নিউইয়র্কে বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের নব নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মন্টুর সাথে প্রবাসীদের মতবিনিময় : অ্যাথলেটিক্সের অতীত ঐতিহ্য ফিরে আসবেই

October 15, 2019, 10:10 AM, Hits: 147

নিউইয়র্কে বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের নব নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মন্টুর সাথে প্রবাসীদের মতবিনিময় : অ্যাথলেটিক্সের অতীত ঐতিহ্য ফিরে আসবেই

সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, হ-বাংলা নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে : নিউইয়র্কে প্রবাসীদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সহকারী এটর্নী জেনারেল এডভোকেট আব্দুর রকিব মন্টু বলেছেন, অ্যাথলেটিক্সের অতীত ঐতিহ্য ফিরে আসবেই। অ্যাথলেটিক্সকে এগিয়ে নেয়ার সম্ভাব্য সকল ধরণের উদ্যোগই নেয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, আশা করি সোনালী অতীত ফিরে পাবে অ্যাথলেটিক্স। আমরা দেশের সেরা খেলোয়ারদের পাশাপশি প্রবাসী খেলোয়ারদেরও মূল্যায়ন করতে চাই। যাতে দেশের সাথে প্রবাসের সেতু বন্ধন রচিত হয়।

গত ১২ অক্টোবর শনিবার সন্ধ্যায় সিটির জ্যাকসন হাইটসের খাবার বাড়ি পার্টি হলে প্রবাসের সাবেক ক্রীড়াবিদ, ক্রীড়া সংগঠক ও বাংলাদেশী কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ এ মতবিনিময় অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের কার্যকরী পরিষদের সদস্য আব্দুর রকিব মন্টুর যুক্তরাষ্ট্র সফর উপলক্ষে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

সাবেক জাতীয় খেলোয়ার অলিম্পিয়ান সাইদুর রহমান ডনের সভাপতিত্বে এবং বাংলাদেশ স্পোর্টস কাউন্সিল অব আমেরিকা’র সভাপতি মহিউদ্দিন দেওয়ানের পরিচালনায় এ অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ স্পোর্টস ফাউন্ডেশন অব নর্থ আমেরিকার সভাপতি ও স্পোর্টস কাউন্সিলের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা সাবেক জাতীয় খেলোয়ার মোস্তফা হোসেন মুকুল, সাঈদ উর রব, শাহান উদ্দিন চৌধুরী, বিমল চন্দ্র তরফদার, সৈয়দ এনায়েত আলী, এস এম ফেরদৌস, বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী, জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা ইনকের সভাপতি বদরুল এইচ খান, মুক্তিযোদ্ধা তোফায়েল আহমেদ চৌধুরী, রাজনীতিক আব্দুন নূর বড় ভূইয়া, সিরাজ উদ্দিন আহমেদ সোহাগ, বিমল তরফদার, ওয়াহিদ কাজী এলিন, জুয়েল আহমেদ, কাজী তোফায়েল ইসলাম, নূরে আলম জিকু প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে সাবেক ক্রীড়াবীদ, রাজনীতিক, ব্যবসায়ী, কবি, সাহিত্যিক, সাংস্কৃতিক কর্মী, সাংবাদিক সহ নানা শ্রেণী পেশার বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশী উপস্থিত ছিলেন।

সভায় সকল শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। অনুষ্ঠানে সাবেক কৃতি খেলোয়ার ও সংগঠক এডভোকেট আব্দুর রকিব মন্টুকে আয়োজকসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান হয়। ক্রীড়া ক্ষেত্রে অবদানের জন্য এডভোকেট আব্দুর রকিব মন্টুকে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। 

সভায় বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনের সংক্ষিপ্ত বিবরণ তুলে ধরে অ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব মন্টু বলেন, মাদক-জঙ্গী মুক্ত বাংলাদেশ গড়তে খেলা-ধূলার বিকল্প নেই। খেলা-ধূলা বিমুখ অলস হতাশাগ্রস্ত যুব সমাজ মাদকাসক্ত ও সন্ত্রাস-জঙ্গীবাদে জড়িয়ে পড়তে পারে। তাই মাদক-জঙ্গী মুক্ত বাংলাদেশ গড়তে খেলা বান্ধব পরিবেশ তৈরীতে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। এলক্ষে যুগান্তকারী পদক্ষেপও নেয়া হয়েছে।

আব্দুর রকিব মন্টু বলেন, অ্যাথলেটিকস এগিয়ে যাচ্ছে। তৈরি হচ্ছে কৃতি খেলোয়াড়। দেশে ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে দ্রুত জায়গা করে নিচ্ছে অ্যাথলেটিকস। তিনি বলেন, এক সময় অ্যাথলেটিকস বিশ্বে বাংলাদেশকে পরিচিতি দিয়েছে। কিন্তু ধীরে ধীরে বাংলাদেশ সে অবস্থান থেকে ছিটকে পড়ে। অ্যাথলেটিকসের অতীত ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে প্রাণান্ত চেষ্টা চালানো হচ্ছে। অ্যাথলেটিক্সের সার্বিক উন্নয়নে ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, অ্যাথলেটিক্সে আমুল পরিবর্তন আনতে কাজ করছি। ইতোমধ্যে ইতিবাচক পরিবর্তন আসতে শুরু করেছে। এজন্য সবার পরামর্শ চাই। সবার প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে চাই।

আব্দুর রকিব মন্টু বলেন, অ্যাথলেটিক্সককে এগিয়ে নিতে না পারলে দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়াব। চেয়ার আঁকড়ে রাখবো না। তিনি বলেন, দেশে অ্যাথলেটস না থাকলে অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন অর্থহীন। তাই খেলোয়ার তৈরীর বিকল্প নেই। তিনি বলেন, দেশের ক্রীড়াঙ্গনকে রাজনীতিমুক্ত রাখছে সরকার। খেলোয়ারকে মূল্যায়ন করা হচ্ছে তার মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে। অন্য কোন পরিচয়ে নয়।

তার সম্মানে এ অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য আয়োজকদের আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে অ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব মন্টু বলেন, এর মাধ্যমে দেশ ও সমাজের প্রতি আমার দায়িত্ববোধ আরো বেড়ে গেল। তিনি বলেন, নতুন প্রজন্মের প্রতিভা অন্বেষনসহ বেশ কিছু ক্রীড়াবান্ধব কর্মসূচি নেয়া হয়েছে। বর্তমান ক্রীড়া প্রতি মন্ত্রী ১০ বছর সংসদে ক্রীড়া মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। সে অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সম্পূর্ণ ক্রীড়াঙ্গণকে তিনি অনেক দূর এগিয়ে নিতে সক্ষম হবেন এ প্রত্যাশা সকলের। তিনি বলেন, বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেলেও আরো উন্নতির জন্য শুধু সরকার নয় প্রবাসী সহ বেসরকারী সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানকেও এগিয়ে আসতে হবে। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় অ্যাথলেটিক্সকে সাফল্যের সর্বোচ্চ চূড়ায় নিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, আব্দুর রকিব মন্টু জাতীয় পর্যায়ের সাবেক কৃতী অ্যাথলেট। বাংলাদেশে মন্টুসহ তার পরিবারের সবাই জাতীয় পর্যায়ের সাবেক কৃতী অ্যাথলেট। সিলেটে মন্টুদের পরিবার অ্যাথলেট পরিবার হিসেবে পরিচিত। সকলেরই ক্রীড়া ক্ষেত্রে রয়েছে অনন্য সাফল্যের নজির। যোগ্যতার ভিত্তিতেই বহুমুখি প্রতিভার অধিকারী অ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব মন্টুকে ক্রীড়াঙ্গনের এ গুরু দায়িত্ব পেয়েছেন। তার যোগ্য নেতৃত্বে সোনালী অতীত ফিরে পাবে অ্যাথলেটে। সভায় বক্তারা আব্দুর রকিব মন্টুকে শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রবাস থেকে খেলোয়ারদের দেশের ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণের সুযোগ দেয়ারও আহবান জানান। 

বক্তারা ভবিষ্যতে সিলেটের কৃতি সন্তান আব্দুর রকিব মন্টুকে আরো বড় দায়িত্বে দেখার প্রত্যাশা ব্যক্ত করে তার সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক পদে সরাসরি নির্বাচিত হওয়ার পর এডভোকেট আব্দুর রকিব মন্টু গত ২ অক্টেবর বুধবার ব্যক্তিগত সফরে নিউইয়র্ক আসেন। বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের কার্যকরী পরিষদের সদস্য ও সাবেক সহকারী এটর্নী জেনারেল এডভোকেট আব্দুর রকিব মন্টু এর আগেও যুক্তরাষ্ট্র সফর কালে প্রবাসী সাবেক জাতীয় খেলোয়ারদের সাথে মতবিনিময় করেন। অ্যাথলেটিকসে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বাংলাদেশী নতুন প্রজন্মের প্রতিভা অন্বেষনে তিনি লস এঞ্জেলেসেও সফর করেন ইতোপূর্বে। আবদুর রকিব মন্টুর আগামী ১৬ অক্টোবর ঢাকায় ফিরে যাবার কথা রয়েছে।

 

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ