টিকটক-লাইকির অপব্যবহারে ধ্বংসের মুখে নতুন প্রজন্ম

August 21, 2020, 11:35 AM, Hits: 237

টিকটক-লাইকির অপব্যবহারে ধ্বংসের মুখে নতুন প্রজন্ম

হ-বাংলা নিউজ : আপত্তিকর ও অশ্লীল পর্যায় চলে যাচ্ছে জনপ্রিয় ভিডিও অ্যাপ্লিকেশন টিকটক। অভিবাসী বাংলাদেশিদের নতুন প্রজন্মের মধ্যেও টিকটকের ব্যবহার প্রায়ই সামাজিক সমস্যা হয়ে দেখা দিচ্ছে। 

বিগত কয়েক মাস ধরে জনপ্রিয় এই ভিডিও অ্যাপ্লিকেশনে দেখা যাচ্ছে ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্য, যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত কিছু বাংলাদেশি নারী, পুরুষ, তরুণ-তরুণী ব্যক্তিগত কলহে জড়িয়ে পড়ছে, একে অন্যকে আপত্তিকর কথা বলছেন। আর বিদেশে থেকে টিকটকের মাধ্যমে নিজের ভাষা, সংস্কৃতিকে বিকৃতভাবে উপস্থাপন করছে কিছু কিছু প্রবাসী।

টিকটক হচ্ছে এমন একটি অ্যাপ্লিকেশন যার মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা বিশেষ ইফেক্ট, ফিল্টার ব্যবহার করে ছোট ছোট ভিডিও তৈরি ও শেয়ার করেন। এতে তাদের শরীর, মুখের নানা অঙ্গভঙ্গি করার সুযোগ আছে। জনপ্রিয় এই প্লাটফর্মে এসব অঙ্গভঙ্গি করে অনেকে টিকটক স্টার হয়ে যাচ্ছেন। অনলাইন থেকে অনেকে অর্থও আয় করছেন।

কিন্তু বাংলাদেশীদের ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে ব্যতিক্রম। বর্তমানে কিছু তরুণ-তরুণী ও প্রবাসী বাংলাদেশি টিকটকে একে অন্যের প্রতি আপত্তিকর মন্তব্য করে ভিডিও প্রকাশ করছেন।

সম্প্রতি বাংলাদেশি টিকটক সেলিব্রেটি ইয়াসিন আরাফাত ওরফে অপু (অপু ভাই নামে পরিচিত) গ্রেপ্তার হওয়ার পর বাংলাদেশে কিশোর গ্যাং এবং টিকটক ও লাইকি অ্যাপের ব্যবহার নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে। এ ছাড়া চলতি বছরের শুরুতে বেশ কিছু জাতীয় ও আঞ্চলিক গণমাধ্যমে কিশোর গ্যাংয়ের অপরাধ ও তাদের বেপরোয়া চলাফেরা নিয়ে সিরিজ অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

এ রকম কিছু চিত্র প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যেও লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ভিডিও অ্যাপ্লিকেশনে কেউ মদ খেয়ে মাতলামি করে টিকটকে ভিডিও প্রকাশ করছেন। কেউ নোংরা, বাজে ভাষায় গালাগালি করছেন আবার কেউ নারীরা কেন টিকটকে এসে অঙ্গভঙ্গি করে ভিডিও প্রকাশ করছেন—এসব কথা বলে ভিডিওতে আপত্তিকর ভাষায় মন্তব্য করছেন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, যারা এসব টিকটক ভিডিও তৈরি করছেন তাদের বেশির ভাগই বৈধ কাগজপত্র ছাড়া বিদেশে অবস্থান করছেন। এমনকি তাদের নাম বিভিন্ন সময় কমিউনিটিতে নানা অভিযোগ আছে। তাদের এসব নোংরা কর্মকাণ্ডে প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটিতে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।

গত মাসে নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে টিকটকে একটি ভিডিও প্রকাশ নিয়ে কলহে জড়িয়ে পড়েন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। টিকটকের জেরে প্রায় সময় এমন দ্বন্দ্বের কথা শোনা যায়।

নিউইয়র্কের কুইন্স কলেজের বাংলাদেশি-আমেরিকান শিক্ষার্থী নাবিলা বেগম বলেন, ‘অন্য বন্ধুদের মতো আমিও ভিডিও অ্যাপটি ডাউনলোড করি। কয়েক দিন পর অ্যাপটি ব্যবহার করা বাদ দিয়ে দিই।’ কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কয়েক দিন অ্যাপটি ব্যবহার করে দেখি, আমাদের বাংলাদেশিরা খুব বাজে ভাষায় এক অন্যকে গালাগালি, অন্য জেলা, বিভাগ নিয়ে কুরুচিপূর্ণ ভাষা ব্যবহার করছেন। এটা আমাদের নতুন প্রজন্মের জন্য খুবই দুঃখজনক। কয়েক মাস ধরে এই ভিডিও অ্যাপটিতে কিছু বাংলাদেশি আমাদের সংস্কৃতি, ঐতিহ্য, ভাবমূর্তি নষ্ট করছেন।’

শিক্ষক এইচ বি রিতা বলেন, টিকটক এমন একটি আবেদনময় প্ল্যাটফর্ম, যেখানে ভিন্ন ধাঁচের ভিডিওগুলো প্রকাশে রাতারাতি অনলাইন সেলিব্রেটি হওয়া যায়। কেউ কেউ অশ্লীল, রুচিহীন অঙ্গভঙ্গি কিংবা বাজে কথ্য–কথনে টিকটক বা এ জাতীয় অ্যাপ ব্যবহার করছেন, তারা প্রায় অনেকেই ‘অ্যাটেনশন সিকিং’ সাইকোলোজিক্যাল ডিসঅর্ডারের দিকে অগ্রসর হচ্ছেন। এটা অ্যাপ্লিকেশনটির ত্রুটি নয়, এটি ব্যবহারকারীদের ত্রুটি। পারিবারিক দায়হীনতা, সম্পর্কের টানাপোড়েন, হতাশা, ক্ষোভ, অবহেলা...বিভিন্ন কারণে তরুণ প্রজন্ম ও বয়স্কদের কেউ কেউ এর পেছনে সময় ব্যয় করছে। নিজে ও পরিবারের সবাইকে নিরাপদ রাখতে এসব বিষয় নিয়ে খোলামেলা কথা বলা দরকার।

নিউইয়র্কে বসবাসরত প্রবীণ সাংবাদিক মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘সময়ের অনেক কিছুকে আমরা এড়িয়ে যেতে পারব মা। নতুন প্রজন্মকে সঠিক সাংস্কৃতিক শিক্ষা না দেওয়ার পরিণাম আমাদের বহন করতে হবে। দেখা গেছে, যারাই এসবে জড়াচ্ছে, তাঁরা সামাজিক, পারিবারিক অস্থিরতা ও পশ্চাৎপদতা থেকে আসা লোকজন। এসব নিয়ে আমাদের সমাজচিন্তকদের মনোযোগী হতে হবে।’

সিটি ইউনিভার্সিটির মনোবিজ্ঞানের শিক্ষক রাজুব ভৌমিক বলেন, ‘টিকটক ভিডিওতে কাউকে কাউকে মাদক নিয়ে হাজির হতে দেখা যায়। এতে যুবসমাজ মাদক ব্যবহারে উৎসাহী হতে পারে। তাই সাবস্ট্যান্স ইউজ ডিসঅর্ডার নামক রোগের দিকে তারা ঝুঁকে যাচ্ছে। অন্যদিকে, টিকটিকে এমন অশ্লীল রুচিশীল কর্মকাণ্ড নতুন প্রজন্মের সুস্থ মানসিক বিকাশের সহায়ক নয়। টিকটকের অধিকাংশ ব্যবহারকারীর বয়স ২৪ বছরের নিচে। আবার এদের অনেকে অন্যকে বুলিং করতে টিকটিক ব্যবহার করে। ফলে বুলিংয়ের শিকার ছাত্র-ছাত্রীরা বিষণ্নতায় ভোগে, যা একদিন তাদের আত্মহত্যায় প্ররোচিত করার শঙ্কা রয়েছে।’ 

 
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ