নিউইয়র্কে শহীদ জিয়ার শাহাদৎ বার্ষিকীতে খালেদার মুক্তি দাবী | ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মধ্যদিয়ে ফ্যাসিবাদী আ. লীগ সরকারের পতন ঘটাতে হবে : খোকা

June 8, 2019, 12:33 PM, Hits: 69

নিউইয়র্কে শহীদ জিয়ার শাহাদৎ বার্ষিকীতে খালেদার মুক্তি দাবী | ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মধ্যদিয়ে ফ্যাসিবাদী আ. লীগ সরকারের পতন ঘটাতে হবে : খোকা

সালাহউদ্দিন আহমেদ, হ-বাংলা নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে : সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি’র চেয়ারপার্স বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, দলীয় নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও হয়নারী বন্ধ সহ নানা আয়োজনে নিউইয়র্কে শহীদ রাষ্ট্রপতি, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবর্তক ও বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান (বীর উত্তম)-এর ৩৮তম শাহাদৎ বার্ষির্কী পালিত হয়েছে। এই উপলক্ষ্যে গত ৩০ মে জ্যাকসন হাইটস এলাকাবাসী ব্যতিক্রমী কর্মসূচী গ্রহণ করে। অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি’র ব্যানারে পৃথক পৃথক কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়। জ্যাকসন হাইটসের পালকি পার্টি সেন্টারে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে দলের বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী অংশ নেন। শহীদ জিয়াউর রহমানের শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে জ্যাকসন হাইটসের ডাইভারসিটি প্লাজায়ও পৃথক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। 

জ্যাকসন হাইটসের কর্মসূচী: শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান (বীর উত্তম)-এর শাহাদৎ বার্ষির্কী পালন উপলক্ষ্যে গত ৩০ মে বৃহস্পতিবার বিকেলে নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস এলাকাবাসীর উদ্যোগে সর্বদলীয়ভাবে দোয়া ও ইফতার বিতরণ কর্মসূচী পালিত হয়েছে। এতে দুই হাজার প্যাকেট বিরিয়ানীর সাথে জুস ও পানির বোতল রোজাদার সহ অন্যান্য ধর্মাবলম্বী নর-নারীদের মাঝে বিতরণ করা হয়। বাংলাদেশের জাতীয় নেতাদের দল-মতের উর্ধ্বে উঠে সম্মান জানানোর উদ্যোগের অংশ হিসেবে জিয়াউর রহমানের শাহাদৎ বার্ষিকী পালন করা হয়। আয়োজক কমিটির আহŸায়ক দেওয়ান মনির, সাকিল মিয়া, মোহাম্মদ আলম নমি, আবুল কাশেম প্রমুখের সার্বিক সহযোগিতায় এই কর্মসূচী পালিত হয়। 

অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি’র উল্লেখযোগ্য নেতা-কর্মীর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধা মশিউর রহমান, জিল্লুর রহমান জিল্লু, গিয়াস আহমেদ, অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন, শরাফত হোসেন বাবু, মিজানুর রহমান ভ‚ইয়া মিলন্টন, জসিম ভ‚ইয়া, বিএনপি নেতা পারভেজ সাজ্জাদ, নিউজার্সী বিএনপি’র সভাপতি আলহাজ জুবায়ের আলী, যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী, আরাফাত রহমান কোকো স্মৃতি সংসদ, যুক্তরাষ্ট্র-এর সভাপতি শাহাদৎ হোসেন রাজু সহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন। 

সংশ্লিস্টরা জানান, জ্যাকসন হাইটসের দেশী-বিদেশী ব্যবসায়ী ছাড়াও কমিউনিটি নেতৃবৃন্দের অনুদানে উল্লেখিত ইফতার সামগ্রীর ব্যয় বহন করা হয়। দলমত-নির্বিশেষে সবাই অর্থ অনুদান দেন।                                                                                                                                                                                             

পালকি পার্টি সেন্টার: বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের শাহাদত বার্ষিকী পালন করেছেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি, অঙ্গ এবং সহযোগি সংগঠনের আয়োজনে বৃহস্পতিবার জ্যাকসন হাইটসের পালকি পার্টি হলে এ উপলক্ষে দোয়া মাহফিল ও ইফতারের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন অভিভক্ত ঢাকার সাবেক মেয়র ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, সাবেক চীফ হুইপ জয়নাল আবেদিন ফারুক, কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা ও ডাকসুর সাবেক এজিএস নাজিম উদ্দিন আলম। বিপুল সংখক প্রবাসী বাংলাদেশীর উপস্থিতিতে এতে মোনাজাত পরিচালানা করেন মাওলানা আনসারুল করিম। 

অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ডা. মজিবুর রহমান, সাবেক সভাপতি আবদুল লতিফ স¤্রাট, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান জিল্লু, সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি গিয়াস আহমেদ, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহবায়ক মিজানুর রহমান ভূইয়া মিল্টন, সাবেক কোষাধ্যক্ষ জসিমউদ্দিন ভূইয়া, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক কাজী সাখাওয়াত হোসেন আজম, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক কামাল পাশা বাবুল, যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদ আহমদ, মোশারফ সবুজ, পারভেজ সাজ্জাদ, মার্শাল মুরাদ, মুশফিকুল ফজল আনসারী, আতিকুল ইসলাম আহাদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম। 

অনুষ্ঠানে সাদেক হোসেন খোকা বলেন, মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর হাত ধরেই আমি রাজনীতিতে এসেছিলাম। পরবর্তীতে যে সৎ মানুষটির সান্নিধ্যে এসে রাজনীতি করেছি তার নাম শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান। এরকম এক মহান নেতার সাথে রাজনীতি করতে পেরে আমি নিজেকে ধন্য মনে করেছি। তিনি বলেন, মওলানা ভাসানীর নেতৃত্বে যৌবনে রাজনীতির হাতেখড়ি, শহীদ জিয়ার ঘোষণায় উদ্বীপ্ত হয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও দেশ গঠনে ভূমিকা রাখা এবং দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে পথচলা আমার জীবনে পূর্নতা এনে দিয়েছে। আমি হতাশাবাদীদের অর্ন্তভূক্ত নই। শারীরিক এই অসুস্থতার মধ্যেও আমি বিশ্বাস করি গনতন্ত্র পুন:উদ্ধারের এই সংগ্রামে আমরা বিজয়ী হবো। 

শহীদ জিয়ার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার সরকার বাংলাদেশে যা করছে তাতে আওয়ামী লীগ আর বেশি দিন ক্ষমতায় নেই। জুলম-নির্যাতন, গুম-খুন, মানবাধিককার লঙ্ঘন আর মানুষের অধিকার কেড়ে নিয়ে তারা ক্ষমতা আটকে রাখতে পারবে না। জনগণ একদিন এই সরকারের বিরুদ্ধে সঠিক জবাব দেবে। 

সাদেক হোসেন খোকা বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান ঘোষক ও বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা শহীদ জিয়া যে রাজনীতি ও আর্দশ আমাদের দিয়ে গেছেন, তা বিলীন হবার নয় । সংকট, ঘাত-প্রতিঘাত মোকাবিলা করেই আমাদের সামনে অগ্রসর হতে হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে ফ্যাসিবাদী শাসন জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসেছে। এই অপশাসন থেকে মুক্ত হতে প্রয়োজন ইস্পাত কঠিন ঐক্য। এখন বিভেদ বিভাজনের সময় নয়। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মধ্যদিয়ে এই ফ্যাসিবাদী আওয়ামী লীগ সরকারের পতন ঘটাতে হবে। যারা ভাবছেন বিএনপি নিঃশেষ হয়ে গেছে, তারা বোকার র্স্বগে বাস করছে। দেশের মাটি ও মানুষের সঙ্গে যে রাজনীতি একাকার হয়ে মিশে আছে তা নিঃশেষ হতে পারে না। 

ডাইভারসিটি প্লাজা: এদিকে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে ৩০ মে বৃহস্পতিবার বর্ষণমুখর বিকালে জ্যাকসন হাইটসের ডাইভারসিটি প্লাজায় যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি ও যুবদলের ব্যানারে আরেকটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশ থেকে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবী জানানো হয়। সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি শরাফত হোসেন বাবু। এতে সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আকতার হোসেন বাদল এবং পরিচালনা করেন নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান সাঈদ। 

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ১৯৮১ সালের ৩০ মে যেসব ষড়যন্ত্রকারী জিয়াকে হত্যা করেছে তারই ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিতকায় বাংলাদেশের তিনবারের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজনীতিক বেগম জিয়াকে কারাগারে আটক রাখা হয়েছে। বক্তারা বলেন, বিএনপির বিরুদ্ধে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ষড়যন্ত্র চলছে। ঐক্যবদ্ধভাবে এই ষড়যন্ত্র রুখতে হবে। তারা বলেন, জিয়াকে মুক্ত করার আন্দোলনের মধ্য দিয়েই বাংলাদেশে গণতন্ত্র পুনরুজ্জীবিত হবে। এজন্য সবাইকে প্রস্তুত থাকতে হবে।

সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন অলিউল্লাহ মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, মাজহারুল ইসলাম জনি, কাওসার আহমেদ, রুহুল আমিন নাসির, দারাদ আহমেদ, আশরাফ হোসেন প্রমুখ। সমাবেশে খালেদা জিয়ার আরোগ্য কামনায় মোনাজাতে পরিচালনা করেন অলিউল্লাহ মোহাম্মদ আতিকুর রহমান। সমাবেশে জিয়াউর রহমানের জীবনী নিয়ে একটি প্রামাণ্যচিত্র দেখানো হয়।

 

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ