সিঙ্গাপুরে প্রেসিডেন্ট এওয়ার্ড পাচ্ছেন বাংলাদেশের কবির হোসেন

September 12, 2020, 8:46 AM, Hits: 303

সিঙ্গাপুরে প্রেসিডেন্ট এওয়ার্ড পাচ্ছেন বাংলাদেশের কবির হোসেন

জাহাঙ্গীর বাবু, হ-বাংলা নিউজ : সিঙ্গাপুরে প্রেসিডেন্ট এ্যাওয়ার্ড ২০২০ পেতে যাচ্ছেন , বাংলাদেশের গর্ব সিঙ্গাপুরের নাগরিক প্রকৌশলী কবির হোসেন। তিনি পড়াশোনার জন্য সিঙ্গাপুরে গিয়েছিলেন, তারপর  চাকুরী ও পরে ব্যবসায় সাফল্য অর্জন করেন।

দুইশ জন মনোনীত ব্যাক্তিদের মধ্য থেকে প্রথমে পঁয়তাল্লিশ জনের শর্টলিস্টে নাম আসে তার। পরে গত ১১ই সেপ্টেম্বর, শুক্রবার আয়োজকদের মাধ্যমে মোবাইলে সংবাদটি শুনে আবেগে আপ্লুত হন তিনি।  এতে আবারও প্রমানিত হলো যে, ভালো কাজের পুরষ্কার অবশ্যই পাওয়া যায়। লকডাউনে সিঙ্গাপুরে যখন করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে শ্রমিকরা ডরমিটরিতে আবদ্ধ অবস্থায় সময় কাটাচ্ছিলেন তখন কবির হোসেন তার সহধর্মিণীকে সঙ্গে নিয়ে সরকারী বেসরকারি এনজিওর পাশাপাশি তিনিও প্রবাসী শ্রমিকদেরকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন যা ইতিপূর্বে সোশাল মিডিয়ায় ব্যাপক সারা ফেলেছে।

নিজের দুইটি সন্তানকে তাদের নানা নানির কাছে বাসায় রেখে নিজেদের আক্রান্ত হওয়ার কথা না ভেবে লক্ষ লক্ষ প্রবাসী শ্রমিকদেরকে সাহায্য করতে এগিয়ে যাওয়ার বিষয়টি তখন মানুষের মনে খুব দাগ কেটেছিলো। দূর্বিষহ পরিবেশে লরিতে করে ঘুরে ঘুরে এই দম্পতি প্রবাসী শ্রমিকদেরকে নিত্য প্রয়োজনীয় খাবার পৌঁছে দিয়ে মানবতার এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করে প্রবাসীদের মনে ভালোবাসার জায়গা করে নিয়েছেন।

শুধু তাই নয়, প্রবাসী শ্রমিকদের প্রয়োজনের তাগিদে তিনি তৈরী করেছেন BCS.SG.WAY নামে একটি এ্যাপস। যেখানে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো সহজেই অর্ডার করে ফ্রী ডেলিভারিতে সংগ্রহ করা যাচ্ছে। সম্প্রতি সেই এ্যাপসটিতে আরো একটি অপশন যুক্ত করেছেন তা হলো পাসপোর্ট সার্ভিস। সিঙ্গাপুরে অবস্থানরত প্রায় এক লক্ষ তিরিশ হাজার শ্রমিক বসবাস করেন। দেখা যায় পাসপোর্ট সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে প্রায়ই শ্রমিকদেরকে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। সেই সমস্যা সমাধানের লক্ষে তিনি এখন থেকে অন লাইনের মাধ্যমে আবেদন করার একটি প্রক্রিয়া এ্যাপসে যুক্ত করেছেন। যা খুবই কার্যকর ভূমিকা রাখছে।

বাংলাদেশের কুমিল্লা জেলার কৃতি সন্তান কবির হোসেন পড়াশুনা শেষ করে ভাগ্য অন্বেষণে ২০০০ সালে সিঙ্গাপুরে পারি জমান। নিজের মেধা, শ্রম এবং যোগ্যতায় আজ তিনি একটি কোম্পানির মালিক। এই দেশের নাগরিক। ২০১২ সালে বিয়ে করেন একজন ভারতীয় মুসলিম নারীকে। বর্তমানে দুই সন্তানের জনক। তিনি বিশ্বাস করেন মানুষ বেঁচে থাকে তার কর্মের মাধ্যমে। সৎ এবং নিষ্ঠার সাথে কাজ করে গেলে এর সুফল অবশ্যই পাওয়া যায়।

 

সিঙ্গাপুরে কর্মরত প্রবাসী কথা সাহিত্যিক, ২০১৮ সালের সিঙ্গাপুর বুক এওয়ার্ড প্রাপ্ত স্ট্রেঞ্জার টু মাইসেলফ বইয়ের রচয়িতা মোহাম্মদ শরীফ জানিয়েছেন, একজন বাংলাদেশী হিসেবে যখন সিঙ্গাপুরের মতো একটি রোল মডেলের প্রেসিডেন্টের হাত থেকে এই সম্মানজনক এ্যাওয়ার্ডটি গ্রহণ করবেন তা ভাবতেই আমি গর্বিত হয়ে উঠছি। সিঙ্গাপুর সরকার যোগ্য ব্যাক্তি চিনতে ভুল করেন নি। তাদের এই মূল্যায়নকে সম্মান করে লক্ষ লক্ষ প্রবাসীদের পক্ষ থেকে কবির ভাইকে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানাই। দোয়া করি তিনি মানবতার কল্যানে আরো অনেক দূর এগিয়ে যান। 

 
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ