সিঙ্গাপুরের মানবতার ফেরিওয়ালা কবির দেশেও বাড়িয়েছেন সাহায্যের হাত

May 27, 2020, 8:46 AM, Hits: 549

সিঙ্গাপুরের মানবতার ফেরিওয়ালা কবির দেশেও বাড়িয়েছেন সাহায্যের হাত

জাহাঙ্গীর বাবু, হ-বাংলা নিউজ : কোভিড ১৯, করোনা ভাইরাসের মহামারী আক্রমণে বিশ্ব এখন পর্যদুস্ত। আমেরিকা ইটালির চেয়েও প্রবাসীদের সেবায় সিঙ্গাপুর সবার চেয়ে এগিয়ে ,এমন সময় বাংলাদেশী বংশদ্ভুদ,সিঙ্গাপুরের নাগরিক  কবির হোসেন সিঙ্গাপুরে  বাংলাদেশী তথা অভিবাসীদের কাছে হয়ে উঠেছেন মানবতার ফেরিওয়ালা। কবির হোসাইন ও তার স্ত্রী নুরিয়া দাঁড়িয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশিদের পাশে।বাড়িয়েছেন সাহায্যের হাত.গুগল প্লে ষ্টোরে  চালু করেছেন বিশেষ গ্রোসারি এপস।

সিঙ্গাপুর এর পর বাংলাদেশে ও ঈদ উপহার সামগ্রী ও নগদ অর্থ বিতরণ করলেন সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ী কবির হোসাইন, সেই সাথে দেশ ও দেশের বাইরে সবাইকে ঈদের জানিয়েছেন শুভেচ্ছা ।

গত ২৪/০৫/২০ বাংলাদেশের ঢাকা উত্তরায় ৫০ নং ওয়ার্ডের দেওয়ানপাড়ায়, সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ী ব্রুকলিঞ্জ ষ্টিলনেস ষ্টিল কোম্পানির CEO কবির হোসেন এর উদ্যোগে, প্রবাসী সিঙ্গাপুর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, মোঃ আমিনুল ইসলাম বুলবুল এর মাধ্যমে তার পরিবারের সহায়তায় ৩৩ জনকে নগদ ৫০০ অর্থ টাকা করে, ২৫ জনকে ৫৪৫ টাকার মধ্যে চাউল, সেমাই, সয়াবিন তৈল, দুধ, আলু, পিয়াজ, চিনি দিয়ে প্যাকেট করে, ঈদ উপহার সামগ্রী কর্মহীন পরিবারের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিচ্ছেন, উপহার সামগ্রী পেয়ে কর্মহীন পরিবারগুলোর মুখের হাসিথেকেই ভালোবাসা ও দোয়ার বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছেন,

এছাড়া তিনি রাজাপুর উত্তর পাড়া পাবনা জেলার সময়ের বাতিঘর যুবসংঘ-কে ৪০০০০/= চল্লিশ হাজার টাকা অনুদান দিয়েছেন, যা দিয়ে সময়ের বাতিঘর যুব সংঘের কর্তৃপক্ষ ২০০ হতদরিদ্র মানুষের হাতে ঈদ উপহার পৌঁছে দিয়েছেন। অজো পাড়া গাঁয়ে পাবনাবাসী ও উত্তরা দেওয়ান পাড়ার কর্মহীন মানুষ যাকে কখনো দেখেনি , অথচ তার দেওয়া ঈদ উপহার পেয়ে খুশিতে আত্মহারা, এই ভালোবাসা এই আনন্দের সত্যি কোন তুলনা হয়না।

মানুষের প্রতি মানুষের ভালোবাসার টানে, মানবতার টানে, আল্লাহকে সন্তুষ্ট রাখার জন্য, আল্লাহর শ্রেষ্ঠ জীব গুলোর মুখে হাসি ফোটানোর জন্য, তার মনুষ্যত্ব বোধ থেকে তিনি এই কাজগুলো করে যাচ্ছেন, তার কাজে অনুপ্রেরণা উৎসাহ যোগাচ্ছেন তারই সহধর্মিনী।

যারা  কবিরের সহযোগিতা পেয়েছেন। তারা দুই হাত তুলে আল্লাহর কাছে দোয়া করছেন, তাকে এবং তার পরিবারের সবাইকে সমস্ত বিপদ আপদ থেকে হেফাজতে রাখেন, আল্লাহ যেন তাকে নেক হায়াত দান করেন এবং আল্লাহ যেন তাকে আরো বেশি সম্পদশালী বানিয়ে দেন। তিনি যেন সবসময় এভাবে মানবতার দূত হয়ে মানুষের পাশে থাকতে পারেন। উপহার পাওয়া এক বিধবা বিদ্যা মহিলার কৃতজ্ঞতা স্বরূপ কবির হোসেন এর জন্য আল্লাহর কাছে প্রার্থনা,এক নজরে দানবীর কবির হোসেন এর সংক্ষিপ্ত পরিচয় ও তার সামাজিক কার্যক্রম গুলো।

সিঙ্গাপুরের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, ব্রুকলিঞ্জ ষ্টিলনেস ষ্টিল কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড CEO কবির হোসাইন। বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এর কারণে গত ৭/৪/২০ সিঙ্গাপুরে সার্কিট ব্রেকারে ও লকডাউন হওয়ায়, শ্রমিকদের আবাসস্থল এবং ডরমেটরিতে আটকে থাকা কর্মহীন হয়ে পড়া প্রবাসী শ্রমিকদের মাঝে, আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে, কিভাবে তারা খাবে, ঘরে আটকে থাকার কারণে বাহিরে গিয়ে কোনকিছু কিনার সামর্থ থাকলেও কিনতে পারছে না। আবার অনেকে কিনার আগ্রহ থাকলেও অর্থাভাবের জন্য কিনতে পারছে না। এরমধ্যে মুসলিম উম্মাহর রোজা শুরু হয়ে গেল, এই কারণে প্রবাসী শ্রমিকরা আরো বেশি হতাশাগ্রস্ত হয়ে গেল। কিভাবে তারা ভালো খাবারগুলো কিনে খাবে, প্রতিবছর প্রবাসীরা মসজিদে গিয়ে ইফতার করতে যেত, এবছর লকডাউন এর জন্য মসজিদে যেতে পারছে না। জামায়াতের সাথে  নামাজ পড়তে পারছেনা এই অবস্থায় হতাশাগ্রস্থ শ্রমিকদের সামনে মানবতার ফেরিওয়ালা হয়ে হাজির হলেন, বাংলাদেশি সন্তান ব্রকলিঞ্জ ষ্টিলনেস ষ্টিল কোম্পানির কর্ণধার কবির হোসাইন ও তার সহধর্মিনী।

সিঙ্গাপুর প্রবাসী শ্রমিকদের দুরবস্থার কথা চিন্তা ভাবনা করে প্রতিনিয়ত বাংলাদেশি শ্রমিকদের আবাসস্থলে ও বিভিন্ন ডরমিটরিতে গিয়ে ইফতার ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন , তার সহধর্মিনীকে সাথে নিয়ে পৌঁছে দিচ্ছেন সিঙ্গাপুরে এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। ভালোবাসা পাগল মানবদরদী  কবির ও তার সহধর্মিনী সকালে ঘুম থেকে উঠেই বেরিয়ে যেতেন বিভিন্ন সাপ্লাইয়ারদের কাছে, ক্রয় করতেন ফ্রুটস ও ইফতার সামগ্রী, যেমন মুড়ি, চানাচুর, খেজুর, তরমুজ, আপেল, মালটা। এবং তার সহধর্মিণীর নিজ হাতে বানানো কেক, পরে সেগুলো প্যাকেট করে, লরিতে করে পূর্বে অর্ডারকৃত নির্দিষ্ট স্থানে পৌঁছে দিতেন। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত মানব সেবায় নিয়োজিত থাকতে থাকতে ভুলে যেতেন নিজের লাঞ্চ করার সময় কফি টাইম রেস্টিং টাইমিং। রোজার মধ্যে অনেক সময় এক জায়গায় বসে স্বাভাবিক ভাবে ইফতার করতে পারেননি। লরিতে বসেই ইফতার সেরে নিয়েছেন। অনেক সময় নির্দিষ্ট টাইম এর ইফতার করতে পারেননি। জনাব কবির ও তার সহধর্মিণী লকডাউন ও রমজানের সময় প্রতিনিয়ত নিয়োজিত রেখেছেন মানব সেবায়। ফোন করে খোঁজখবর রাখছেন। প্রবাসী শ্রমিকদের সাথে।


সাধারণ কর্মহীন শ্রমিকরা একটা সময় বিভিন্ন মালামালের অর্ডার করতেন, যেগুলো ক্রয় করে আবার তাদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হতো। কবির হোসেনের কোম্পানির ম্যানেজার (সিঙ্গাপুরিয়ান) নিজে লরি ট্রাক  চালিয়ে, বাজারগুলো পৌঁছে দিতেন, কবির হোসেন শত কষ্ট হলেও চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন। নির্দিষ্ট সময় নির্দিষ্ট জায়গায় বাজারগুলো পৌঁছে দিতে। একটা সময় অর্ডার এর পরিমাণ বেশি হওয়ায়। তিনি তার নিজ উদ্যোগে প্লে স্টোরে একটি অ্যাপস ক্রিয়েট করেন। অ্যাপসটির নাম বিসিএস, এই অ্যাপস এর মাধ্যমে গৃহবন্দী কর্মহীন শ্রমিকরা তাদের পছন্দের মালামাল অর্ডার করেন , এবং নির্দিষ্ট সময়ে তাদের কাছে পৌঁছে দিতেন। এখন কবির হোসাইনের এই অনলাইন অ্যাপস এর মাধ্যমে সিঙ্গাপুর প্রবাসী বাংলাদেশী শ্রমিকরা ঘরে বসেই তার পছন্দের মালামালগুলো, ক্রয় করতে সক্ষম হয়েছেন, প্রবাসীদের কাছে কবির ভাই মানবতার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত, এক মানবতার ফেরিওয়ালা ,সিঙ্গাপুর গভারমেন্ট থেকেও তিনি তার কার্যক্রমের জন্য প্রশংসিত হয়েছেন।

কবিরের এসব মহতী ও মানব সেবা মূলক কাজে তথ্য উপাত্ত দিয়ে সহযোগিতার ভূমিকা পালন করেছেন, সিঙ্গাপুর আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মোঃ আমিনুল ইসলাম বুলবুল, সাংবাদিক শাহাদাত রাসেল, mwc কর্মী জসিম, বিজয় বিমল, সিঙ্গাপুর শ্রমিক লীগের সভাপতি রেজাউল করিম, সিঙ্গাপুর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আরিফ হোসেন, আরও নাম না জানা অনেকেই, যাদের সঠিক তথ্যের ভিত্তিতে, বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে উপহার সামগ্রী পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছেন, ঈদের দিন তাদের কে ফোন করে শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ দিতে ভুলে যাননি জনাব কবির। ফোন করে ঈদের দিনও ঈদের খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন সিঙ্গাপুরের প্রতিটি  ডরমিটরিতে এবং প্রবাসী শ্রমিকদের আবাসস্থলে।

ব্রুকলিঞ্জ ষ্টিলনেস ষ্টিল কোম্পানির CEO কবির হোসেন ও তার সহধর্মিণী দেশ ও দেশের বাইরে সিঙ্গাপুরের সকল প্রবাসীকে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এবং সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন। তিনি এও বলেছেন যে কোনো দুর্যোগে সিঙ্গাপুর প্রবাসী সহ বাংলাদেশের মানুষের সাথে, সার্বিক সহযোগিতায় সব সময় আছেন থাকবেন ইনশাআল্লাহ।

২০১১ সাল থেকে সিঙ্গাপুরে কাজের সুবাদে তার সাথে পরিচয়। মহৎ হৃদয়ের একজন মানুষ ,অত্যন্ত বিনয় বুদ্ধিমান শিক্ষায় তিনি একজন প্রকৌশলী। প্রতিনিয়ত আমার সহ  পরিচিত জনদের কাজের খোঁজ খবর রাখেন। কর্মহীনদের কাজ পাইয়ে দেয়ার জন্য  সাহায্য করে থাকেন। আমি কবির হোসাইন,মিসেম নুরিয়া কবির ও তাদের বুকলিন্জ কোম্পানির শুভকামনা করছি।  

 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ