প্রবাসী লেখকদের কলাম

Displaying 41-60 of 552 results.
ঘরে থাকুন,নিজের পরিবারের মৃত্যুর কারন হবেন না!  লাশের পাশে আপনিই যাবেন না,যেতে পারবেন না।

ঘরে থাকুন,নিজের পরিবারের মৃত্যুর কারন হবেন না! লাশের পাশে আপনিই যাবেন না,যেতে পারবেন না।

জাহাঙ্গীর বাবু, হ-বাংলা নিউজ : এ সময়ে প্রতিটি পরিবার নিশ্চিত করবে তার পরিবারের ঘরে থাকা,সময়টা স্বাভাবিক নয় বুঝতে হবে। শহরের পাশাপাশি গ্রামে ঘরে ঘরে আত্মঘাতী করোনার বিস্তার চলছে মহাসমারোহে।

সময়, সুযোগ থাকার পর ও পরিবারের লোকজন করোনার ভয়াবহতা বুঝার চেষ্টা করেন না,করছেন না,আফসোস ও কম পড়ছে তাদের জন্য।আমি নিজেই দেখছি এগিয়ে আসছে আমার দিকে মৃত্যু দানব। যদিও প্রতি মুহুর্তেই মৃত্যু মুহুর্ত।আজরাইলতো আছেই আল্লাহর ইশারার।

মৃত্যু! গাড়িতে উঠতে,রাস্তা পার হতে,গাড়িতে চলতে,চড়তে কখন জানিনা,এই দেহে ডায়াবেটিক সহ কত রোগের বাস,বেঁচে আছি মহান স্রষ্টার করুণায়।......

মরলে করোনায়,কবরেও কেউ আসেনা!

মরলে করোনায়,কবরেও কেউ আসেনা!

মরলে করোনায়,কবরেও কেউ আসেনা!


জাহাঙ্গীর বাবু


শেষ যাত্রায় পাবেনা গোসল

পাবেনা জানাজায় মানুষ,

কবরে নামাবে রশি,বাঁশে

কি মহামারি করোনা এলো বিশ্বে!

যাচ্ছেন এক শহর থেকে অন্য শহর

হোক ঢাকা,নারায়ণগঞ্জ, মুন্সী গঞ্জ

চায়ের আড্ডা,হাট-বাজার,কর্মক্ষেত্রে

নিত্য আনাগোনায় থাকছেন কি করোনা মুক্ত!

ডাক্তার থাকতে চান দূরে

তার জীবনের গ্যারান্টি কে দেবে?

হাসপাতাল নেবেনা চিকিৎসা

......

হে দানব চীন, তোমার আগ্রাসী জংলীপনা এক্ষুনি থামাও।

হে দানব চীন, তোমার আগ্রাসী জংলীপনা এক্ষুনি থামাও।

খান শওকত, হ-বাংলা নিউজ : মনটা ভালো নেই। খুব কান্না পাচ্ছে। কেন জানি বলতে ইচ্ছে করছে: কম খরচে যুদ্ধজয়ের মরনঘাতি মারনাস্ত্রের নাম করোনা ভাইরাস। ঘর বাড়ি সব অক্ষত থাকবে, শুধু মানুষ মরে শেষ হয়ে যাবে।

২০১৯ সালের ১০ই ডিসেম্বরে প্রথম করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন চীনের হুবেই প্রদেশের ৬৭ বছর বয়সী নারী ওয়েই গুইশিয়ান। তিনি উহান শহরে বাজারে চিংড়ি মাছ বিক্রি করতেন। তিনি এখনো বেচে আছেন।

করোনা ভাইরাসটি অন্যসব ভাইরাস থেকে ১০ গুন বেশী ভারী। তাই উড়ে চলে যাচ্ছেনা। মাটিতে পড়ে থাকছে। পুকুরে বা নদীতে থাকছে, মাছেরা খাচ্ছে, ফসলের সাথে মিশে যাচ্ছে, ফল মুলের সাথে মিশে......

হে করোনা ভাইরাস

হে করোনা ভাইরাস

হে করোনা ভাইরাস


শরিফ হাসান  


হে করোনা ভাইরাস, তোমার কি নেই করুণার রেশ?

সারাদিন বন্ধ ঘরে দিন গোনা

পুরনো দিনের গান শোনা

স্মৃতির রোমন্থনে অলস আনমনা।

বল, কবে হবে এর শেষ?

দাও ফিরিয়ে গতিময় মুক্ত জীবন

বন্ধ কর মৃত্যুর মিছিল সহ্স্র মরণ।

হে করোনা ভাইরাস, কখন বাজাবে বিদায়ের ঘন্টা তোমার?

আমরা তিক্ত, অতিষ্ঠ, পারছিনা আর!

...

ক্ষমা করে দিয়েন

ক্ষমা করে দিয়েন

খান শওকত, হ-বাংলা নিউজ : মনটা ভালো নেই। খুব কান্না পাচ্ছে। কেন জানি বলতে ইচ্ছে করছে: কম খরচে যুদ্ধজয়ের মরনঘাতি মারনাস্ত্রের নাম করোনা ভাইরাস। ঘর বাড়ি সব অক্ষত থাকবে, শুধু মানুষ মরে শেষ হয়ে যাবে।

করোনা ভাইরাসটি অন্যসব ভাইরাস থেকে ১০ গুন বেশী ভারী। তাই উড়ে চলে যাচ্ছেনা। মাটিতে পড়ে থাকছে। পুকুরে বা নদীতে থাকছে, মাছেরা খাচ্ছে, ফসলের সাথে মিশে যাচ্ছে, ফল মুলের সাথে মিশে যাচ্ছে। আবারো তা ফিরে আসবে আমাদের শরীরে। হয়ত একটি সময় থেমে যাবে করোনা ভাইরাসের এই ভয়াবহতা। কিন্তু এই বিষাক্ত জৈবজীবানুর জন্য অনেকদিন পর্যন্ত সবজী, ফল, মাছ, গবাদীপশু, বিকলাঙ্গ শিশুর......

করোনায় বদলে দিয়েছে বিশ্ব!

করোনায় বদলে দিয়েছে বিশ্ব!

করোনায় বদলে দিয়েছে বিশ্ব!

জাহাঙ্গীর বাবু


করোনা একটা নাম, আরো কতো

ভাইরাস মহামারী অপেক্ষায়, 

করোনায় বদলে দিয়েছে বিশ্ব!

থামিয়ে দিয়েছে পারমনবিক

আনবিক ক্ষমতার দম্ভ,

মুসলিম দুনিয়ার শিশুদের কান্নার যেন অভিশাপ।

করোনার আঘাতে যেন নিশ্বাস নিচ্ছে পৃথিবী।

ছিঁড়ে  যাওয়া সম্পর্ক দিয়েছে জোড়া 

ঠুনকো সম্পর্ক ভেঙ্গে করেছে খান খান 

রক্তের সম্পর্কে উন্নতি নয়তো টান 

হোক আশীর্বাদ হোক অভিশাপ......

কো-রো-না

কো-রো-না

কো-রো-না 

কবি মুজিব সিদ্দিকী


কে এই কো রো না !?

হঠাৎ এসে করে গেল 

তস্ নস্ ।

এটা করি ? করো না

ওটা করী ? করো না

ইসকুল ? করো না

সভা করি ? করো না

কী যে সব হয়ে গেল

সবকিছু বন্ধ ।

কারখানা বন্ধ

মসজিদ বন্ধ

যাতায়ত বন্ধ

সিনেমা বন্ধ

ডিজনী বন্ধ

থীম পার্ক্স বন্ধ

বিয়ে সাদী বন্ধ 

হায় হায় একি হলো

এই সেই শেষ দিন,

......

এবারের স্বাধীনতা দিবস পরাধীন

এবারের স্বাধীনতা দিবস পরাধীন

এবারের স্বাধীনতা দিবস পরাধীন


জাহাঙ্গীর বাবু


পরাধীন,এবারের স্বাধীনতা দিবস,

করোনা ভাইরাস এর কাছে!

বিশ্বকেও করেছে পরাধীন।

ছিড়তে পারিনি আজো পরাধীনতার জিঞ্জির!

ভাগ্যের কাছে পরাধীন আমার স্বাধীনতা!

কর্মের কাছেও পরাধীন,

অর্থ রেখেছে আজীবন গোলাম করে

ভালোবাসা সেতো পরাধীন ভালোবাসার কাছে,

জীবন সায়াহ্নে এখনো স্বাধীনতার তালাসে।

বায়ান্ন একুশ,একাত্তর,ছাব্বিশ,

সংখ্যা......

চৌদ্দ দিনের কোয়ান্টারেন

চৌদ্দ দিনের কোয়ান্টারেন

চৌদ্দ দিনের কোয়ান্টারেন


জাহাঙ্গীর বাবু 


চৌদ্দ দিনের কোয়ান্টারেন

নিজেই নিজেকে করুন আইসোলেশন।

আলাদা থাকুন,সুস্থ্য হয়ে ফিরে আসুন।

বাঁচতে পারেন,বাঁচাতে পারেন

নিরাপদে থাকুন,নিরাপদে রাখুন।

কোরোনা এক অদৃশ্য জীবানু

কোরোনা এক মরনাস্ত্র

সচেতনতাই যার প্রতিরোধের অস্ত্র।

বেশি বেশি পরিস্কার,পরিচ্ছন্ন থাকুন।

নিজের হাত জীবানুর প্রথম বাহন

বিশ সেকেন্ড সাবান দিয়ে......

ব-তে বায়ান্ন, ব-তে বাংলাদেশ, ব-তে বঙ্গবন্ধু, ব-তে বিশ্ব!

ব-তে বায়ান্ন, ব-তে বাংলাদেশ, ব-তে বঙ্গবন্ধু, ব-তে বিশ্ব!

হ-বাংলা নিউজ : বাংলার সর্ব কালের সর্বশ্রেষ্ট সন্তান, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শুভ  জন্মদিন আজ। হে মহামানব আজ তোমার জন্মশতবার্ষিকীতে তোমাকে জানাই হাজারো সালাম। আজ তুমি শুধু বঙ্গবন্ধু নও, আজ তুমি বিশ্ব বন্ধু। তোমার আদর্শ, তোমার সহজ, সরল ও দৃপ্ত পদভরে মাথা উঁচু করে অন্যায় ও অবিচারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবার সাহস, আমাদের চলার পথের পাথেয় হয়ে তোমার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে বিশ্বের বুকে তোমাকে অজয়, অমর, অক্ষয় করে রাখার শপথই হোক আজ তোমার জন্মদিনে তোমার আদর্শের সৈনিকদের উপহার!

জাতির জনকের এই শুভ জন্মদিনে......

মশার দেশে

মশার দেশে

মশার দেশে


জাহাঙ্গীর বাবু


আমি যেন চিঁড়িয়া খানার খাঁচায় বন্দী বানর,

মশা গুলো দর্শক!

মশা কিভাবে ঢুকে মশারীর ভেতর

সেই সুড়ঙ্গ খুঁজছি ফজরের নামাজের

পর থেকে পাচ্ছিনা।

দুই ঘন্টা পর, জিদে,দুই হাতের মাঝে ঠাস,ঠাস! 

যত আওয়াজ বেশি তত যেন প্রতিশোধের তৃপ্তি।

দু হাতের তালুয়,ভাগ্য রেখার মাঝে নিজের তাজা আর শুকনো রক্ত দেখি।

ডায়াবেটিকের রক্তে

প্রতি রাতে দেই ইন্সুলিন,

সেই রক্তে......

করুণাহীন করোনা

করুণাহীন করোনা

করুণাহীন করোনা

জাহাঙ্গীরবাবু


করোনা করছেনা করুণা  আঘাত হানাছে,

পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত,

আতংকে সারা বিশ্ব!

কেউ বলছে আজাব,কেউ বলছে

গজব,কেউবা অভিশাপ

ধর্মের প্রতিশোধ বলছে কেউ,

ফতোয়ার নাই অভাব 

কতো ভয়ংকর হবে মহামারীর দৃশ্য!

যে কোন রোগের নাম দিয়ে দিচ্ছে করোনা!

করোনা তাই যেন করছেনা করুণা!

বনে যাচ্ছে,ডাক্তার,বিজ্ঞানী,জ্ঞানী,

গুনী দার্শনিক,সবজান্তা পন্ডিত, 

......

বিশ বসন্তের প্রার্থনায়

বিশ বসন্তের প্রার্থনায়

বিশ বসন্তের প্রার্থনায়

জাহাঙ্গীর বাবু


প্রতি মুহুর্তের মতো 

এই মুহুর্তে ভালোবাসা নিও।

সবার মতো নয়,সিনেমাটিক নয়

রাস্তার মোড়ে,কফি হাউজে

এস্কিলেটরে নয়,ঝোপ ঝাড়ে

বন বাঁদাড়ে পাবলিক প্লেসের

ভাড়া করা ভীন দেশী আবেদনময়ী 

আত্যাধুনিক ভালোবাসা নয়,

আমার মতো 

আমার অফুরান ভালোবাসা 

সেই আগের মতো তোমারই জন্য

সেই নিখাদ ভালোবাসা টুকু নিও ।

তোমাকে ভালোসার বিশ বসন্তে 

......

স্বপ্নের বিশ্বকাপ

স্বপ্নের বিশ্বকাপ

স্বপ্নের বিশ্বকাপ 

জাহাঙ্গীর বাবু 


আমরা খেলেই জিতি ,ওরা  বলে দুর্ঘটনা 

ওরা  আমাদের ত্রূটি  খোঁজে 

যেমন ব্রাম্মণ  আর শূদ্রের ফারাক ?

যেমন ধনী  আর গরীবের ব্যবধান  !

কতবার তীরে এসে তরী ডুবেছে আমাদের

কতবার কেঁদেছি নীরবে কতবার হাউমাউ করে ! 

আমরাই যেন ধরে রাখতে পারিনা 

নিজেরাই নিজেদের। ওদের জয়োল্লাস 

উল্লাস ,আমাদের উল্লাস বেমানান !

ওরা আমার বিজয় উল্লাসে বাধা দেয়

ওরা ......

থুক

থুক

থুক 

জাহাঙ্গীর বাবু


সাংবাদিকের রক্তাক্ত মুখ

যারা করেছে এই আঘাত

তাদের মুখে থুক।

এই রক্তাক্ত মুখ দেখে

যে সাংবাদিক চুপ

তার মুখে ও থুক।

হোক সে অনলাইন সাংবাদিক 

সে তো কলম সৈনিক

রক্ত যদি ঝরেই ভোট বন্ধ হোক।

গনতন্ত্র এক শিরোনাম কাগজের,

গনতন্ত্র এক নাম,  অসুখ মগজের!

ভোট লড়াইটা ক্ষমতার অক্ষমতার।

কি দরকার রক্ত ঝরাবার

কি দরকার মিছিলে......

হে আল্লাহ এ আরজি টুকু রাখিও

হে আল্লাহ এ আরজি টুকু রাখিও

হে আল্লাহ এ আরজি টুকু রাখিও


জাহাঙ্গীর বাবু


মাহফিল গুলোতে গীবত

প্যারোডি অনন্য সংযোজন,

সরে যাচ্ছি কি যোজন যোজন!

ইংলিশ,বাংলিশ,হিন্দী,উর্দু ছাড়া

গরম হয়না বয়ান,মৃত্যুর আগে

কি হারাবো ঈমান!

মায়ের ভাষা বাংলা আমার,

আরবী ভাষায় কোরান,

বিশ্বের ভাষায় ইংরেজী এগিয়ে,

মিশ্র বয়ান আমার সামনে!

ওরা কতিপয় মিথ্যা,বানোয়াট গল্প জুড়ে

বুজুর্গী ঝাড়ে,নিজেরে জাহির করে

মুজিব বর্ষ গনণা ইতিহাসের বদলা

মুজিব বর্ষ গনণা ইতিহাসের বদলা

মুজিব বর্ষ গনণা ইতিহাসের বদলা


জাহাঙ্গীর বাবু



ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করেনা

তাই কবি আজও

ওপারে থেকেও এ পারে

ওরা নিশ্চিহ্ন করতে চেয়েছিলো

সময় লেগেছে,ফিরে এসেছে

তর্জনীর ইশারা বজ্র কন্ঠের কালজয়ী কবিতা

কন্ডেম সেলের প্রকোষ্ঠ 

মুক্তির  পিপাসায় তৃষ্ণার্ত করে তুলেছিল

এই দেশের মাটিও মানুষদের

কবি তার কবিতায় বলেছিলেন,

'এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম

......

হে মহাকাল

হে মহাকাল

হে মহাকাল

ফজলুল কাদির


আমি ছিলাম ধ্যানে, বীণা হাতে একান্তে

কা নজংঘা বুকে ধারণ করে তার

সর্বোচ্চ শেখরে বসে মগ্ন সাধনে সুরের দিব্যজ্ঞান

হঠাৎ একটা করুন আর্তনাদে কে যেন বলে যায়

“হে বন্ধু বিদায়”! পেছন ফিরে দেখি

মহাকাল তার নিষ্ঠুর হাতে নিজ বুকে দিয়েছে ঠুকে

আরও একটি কঠিন পেরেক কেড়ে নিয়ে গেল

আরও একটি বছর চিরতরে

রক্তাক্ত ক্ষত বিক্ষত হৃদয়ের জমিন

অসহায় নির্বোধ চিত্তে তাকিয়ে থাকি অর্থহীন দীর্ঘ নিঃশ্বাসে

......

কষ্ট মুখে একটু হাসি ফোটাই

কষ্ট মুখে একটু হাসি ফোটাই

কষ্ট মুখে একটু হাসি ফোটাই

জাহাঙ্গীর বাবু 



শীত এসেছে ঝেঁকে

যাচ্ছে শরীর বেঁকে

শীতের কাপড় নেই যার

শীত শত্রু যে তার।

ফুটপাতে কাতরায় শীতে

খোলা আকাশের নীচে থাকে,

ত্রাণের কম্বল যদি জোটে

ফাটা ঠোঁটে হাসি ফোটে।

ঝড়,বৃষ্টি,বন্যা,ক্ষরা,রোদের তাপ

শীত কাঁপায় বাপরে বাপ,

এসো শীতার্তের পাশে দাঁড়াই

কষ্ট মুখে একটু হাসি ফোঁটাই।

ইসলাম বলে, 

বিজয়ের আনন্দ হোক আমার ভাষায়

বিজয়ের আনন্দ হোক আমার ভাষায়

বিজয়ের আনন্দ হোক আমার ভাষায়

জাহাঙ্গীর বাবু


দোহাই অপ সংস্কৃতির অনুকরনে

ভিন্ন সংস্কৃতি আমদানী করে

ইংরেজী,হিন্দী গানের তালে 

বিজয় উল্লাস করবেন না। 

অন্তত নিজেদের দিবস গুলিতে

ভীন সংস্কৃতি মুক্ত থাক আমার মাতৃভূমি স্বদেশ।

লক্ষ লক্ষ শহীদের রক্তের বলিদানে

হাজারো মা বোনের সম্ভ্রমের বিনিমিয়ে

বিশ্ব মাচিত্রে নিজস্ব সীমানা অর্জিত হয়েছিল সে দিন, 

উন্নিশো একাত্তর ষোল ডিসেম্বর।

সে......

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ