অনলাইন যে ২ প্রতারণার বিষয়ে সতর্ক থাকবেন

September 13, 2020, 9:17 PM, Hits: 90

অনলাইন যে ২ প্রতারণার বিষয়ে সতর্ক থাকবেন

হ-বাংলা নিউজ : করোনা মহামারির এই পরিস্থিতিতে সাইবার প্রতারণা বেড়েছে দিন দিন। সাইবার নিরাপত্তা বিশ্লেষকেরা বলছেন, অনেকেই দুর্বৃত্তদের কাছ থেকে লোভনীয় অফারসহ নানা বার্তা পাচ্ছেন। করোনা মহামারির এ সময়ে অনলাইনে চাঁদাবাজির স্ক্যাম বা প্রতারণার কৌশল খাটাচ্ছে তারা।

বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তির সহজলভ্যতার কারণে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকসহ অন্য মাধ্যমগুলোয় এই অপরাধের প্রবণতা বেশি। এ ধরনের সাইবার প্রতারণা সম্পর্কে সচেতন থাকা জরুরি।

কিছুদিন ধরে ফেসবুকে অনেক ব্যবহারকারী ‘কোভিড-১৯ রিলিফ ফান্ড’ বা করোনার ত্রাণ তহবিলসংক্রান্ত বার্তা পাচ্ছেন। সাইবার প্রতারকেরা পরিচিতজন বা আত্মীয় সেজে বা তার প্রোফাইল ব্যবহার করে এ ধরনের প্রতারণা করতে পারে। 

ফেসবুকে মেসেঞ্জারে প্রলুব্ধকারী লিংক পাঠিয়ে তাতে ক্লিক করতে বলা হয়। এটি একধরনের ফিশিং আক্রমণ। এতে ফেসবুক ব্যবহারকারীকে ত্রাণ তহবিল থেকে অর্থ পাইয়ে দেওয়ার লোভ দেখানো হয়। তবে অর্থ পাইয়ে দিতে আগেভাগে কিছু অর্থ পরিশোধ করতে বলা হয়।

একবার অর্থ পরিশোধ করা হলে দুর্বৃত্তরা যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় বা কৌশলে আরও অর্থ দেওয়ার জন্য চাপ দেয়। এ ধরনের প্রতারণা করতে পরিচিতজনের নকল বা ভুয়া অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করা হয়। অথবা কারও অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে সেটি ব্যবহার করে থাকে দুর্বৃত্তরা। তাদের পাঠানো কোনো লিংকে ক্লিক করা হলে তা ম্যালওয়্যারভর্তি কোনো সাইটে নিয়ে যেতে পারে। এতে ফোন বা অন্য কোনো ডিভাইসে ভাইরাস চলে আসতে পারে।

বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ হচ্ছে করোনাভাইরাস–সংক্রান্ত তথ্যের জন্য প্রকৃত উৎসের বাইরে কোনো তথ্য বিশ্বাস করা উচিত নয়। এ ধরনের ভুয়া প্রোফাইল দেখলে ফেসবুকে রিপোর্ট করতে হবে।

করোনাকালে আরেকটি প্রতারণা বেড়েছে মেইলে। অনেকেই মেইলে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী (সিইও) বা বড় পদের কর্মকর্তাদের কাছ থেকে নানা রকম অফার পাচ্ছেন। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের নামে ভুয়া মেইল পাঠিয়ে চাকরিসহ বিভিন্ন প্রলোভন দেখানো হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে ‘বিজনেস ই–মেইল কম্প্রোমাইজ’ বা বিইসি নামের বিশেষ কৌশল খাটায় দুর্বৃত্তরা।

লিংকডইনসহ বিভিন্ন সাইট থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের তথ্য সংগ্রহ করে তা কাজে লাগায় তারা। এরপর সেই তথ্য ব্যবহার করে প্রতারণার কাজে ব্যবহার করা হয়। তাই কেউ যদি কোনো প্রতিষ্ঠানের মানবসম্পদ বিভাগ, সিইও, ব্যবস্থাপকের কাছ থেকে বিশেষ মেইল পান, তবে সতর্ক হতে হবে। 

এসব মেইলের অ্যাটাচমেন্টের সঙ্গে ম্যালওয়্যার যুক্ত থাকতে পারে। তাই কোনো লিংকে ক্লিক করার আগেও সচেতন থাকতে হবে। 

 
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ