করোনাকালে প্রতিমাসে আমেরিকা থেকে অনলাইন জাদু প্রতিযোগিতার উদ্যোগ

July 12, 2020, 7:48 AM, Hits: 234

করোনাকালে প্রতিমাসে আমেরিকা থেকে অনলাইন জাদু প্রতিযোগিতার উদ্যোগ

হ-বাংলা নিউজ : আমেরিকাস্থ ইন্টারন্যাশনাল ম্যাজিশিয়ান্স সোসাইটি থেকে ড. অব ম্যাজিক এবং মারলিন এ্যাওয়ার্ড বিজয়ী নিউইয়র্ক প্রবাসী জাদুশিল্পী খান শওকতের উদ্যোগে মুজিব শতবর্ষে বাংলাদেশ আমেরিকা ম্যাজিক সোসাইটির ব্যানারে করোনাকালে বিপদগ্রস্ত জাদুশিল্পীদেরকে উৎসাহ প্রদান, তাদের সৃজনশীল চিন্তার মানোন্নয়ন ও সহযোগিতার উদ্দেশ্যে প্রতিমাসে আমেরিকা থেকে অনলাইন জাদু প্রতিযোগিতার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

অংশগ্রহনকারী প্রতিযোগিকে জাদু প্রতিযোগিতার জন্য ১টা আইটেম নিয়ে ম্যাজিক করতে হবে। ১ মিনিট থেকে সর্বোচ্চ তিন মিনিটের ভিডিও হতে হবে। ভিডিওতে কোন প্রকার এজিটিং করা যাবেনা। ফলাফল ঘোষনার পূর্বে এসব ভিডিও ইউটিউব বা কোন গ্রুপে প্রচার করা যাবে না। নির্ধারিত ম্যাজিক কম্পিটিশন ইন বাংলাদেশ ফেসবুক গ্রুপে অনলাইন জাদু প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। এই গ্রুপেই প্রতিযোগিদের ভিডিও পাঠাতে হবে। এখানে দর্শকদেরও মতামত নেয়া হবে। যে সকল প্রতিযোগীর ভিডিও থাকবে দর্শকরা যে কেউ বিচারক হিসেবে তাদের ভিডিওর নিচে কমেন্ট বক্সে ১ থেকে ১০ এর মধ্যে নাম্বার দিন। সর্বোচ্চ নং ১০ এবং সর্বনিম্ন ১ নং। প্রতিমাসের ২১ থেকে ২৪ তারিখ বিচার বিবেচনা চলবে। ২৫ তারিখে চুড়ান্ত ফলাফল ঘোষনা করা হবে। ৩০ তারিখে বিকাশে টাকা পেয়ে যাবেন বিজয়ীরা। তাদের সনদপত্র আমেরিকা থেকে পাঠানো হবে। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনকারীদের কাছ থেকে কোন রেজিষ্ট্রেশন ফিস নেয়া হবে না। 

বিজয়ীদের ১ম পুরস্কার: ১,৫০০ টাকা ও সনদপত্র। ২য় পুরস্কার: ১,০০০ টাকা ও সনদপত্র। ৩য় পুরস্কার ৫০০ টাকা ও সনদপত্র। হে সৌভাগ্যবান, তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ।

খান শওকত বলেন, করোনায় জাদুশিল্পীদের কোন শো নাই, কোন ইনকাম নাই। তাদের মনোবল ভেঙে পড়েছে। তারা সারাজীবন মানুষকে বিনোদন দিয়ে তাদের জীবনকে উৎসাহিত করেন। আজ তাদের পাশে কেউ নাই। তারাওতো মানুষ। তাদেরও পারিবারিক দায়িত্ব পালন করতে হয়। তাদেরকেও উৎসাহ দেয়া দরকার। অন্যান্য শিল্পীদের মতো তারাও বেশ অভিমানী। মনে কষ্ট নিয়ে বসে থাকবে, কিন্তু কারো কাছে হাত পাতবে না। শিল্পীরা এমনই হয়। সবকিছু বিবেচনা করে এদের উৎসাহ ও কল্যানে গত ৭/০৭/২০২০ তারিখ থেকে বাংলাদেশের একজন নন্দিত জাদুশিল্পীর একান্ত তত্বাবধানে এবং একদল সিনিয়র জাদুশিল্পীর সহযোগিতায় প্রতিমাসে নিয়মিত প্রতিযোগিতার উদ্যোগ নিয়েছি। যারা বিজয়ী হবেন, তাদেরকে নিয়ে ভবিষ্যতে আরও ব্যাপক উদ্যোগ নেয়ার পরিকল্পনা আছে আমাদের। আমরা সবার সহযোগিতা চাই। এখানে একজন ম্যাজিশিয়ান আরেকজন ম্যাজিশিয়াানের পারফরমেন্স দেখার সুযোগ পাবেন, এবং তাকে ভোট দেবারও সুযোগ পাবেন। এতে করে পারস্পরিক সম্মান ও বন্ধুত্ব আরও বৃদ্ধি পাবে। যোগ্য শিল্পীরা এগিয়ে যাবেন।

খান শওকত আরও বলেন, এই করোনাকালে ঘরে বসে আপনার মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে প্রতিমাসে পুরস্কার জিতে নিন এবং বিশ্বব্যাপী আপনার প্রদর্শনী সর্বত্র পৌঁছে দিন। ১৯৮৫ সালে ঢাকার প্রথম জাদুশিক্ষা প্রতিষ্ঠান মডার্ন ম্যাজিক একাডেমী প্রতিষ্ঠা করেছিলাম আমি। এরপর ১৯৯০ সালে আমেরিকাতে চলে আসার পর এখানে অদ্যাবধি জাদুপ্রদর্শনী করছি। বিভিন্ন দেশের জাদুশিল্পীদের সাথে আমার পরিচয় আছে। বাংলাদেশের জাদুশিল্পের কল্যানে আমরা সকল জাদু সংগঠনের এবং সকল জাদুশিল্পীর আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছি। যেহেতু এঅনলাইন প্রতিযোগিতা মুজিব বর্ষে অনুষ্ঠিত হচ্ছে, তাই সবার প্রতি অনুরোধ, সম্ভব হলে মুজিব বর্ষের লোগোর সামনে অথবা বঙ্গবন্ধুর ছবির সামনে দাঁডিয়ে ম্যাজিক করুন। তিনি আরও বলেন, আপনারা জানেন, ভাগ্য কেউ গড়ে দিতে পারেনা, নিজের ভাগ্য নিজেরই গড়ে নিতে হয়। যে কোন কাজ মনোযোগ সহকারে করলে আপনার ভাগ্যটা ঘুরতেও পারে। বাংলাদেশকে নিয়ে আমরা একটা স্বপ্ন ধরে পথে নেমেছি। আসুন সবার অংশগ্রহনে একটি সফল প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠান সম্পন্ন করি, এবং বাংলাদেশের একদল প্রত্যয়ী তরুনকে বিশ্বের সামনে নিয়ে আসি।

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ