প্রবাসী লেখকদের কলাম

Displaying 1-20 of 481 results.
সাবধান,কিন্তু, নেক্সট হোয়াট?

সাবধান,কিন্তু, নেক্সট হোয়াট?

সাবধান,কিন্তু, নেক্সট হোয়াট? 

জাহাঙ্গীর বাবু


সাবধান,

দুই নাম্বার নেতা,মন্ত্রী,আমলারা আসছে নাকি থেরাপী?

কিন্তু,দুই নম্বরীতে সয়লাব বিভাগ,উইং প্রত্যেকটি"

শাখা,প্রশাখা,শহর,বন্দর,গ্রাম,গঞ্জ... 

নেতা,আমলারা নিজেরা বাঁচতেই নস্যাৎ করে দেয়  অভিযান প্রতিটি!

সব পদক্ষেপ হয়ে যায় আই ওয়াশ!

কালে কালে যুগে যুগে দেখা গেছে,

প্রতিটি অভিযানের শুরু আছে শেষ নাই,

কোন দিন,কোন সময় এই দিকে, 

সোচ্চার হলেই ক্ষমতা হয়ে......

ব্রিটিশেরা এম.পি হয়েও

ব্রিটিশেরা এম.পি হয়েও

ব্রিটিশেরা এম.পি হয়েও

নাজমুল ইসলাম মকবুল 

ব্রিটিশেরা এম.পি হয়েও

সুরমা পারে সাফ করে

আমার দেশের লুটেরারা

লুট করে ভাই ট্রাক ভরে!

পদের ভারে এসির ভেতর

ফুর্তি করে প্রাণ ভরে 

দেখা করতে কি যে কষ্ট

তাও আবার দালাল ধরে। 

রাস্তা ঘাটে দখলবাজি

ময়লা থাকুক চিন্তা নাই

এসি গাড়ির ভেতর থেকে

এসব দেখার সময় নাই।

কোথা থেকে কত টাকা

আসছে ভাগে হিসাব চাই

পাবলিক মেরে......

দখলবাজরা বেঁচে থাক, আমজনতা নিপাত যাক!

দখলবাজরা বেঁচে থাক, আমজনতা নিপাত যাক!

দখলবাজরা বেঁচে থাক, আমজনতা নিপাত যাক!

জাহাঙ্গীর বাবু


কবরের জায়গা কিন্তু সাড়ে তিন হাত।

সে জায়গা সরকারের নয়,জনগনের নয়,

পড়শী আত্বীয়ের নয়,দখল বাজি চলবেনা!

দখলবাজ গং,আজাব,আগুনকে ভয় পায়না।

ওরা দখল রাজ,ওরা মরবেনা।

ওরা ক্ষমতার সাথে মুখোশ বদলায়।

ওরা মায়ের বুকে ছুরি চালায়

বাবার মাথায় করে আঘাত

ওরা দখলবাজ।

দেশমাতা ওদের কাছে ধর্ষিত বারংবার।

ওরা দখলবাজ,দখল করে অন্যের ভূমি,

অন্যের......

রণক্লান্ত

রণক্লান্ত

রণক্লান্ত

জাহাঙ্গীর বাবু


স্বদেশে বিদ্রোহী নই তবু আমি রণক্লান্ত 

স্বদেশী শ্রমিক দুই যুগ প্রবাসী ছিলাম

মাতৃভূমের শ্রম বাজারে নিঃস্ব সর্বশান্ত।

আসানসোলের রুটির দোকানে নয়,

মরু প্রান্তরে কেটেছিল সূর্যের উদয় থেকে অস্ত।

ভীনদেশের ডামাডোলে কেটেছে দিন,রাত সমস্ত।

জন্মভূমে বাঁচিতে চাহিয়া কবিতার চরণ নির্লজ্জ

হে বিদ্রোহী কবি সম্রাট,আমি আজ স্বদেশে বিবস্ত্র!

ওপারে ভালো থেকো দেখা হবে হয়তো

শিষ্যরে......

জাঁহাপনা সব দোষ আপনার

জাঁহাপনা সব দোষ আপনার

জাঁহাপনা সব দোষ আপনার

জাহাঙ্গীর বাবু


জাঁহাপনা বাংলা বিহার উড়িষ্যার স্বাধীন নবাব মির্জা মুহাম্মদ সিরাজ-উদ-দৌলা আমার মনে হয় সব দোষ আপনার

মরহুম জাঁহাপনা

আপনার অপরিনত বয়স,অভিজ্ঞতার অভাব,আর চারপাশের বেইমানদের জন্য আজো স্বাধীনতাহীনতায় ভুগছি।

জাঁহাপনা,

আপনার পরাজয়ে আজো পরাজিত আমরা। আপনার নানা ইংরেজদের বানিজ্য করতে না দিলে ইংরেজ এই ভারত বর্ষে দুইশত বৎসর রাজত্ব করতোনা।

ইংরেজ যাবার বেলায় যে গিটঠু লাইগাইয়া গেছে সে গিটঠু আজো ছুটে নাই। 

কাশ্মীরের প্যাচটাই দেখেন এক কাশ্মীর তিন খন্ড, 

এক বাংলা......

গুলালে দেখি কাশ্মীরি স্বাধীনতা

গুলালে দেখি কাশ্মীরি স্বাধীনতা

গুলালে দেখি কাশ্মীরি স্বাধীনতা

জাহাঙ্গীর বাবু

লড়ে মর বীর।

লজ্জা কর,ওহে ক্ষমতা ধর।

জালিমের জুলুম শুধুই দুনিয়ায়,

হবে হিসাব আখেরাতে,মজলুম,ধৈর্য্য ধর।

শুনেছি রক্তাক্ত কারবালার কাহনী

হিটলার,মুসোলিনী

শুনেছি হিরোশিমা নাগাসাকি-

শুনেছি ভারত বাংলার রায়ট

চোখে ভাসে রক্ত সাগর পাড়ি দেয়া

আমাদের স্বাধীনতা,মুক্তির সংগ্রাম,

রক্তাক্ত মুসলিম জাহান,ইরাক,আফগান,

ফিলিস্তিন,দেখেছি মিয়ানমার,সিরিয়া

......

বন্ধু

বন্ধু

বন্ধু

জাহাঙ্গীর বাবু

বিপদের বন্ধুই প্রকৃত বন্ধু।

বন্ধু পায় ক'জন?

বন্ধু থাকে অনেক তবে

কে প্রকৃত জন?

দুঃসময়ের বন্ধু,বন্ধু বটে

বন্ধু চিনে ক'জন?

রক্ত চক্ষুও বন্ধু বটে

বিপদের বন্ধুই বন্ধু সুজন।

চাওয়া নেই,পাওয়া নেই

বন্ধু সে হয়

দুরের হোক, কাছের হোক

বন্ধুই বন্ধু রয়।

ভাই বেরাদার বন্ধু বটে

রক্তের হিসাব বড় কড়া,

হিস্যার লড়াইয়ে ভাই গিরি 

একেবারে......

গুজব আজব গজব

গুজব আজব গজব

গুজব আজব গজব

জাহাঙ্গীর বাবু


গুজব আজব গজব

ফায়দা লুটে বদ!

বউ জামাইয়ের ঝগড়া

আওয়াজ ছেলে ধরা!

প্রেম পরকীয়ার প্রতিশোধ

ছেলে ধরা গুজব!

নেশা গ্রস্থ নষ্ট লোক সমস্ত

ছেলে ধরা গুজবে ব্যাস্ত!

নষ্ট রাজনীতির ফাউল গেম

ছেলেধরা ব্লেম!

সাতাশ হাজার কোটি লুট 

শেয়ার মার্কেট থেকে;

প্রিয়া-টাম্প ইস্যু শীতল হচ্ছে!

পদ্মা সেতুতে লাগবে মাথা

ছড়ালো প্রপাগান্ডা

......

অভিশাপ দাও মা

অভিশাপ দাও মা

অভিশাপ দাও মা 

জাহাঙ্গীর বাবু

মা

তোমাকে বাঁচতে দিলাম না!

সন্তান তোমার

তোমার ভাগ্যে অপবাদ 

তুমি ছেলে ধরা!

পিটিয়ে তোমায় মারলো যারা

তারা কি মানুষ ছিল!

নাকি তুমি ছিলে মানুষ!

এ দেশ আমার মাতৃভুমি

এ যে আমার দেশ

তবু আমি ভাবি

এটা কি মানুষের দেশ?

কোন বর্বর যুগে আছি মা!

ওপারে ভালো থাকবে

ওখানে মানুষ নেই আমার বিশ্বাস

আত্মাদের সাথে......

দেশদ্রোহী

দেশদ্রোহী

দেশদ্রোহী

জাহাঙ্গীর বাবু


প্রিয়া সাহা কার এজেন্ট,উদ্দেশ্য কি তার?

আমেরিকার একটি বাড়ির দামে 

বেঁচে দিল সমভ্রম দেশ মাতৃকার!

সতের কোটি ঘৃনার চোখ খুঁজছে

তোমাকে।তুমিতো চুনুপুটি,বেয়াদব

হারামী অস্মান করো,রক্তের বিনিময়ে

অর্জিত  লাল রক্তের সবুজ ভূমির পতাকাটিকে।

রক্ত লাল আমার মুক্তিযোদ্ধাদের রক্ত।

লাল সূর্য্য,উদীয়মান বাংলাদেশের চিহ্ন।

সবুজ জমিন আমার মায়ের আঁচল

সবুজ জমিন আমার......

আমৃত্যু স্বপ্নেই ছুঁয়ে দেখব কি ক্রিকেট বিশ্বকাপ

আমৃত্যু স্বপ্নেই ছুঁয়ে দেখব কি ক্রিকেট বিশ্বকাপ

আমৃত্যু স্বপ্নেই ছুঁয়ে দেখব কি ক্রিকেট বিশ্বকাপ

জাহাঙ্গীর বাবু


পঞ্চ পান্ডবের দিন শেষ,আশাহত নই,

তবু ভাবনার আকাশে ভাবনা

আরকোন দিন জ্বলবে কি সম্ভাবনা !

আবার কবে খেলবে সেমিফাইনালে

কবে খেলবে ফাইনালে?

ততদিন হয়তো বাঁচবোনা

তাই এখনো অধরা বিশ্বকাপ,

স্বপ্নেই ছুঁয়ে দেখি ক্রিকেট বিশ্বকাপ।

সময় কি বার বার আসে,

দু'হাজার উনিশ তলানি থেকে উঠেছিলে পাঁচে।

ভারত বধ ধরে নিয়েছিলাম এটাই এবারের বিশ্বকাপ,

......

যাদুকরের মৃত্য খেলা দেখছে বুঝি মন্ত্রের আবেশে!

যাদুকরের মৃত্য খেলা দেখছে বুঝি মন্ত্রের আবেশে!

যাদুকরের মৃত্য খেলা দেখছে বুঝি মন্ত্রের আবেশে!

জাহাঙ্গীর বাবু

এগিয়ে আসেনা কেউ!  যাদুকরের 

মৃত্য খেলা দেখছে বুঝি মন্ত্রের আবেশে!

হিপ্টোনাইজ কি আমি,আমরা!

ওহ! কি নৃশংস,কি  বিভৎস খুন!

স্ত্রীর চোখের সামনে!প্রিয়জনের

অক্ষিগোচরে নিজেই দেখি নিজের মৃত্যু !

এই রক্তাক্ত অনিরাপদ  জনপদে হয়তো এর পরই আমার রক্তাক্ত লাশ দেখে হাসবে কেউ,হয়তো হবেনা ছবি,

হবেনা ভিডিও ভাইরাল।পাবেনা কিঞ্চিত বিচার।

যদিও মৃত্যুর পর বিচার হলেই কি না হলেই কি?

......

ক্রিকেট বিশ্বে লাল সবুজের হোক নতুন সূর্য্যদয়

ক্রিকেট বিশ্বে লাল সবুজের হোক নতুন সূর্য্যদয়

ক্রিকেট বিশ্বে লাল সবুজের হোক নতুন সূর্য্যদয়

জাহাঙ্গীর বাবু


ক্রিকেট বিশ্বকাপ 

প্রাপ্তির দ্বার প্রান্তে বাংলার বাঘ।

হারাবার নেই,প্রাপ্তিই প্রত্যাশা।

হার জিতে নাই ভয়,

হোক জয় আর পরাজয়।

সাথে আছি থাকবো,আনন্দে হাসবো,

এক সাথে কাঁদবো,

তোমরা আমাদের বীর সন্তান

বয়ে আনবে বিজয়ী সন্মান।

প্রত্যাশা,দুঃস্বপ্ন নয়,অসীম নয় 

যোজন দূর নয়,স্বাভাবিক এখন।

দাও হুংকার,বাংলার টাইগার

......

মেন্টেনেন্স ডিপার্টমেন্ট কাজ করে কি?

মেন্টেনেন্স ডিপার্টমেন্ট কাজ করে কি?

মেন্টেনেন্স ডিপার্টমেন্ট কাজ করে কি?

জাহাঙ্গীর বাবু

বৃষ্টির পানি কাদা জলে হয় রাস্তার কাজ!ঢালাই কত কম দেয়া যায়,রড কত কম দেয়া যায়,যত নিন্মমানের সামগ্রী ব্যাবহার করা যায় দেশীয়  ঠিকাদারের শকুনের চোখ সে দিকে। যত সস্তায় কর্মচারী, যত সস্তার মালামাল ব্যাবহার করা যায় তার নির্দেশনা থাকে উপর মহলের। কাজের পুর্বে পি সি মানি পাস করতে হবে নয়তো কাজ, কাজের মাঝেই ব্যাঘাত,উৎপাত, আশ্চর্য্য এক সিস্টেমে আছি।বিদেশে কিন্তু এই ছেছরামি নেই।কাজের কোয়ালিটিটা শত ভাগ। সেই সাথে রক্ষনাবেক্ষন তথা মেইন্টেনেন্স ও।এ দেশের বিদেশী কাজ গুলো ভালো হচ্ছে বলা যায়। যেমন......

শরনার্থী

শরনার্থী

শরনার্থী 

জাহাঙ্গীর বাবু


সীমাবদ্ধ সময়ের জীবনে

এই পৃথিবীর বুকে আমি এক শরনার্থী।

আমি এক পরিযায়ী প্রাণী,এক যাযাবর।

বেঁচে থাকার আভিলাষে

ঘর ছড়ে পথে,গ্রাম থেকে শহর

দেশ ছেড়ে সীমানার ওপারে

বিদেশ বিভূঁইয়ে।

ফিরে আসা শেকড়ে,ফিরে যাওয়া প্রবাসে।

দেশে ছেড়ে যাওয়াই পরবাস নয়

আপনজন ছেড়ে থাকাই পরবাস।

একটু স্বস্তির নিঃশ্বাসের লোভে

একটু ভালো থাকার লিপ্সায় 

দেশে......

স্যার,আপনার সেই অনুষ্ঠানে প্রবাসীদের প্রতি শিষ্ঠাচার ছিলো কি?

স্যার,আপনার সেই অনুষ্ঠানে প্রবাসীদের প্রতি শিষ্ঠাচার ছিলো কি?

জাহাঙ্গীর বাবু ,হ-বাংলা নিউজ : স্যার,আপনার সেই অনুষ্ঠানে প্রবাসীদের প্রতি শিষ্ঠাচার ছিলো কি ? মজায় মজায় কোটি প্রবাসীর বুকে নীরব রক্ত ক্ষরণ,প্রকাশ্যে প্রতিবাদ।বোঝার ভূল,নাকি বুঝানোর ভূল। নাকি প্রবাসী রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের নিয়তি।পারিবারিক আর কর্ম জীবনের জটিলতায় ভিডিও দেখলাম দেরীতে।তাই কলমের প্রতিবাদও দেরীতে।

আবু সায়্যিদ স্যারের সেই অনুষ্ঠানে পাশে শিমুল মোস্তফা,হেলাল হাফিজ আর দর্শক শ্রোতার সারিতে নিঃসন্দেহে দেশের সেরা শিক্ষিত জনেরা। আচ্ছা......

অনাথ রোগ

অনাথ রোগ

অনাথ রোগ

জাহাঙ্গীর বাবু

এতিম হলাম এইতো সেদিন

আব্বা নেই জীবন অন্ধকার এখন।

ইচ্ছে ছিল আব্বার, দেখবে আমায় সুখী

এখন এতোই সুখী,বিদেশ ছেড়ে

স্বদেশেই শ্রমের ফেরি করি।

আব্বা চাইতেন থাকি দেশে, 

থাকি তার কাছাকাছি;

দেশে কাজটা হোক পাকাপোক্ত, 

শেষ বেলায় তাইতো আমায় ডাকেনি।

আব্বা নেই,দোয়া করবেনা,

সাহস দেবে আর ;হতভাগ্য সেই ছেলে,

আব্বা নেই যার! 

বুকের বাম পাশের ব্যাথার সাথে 

সকল শিশুর জন্য আগামীর পৃথিবী হোক নিরাপদ

সকল শিশুর জন্য আগামীর পৃথিবী হোক নিরাপদ

সকল শিশুর জন্য আগামীর পৃথিবী হোক নিরাপদ

জাহাঙ্গীর বাবু

ধনীর শিশু দোলনায়

গরীবের শিশু ধুলো,কাদায়!

তোমার শিশু যায় স্কুলে

গরীবের শিশু ইট ভাঙ্গে

চায়ের দোকানে,নয় কারখানায়,

তোমার শিশুর খেলনা কুড়ায়।

ওই দরিদ্র শিশু,

দুমুঠো খাবারের আশায়!

একটু ভুলে খুন্তির ছ্যাকায়,

গরম পানিতে,আগুনে ঝলসে যায়!

শিশু শ্রম নিষিদ্ধ করে সরকার।

অন্ন বস্ত্র বাসস্থানের আশায়

শিশু শ্রমওযে দরকার!

বিক্রীত দাস

বিক্রীত দাস

বিক্রীত দাস

জাহাঙ্গীর বাবু


বিকি কিনির হাঁটে বিক্রি হই 

কম দামে,প্রতিভাই নাকি শত্রু, 

হেরে যাই যোগ্যতার মূল্যায়নে! 

বহু জানি বলে অজানা বহুত!

অধরা,অধুরা জীবন কাহিনী! 

শোষনের কারখানায় শোষিত 

চিরকাল! শাসকের চাবুক টাকায়

পাকানো! স্বেচ্ছায় পানকরি 

পানকৌড়ির কারাবাস, পায়ে পরি

বেড়ি;চিৎকার করি,সাধু সাজি,

নিয়ম খুঁজি অনিয়মের হাঁটে! 

নীতিবাক্যের কবিতার বলৎকার

ঈদ তুমি কার?

ঈদ তুমি কার?

ঈদ তুমি কার?

জাহাঙ্গীর বাবু 


ঈদ তুমি কার?

উত্তর, আছে যার ভুরি ভুরি;

ঈদ শুধুই তার।

ঈদ তুমি কার?

উত্তর, ঈদ তুমি খরচের খাতার;

যে খাতার মালিক ধনী, শুধুই তার।

ধনী

অর্থে,বিত্তে,ঐশ্বর্যে -

হোক দূর্ণীতিবাজ,চোরাকারবারী।

মনের ধনী

সকাশে প্রকাশ্যে সে দরিদ্র বটে।

ঈদ  নও কার?

উত্তর, লজ্জার,বিব্রত হওয়ার।

অথচ কথা ছিল;অথচ ধর্মেও আছে,

ঈদ, ধনী,গরীব......

সর্বাধিক পঠিত