নিউইয়র্কে ‘মুজিববর্ষ’ উদযাপন সহ ৪টি সিদ্ধান্ত গ্রহণ যুক্তরাষ্ট্র আ. লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা নিয়ে আবার বিভক্তি

May 8, 2019, 11:37 AM, Hits: 357

নিউইয়র্কে ‘মুজিববর্ষ’ উদযাপন সহ ৪টি সিদ্ধান্ত গ্রহণ যুক্তরাষ্ট্র আ. লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা নিয়ে আবার বিভক্তি

সালাহউদ্দিন আহমেদ, হ-বাংলা নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে :  যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা নিয়ে আবার বিভক্তিতে জড়িয়ে পড়েছেন প্রবাসের দলীয় নেতা-কর্মীরা। ‘নিরাপত্তা রক্ষী’ ঘেরা এই সভায় বর্তমান কমিটির মেয়াদ ও সাংগঠনিক বিষয়াদী নিয়ে বাক-বিতন্ডা হয়েছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান নেতৃত্বাধীন সংশ্লিস্টদের দাবী দলের সভা সফল এবং আগামী বছর ব্যাপক আয়োজনে ‘মুজিববর্ষ’ উদযাপন সহ কতিপয় গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়ে সভা মুলতবি করা হয়েছে। অপরদিকে বিরোধী গ্রæপের নেতা-কর্মীরা সভার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। এনিয়ে দলীয় নেতা-কর্মীদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়াও লক্ষ্য করা গেছে। 

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক প্রকৌশলী মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী’র নামে প্রেরীতে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে: গত ২৮ এপ্রিল রোববার  যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির এক সভা জ্যাকসন হাইটস্থ পালকী পার্টি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব ও পরিচালনা করেন সংগঠনের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান। সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও মোনাজাতের মধ্য দিয়ে সভা শুরু হয়। মাওলানা সাইফুল ইসলাম সিদ্দিকী দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন। 

কার্যকরী কমিটির সভার আলোচ্যসূচীর উপর বিস্তারিত আলোচনা এবং সর্বসম্মতভাবে নি¤œলিখিত সিদ্ধান্তবলী গৃহীত হয়:

সিদ্ধান্ত-১: ‘জাতির পিতা’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ ব্যাপকভাবে উদযাপনের নিমিত্তে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সকল অঙ্গ, সহযোগী সংগঠন, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সকল সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবি সংগঠন এবং মূলধারার রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও বিশিষ্টজনদের সমন্বয়ে আলাদাভাবে আরেকটি সভা করে বড় আকারের একটি উদযাপন কমিটি গঠন করা হবে বলে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। 

সিদ্ধান্ত-২: আগামী সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগদানের সময় গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার যুক্তরাষ্ট্র আগমনের সময় একটি সার্বজনীন গণসংবর্ধনা প্রদানের জন্যে রমজানের পর অনুষ্ঠিতব্য কার্য্যকরী কমিটির সভায় আলোচনা সাপেক্ষে একটি সংবর্ধনা কমিটি গঠনের প্রস্তাব গৃহীত হয়। 

সিদ্ধান্ত-৩: যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্টেটে সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠনের জন্যে আগামী ৩০ জুলাই এর মধ্যে সম্মেলন প্রস্তুতি ও কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ সাপেক্ষে দিন-তারিখ ঠিক করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সিদ্ধান্ত-৪: যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন ও নতুন লোক নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শেষে পবিত্র রমজানের পরবর্তী সপ্তাহে সুবিধাজনক সময়ে আহুত সভায় এ ব্যাপারে সিন্ধান্ত গৃহীত হবে বলে সভাপতি এই সভার মুলতবি ঘোষনা করেন।

দুপুর থেকে শুরু হওয়া মিটিং বিকেল প্রায় ৫টা পর্যন্ত চলে। সভায় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের অন্যতম সহ-সভাপতি আকতার হোসেন, সৈয়দ বসারত আলী, সামছুদ্দিন আজাদ, লূৎফুল করিম, ডা. মোঃ আলী মানিক, মাহবুবুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক নিজাম চৌধুরী, আব্দুস সামাদ আজাদ ও আইরীন পারভীন, আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট শাহ মোঃ বখতিয়ার আলী, কৃষি ও সমবায় সম্পাদক আশরাফুজ্জামান, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন, দফতর সম্পাদক প্রকৌশলী মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক দুলাল মিয়া (হাজী এনাম), মহিলা সম্পাদক শিরিন আক্তার দীবা, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মুজাহিদুল ইসলাম, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক মাহবুবুর রহমান টুকু, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক এম.এ. করিম জাহাঙ্গীর, শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক ফরিদ আলম, সাংস্কৃতিক সম্পাদক শহীদ হাসান, স্বাস্থ্য ও জন্যসংখ্যা সম্পাদক ডা. আব্দুল বাতেন, সাংগঠনিক সম্পাদক  মহিউদ্দিন দেওয়ান, আব্দুল হাসিব মামুন, আব্দুল রহিম বাদশাহ ও চন্দন দত্ত, জনসংযোগ সম্পাদক কাজী কায়েস আহমেদ, প্রবাসী কল্যাণ সম্পাদক সোলায়মান আলী, উপ দপ্তর সম্পাদক আব্দুল মালেক, কোষাধ্যক্ষ আবুল মনসুর খাঁন, কার্য্যকরী সদস্য শাহানারা রহমান, ডেনী চৌধুরী, সোহরাব সরকার, মুজিবুল মাওলা, আজিজুর রহমান সাবু, হাজী নিজাম উদ্দিন, রেজাউল করিম চৌধুরী, কায়কোবাদ খাঁন, খোরশেদ খন্দকার, আব্দুল হামিদ, আলাউদ্দিন জাহাঙ্গীর, শরীফ কামরুল আলম হীরা, নূরুল আবসার সেন্টু, সামসুল আবেদীন, আলী হোসেন গজনবী, আমিনুল ইসলাম কলিন্স, আতাউল গণি আসাদ, ইলিয়ার রহমান, কাজী আজিজুল হক খোকন, জুয়েল আহমেদ, হোসেন সোহেল রানা, কামাল উদ্দিন, সূজন আহমেদ সাজু, গাজী মোঃ আলী লিটু, আসাফ মাসুক, হাজী আব্দুস শহিদ দুদু, এম আনোয়ার, নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামী লীগের সভাপতি মুজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক শাহীন আজমল প্রমুখ। 

অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভা প্রসঙ্গে দলের কতিপয় নেতা পৃথক বিবৃতিতে বলেছেন: গত ২৮ এপ্রিল অনুষ্ঠিত যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভা সংগঠনের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় এবং সভার শুরুতেই সিকিউরিটি দিয়ে আইডি ও নামের তালিকা দেখে প্রবেশাধিকার বাধাগ্রস্থ করা হয় এবং সেখানে ধাক্কা-ধাক্কি, হুমকী-পাল্টা হুমকী প্রদর্শনের মাধ্যমে কমিটির নেতৃবৃন্দ আসন গ্রহণ করে। আলোচনার শুরুতেই সভার এজেন্ডাসমূহ ও মিটিং ডাকার বৈধতা নিয়ে গঠনতান্ত্রিক ব্যাখ্যা দাবী করে সভাপতির দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়। বিগত দুটি কার্যকরী সভাও মুলতবী করা হয়েছে। এই সভা কেন মূলতবী সভার কন্টিনিউশন সভা হিসেবে গণ্য করা হবে না এবং কেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠনের এজেন্ডা নেই তা জানতে চাওয়া হয়। বর্তমান কমিটির মেয়াদ ২ টার্ম পার হয়েও ৭ বছর ৮ মাসে উপনিত হওয়ার পর কেন এবং কোন ক্ষমতাবলে কমিটির শূন্যপদ/ নতুন পদ পূরণের এজেন্ডা সংযোজিত হয়েছে, বিভিন্ন বক্তা সভাপতির নিকট ব্যাখ্যা দাবী করেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুন: পুন: নির্দেশনা থাকা সত্বেও ক্ষমতা আকড়ে রাখার এই হীন প্রচেষ্টা বন্ধের দাবী জানানো হয়।

সভাটি দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত মুহুমুহু উত্তেজনা, বাকবিতন্ডা, আক্রমন-পাল্টা আক্রমনের মধ্য দিয়ে কোন সিদ্ধান্ত ছাড়াই সভাপতি সভা মূলতবী ঘোষনা করেন। রমজান ও ঈদের পর পূনরায় সভা আহŸান করে ৯০ শতাংশ সদস্যের দাবী আগামী সেপ্টেম্বর নেত্রীর উপস্থিতিতে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি করা। ৮ বছর পরে এসে, কমিটিতে পদ-পদবীর প্রলোভন দেখিয়ে ও অর্থের বিনিময়ে কমিটিতে অন্তর্ভূক্তি এবং পদোন্নতি মেনে নেয়া হবে না বলে একাধিক বক্তা কঠোর হুশিয়ারী উচ্চারণ করেন। গত এক বছরে পর পর তিনটি কার্যকরী কমিটির সভা কোন সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হওয়ায় অধিকাংশ নেতা-কর্মী হতাশাও ব্যক্ত করেন।

বিবৃতিদাতা নেতৃবৃন্দ হলেন: সহ সভাপতি সৈয়দ বশারত আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক চন্দন দত্ত ও আব্দুর রহিম বাদশা, আইন সম্পাদক এ্যাডভোকেট শাহ মো: বকতিয়ার আলী, দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, জনসংযোগ সম্পাদক কাজী কয়েস আহমেদ, শিক্ষা সম্পাদক এম,এ,করিম জাহাঙ্গীর, মানবাধিকার সম্পাদক মিজবাহ আহমেদ, শিল্প ও বানিজ্য সম্পাদক ফরিদ আলম, কার্যকরী সদস্য যথাক্রমে শরীফ কামরুল আলম হীরা, কায়কোবাদ খাঁন, আসাফ মাসুক, গাজী মোহাম্মদ আলী লিটু, ইলিয়ার রহমান, হোসেন রানা, কামাল আহমেদ, সাজু আহমেদ, আব্দুস শহিদ দুদু প্রমুখ। 

প্রসঙ্গত, সংগঠনের দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী উপরে উল্লিখিত বিবৃতিদাতাদের একজন হলেও তার প্রেরিত সভার আনুষ্ঠানিক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সভায় বাকবিতন্ডার কোন উল্লেখ নেই এবং ৪টি বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে। 

প্রসঙ্গত: আরো উল্লেখ্য যে, বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ কন্স্যুলেটের পক্ষ থেকে নিউইয়র্ক সিটির সেন্ট্রাল পার্কে বড় ধরনের একটি অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি চলছে। এছাড়াও বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষেবিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকেও পৃথক পৃথক উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

 
সর্বশেষ সংবাদ
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ