নিউজ : এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে YouTube সমস্ত বিশ্বের একটি জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং সাইট। এটার জনপ্রিয়তা এটোতা বেশী যা কল্পনাও করা যায় না। এমন অনেক ভিডিও দেখা যায় যা কিনা আপলোড হওয়ার সাথে সাথে মিলিয়নের উপরে ভিউ হয়ে যায় এবং এ থেকে কনটেন্ট তৈরীকারি  হাজার হাজার ডলার আয় করছে। এমনকি বাংলাদেশে বসে অনেক ছেলে বৎসরে ৫০ হাজার ডলার বা তাঁর বেশীও আয় করছে।  অনেকে এসব কনটেন্ট তৈরীর জন্য আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতিও পেয়েছে।  এসব কথা সকলের জানা। তব্ওু  তথ্যমূলক লেখার কারন প্রতিনিয়তই আমি কোথাও না কোথাও থেকে প্রশ্ন পাই কিভাবে YouTube  চ্যানেল চালু করা যায়, কখন সেখান থেকে টাকা রোজগার শুরু হবে ইত্যাদি।

আমার লেখাটা তাঁদেও জন্য যারা এখনো চ্যানেল শুরু করেন নাই বা যারা করেছেন এখনো পর্যন্ত আয়ের দোর গোড়ায় পৌছতে পারেন নাই তাঁদেও জন্য। YouTube  চ্যানেল চালু করার জন্য আপনার Gmail একাউন্ট যথেষ্ট। জিমেইল একাউন্ট দিয়ে শুধু চ্যানেল সেট আপ করতে হবে। নিচে চ্যানেল সেট আপ এর বর্ননা দেয়া হলো:

১) www.youtube.com যেয়ে আপনার জিমেইল দিয়ে লগইন করবেন।

২) তারপর  মাই চানেলে যাবেন।

নিচের ছবির সাথে মিল রেখে চ্যানেল আর্ট, প্রফাইল ছবি এবং আপনার একাউন্ট ভেরিফাই করবেন ফোন নম্বর দিয়ে। 

সেট আপ সম্পূর্ন হয়ে গেলে ভিডিও আপলোড করা শুরু করুন। সোশ্যাল মিডিয়া, ইমেইল এর মাধ্যমে আপনার চ্যানেল এর প্রচার শুরু করুন। আপনার চ্যানেলে ১০০ সাবস্ক্রাইবার হলে আপনি কাস্টম ডোমেইন তৈরী করতে পারবেন। মনে রাখবেন মান সম্মত কাস্টম ডোমেইন নেম আপনার চ্যানেল ও ভিডিও প্রচারে গুরুত্বপূর্ন ভ’মিকা রাখবে। আপনি যেকোন বিষয়ের উপরেই ভিডিও তৈরী এবং আপলোড করতে পারবেন। মনে রাখবেন আপনি যে বিষয়ে পারদর্শী সেই বিষয় নিয়েই চেষ্টা করবেন অবশ্যই সফলতা পাবেন।

মনিটাইজেশনের জন্য আবেদন এবং আয় শুরু: 

এখন আয় শুরু করা আগের মতো সহজ নয়। আয় শুরুর জন্য আবেদন করতে আপনাকে দুটি শর্ত অবশ্যই পূরন করতে হবে  ১) আপনার চ্যানেলে ১০০০ সাবস্ক্রাইবার হতে হবে এবং ২) ৪০০০ মিনিট ওয়াচ টাইম হতে হবে গত ১২ মাসের মধ্যে।

এ ছাড়া আপনার একাউন্ট এ্যাডসেন্সের সাথে সংযুক্ত হতে হবে। এ সব শর্ত পূরন হবার পর আপনার ভিডিওতে এ্যাড আসা শুরু হবে। যতো বেশী মানুষ এটাকে দেখবে আপনার আয় ততো বাড়বে। দর্শক বাড়াতে নিয়মিত ভিডিও আপলোডের বিকল্প নাই। 

চ্যানেল চালু করার পর থেকে যে কাজগুলো আপনি অবশ্যই করবেন না: 

* কপি রাইট করা যাবে না অর্থাৎ কোনভাবেই অন্যের ভিডিও আপলোড করা যাবে না। ব্যতিক্রম আছে যে সমস্ত ভিডিও Creative Commons License  এর আ্ওতায় সেগুলো পুন:ব্যাবহার করা যাবে। 

Community Guideline  লংঘন করা যাবে না।

YouTube  এর সাহায্য পেজে এসব সংক্রান্ত নীতিমালা দেখে নিবেন।

YouTube  এর ভিডিও তৈরী এবং আপলোডের সময় যে জিনিসগুলো আপনি অবশ্যই খেয়াল রাখবেন তা হলো ভিডিওর ভালো টাইটেল হতে হবে, থা¤œনেইল আকর্ষনীয় হতে হবে, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন হতে হবে। এসব ভালো হলে সহজেই দর্শকরা আপনার ভিডিও খুজে পাবে, দেখবে এবং আপনার আয় বাড়তে থাকবে। 

 

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ