যদি সুস্থ থাকতে চান

Displaying 141-160 of 743 results.
গর্ভাবস্থায় যেসব ফল খাওয়া জরুরি

গর্ভাবস্থায় যেসব ফল খাওয়া জরুরি

হ-বাংলা নিউজ: গর্ভাবস্থায় খাবার খাওয়ার বিষয়ে একটু সতর্ক হতেই হয়। কিছু খাবার ভ্রুণের ক্ষতি করে। আবার কিছু খাবার মা ও গর্ভস্থ শিশু দুজনের শরীরে শক্তি জোগায়।

ভিটামিন ও পুষ্টি পেতে গর্ভাবস্থায় কিছু ফল খাওয়া জরুরি। তবে গর্ভাবস্থা যেহেতু বেশ স্পর্শকাতর বিষয়,তাই যেকোনো ফলই শরীরের অবস্থা বুঝে খাবেন।

জীবনধারাবিষয়ক ওয়েবসাইট বোল্ডস্কাইয়ের স্বাস্থ্য বিভাগে জানানো হয়েছে যেসব ফল গর্ভাবস্থায় জরুরি সেগুলোর কথা।

আঙ্গুর : অনেকে ভাবেন গর্ভাবস্থায় আঙ্গুর খাওয়া ঠিক নয়। তবে আঙ্গুরে রয়েছে ভিটামিন এ। ফোলেট, পটাশিয়াম, ফসফরাস,......

পৃথিবীর অর্ধেক রোগীর মৃত্যু মরফিনের অভাবে

পৃথিবীর অর্ধেক রোগীর মৃত্যু মরফিনের অভাবে

হ-বাংলা নিউজ: সারা পৃথিবীতে প্রতি সেকেন্ডে প্রায় দুই জন মানুষের মৃত্যু হয়। এক ঘণ্টায় মারা যায় সাড়ে ছয় হাজারের মতো মানুষ। আর একদিনে মৃত্যু হয় দেড় লাখেরও বেশি মানুষের। সারা বছরের হিসাব করলে এই সংখ্যা দাঁড়ায় সাড়ে পাঁচ কোটি।

সব থেকে আশ্চর্যজনক তথ্য হলো, এই মৃত্যুর অর্ধেকই হয় মরফিনের অভাবে! সমপ্রতি চালানো এক গবেষণায় দেখা গেছে, এসব মৃত্যুর অর্ধেকই হয় ব্যথায়, শুধু ব্যথানাশক ওষুধ মরফিনের অভাবে। দরিদ্র দেশগুলোতে এই মৃত্যুর হার সবচেয়ে বেশি।

ব্রিটেনের বিজ্ঞান বিষয়ক সাময়িকী দ্যা ল্যানসেটের উদ্যোগে এই গবেষণাটি পরিচালিত......

ক্যান্সার রোধ করতে খান কাঁকরোল

ক্যান্সার রোধ করতে খান কাঁকরোল

কাঁকরোল। জনপ্রিয় একটি সবজি। বৈজ্ঞানিক নাম Momordica cochinchinensis। এর আদি উৎস ভিয়েতনাম হলেও চাষ হয় প্রায় কম বেশী সব দেশেই। বাংলাদেশেও পাওয়া যায় সবখানেই।  নানাবিধ পুষ্টিগুণের কারণে একে 'স্বর্গীয় ফল'ও বলা হয়ে থাকে। শরীরকে সুস্থ রাখতে কাঁকরোল খাওয়া উচিৎ।

কাঁকরোলের কিছু বিশেষ গুণের দিক তুলে ধরা হলো পাঠকদের জন্য।

* গর্ভবতী মা'দের জন্য কাঁকরোল বেশ উপকারী। গর্ভাবস্থায় অনেক মা'দের স্নায়ুবিক ত্রুটি দেখা দেয়। কাঁকরোলে থাকা ভিটামিন বি ও সি স্নায়ুবিক ত্রুটি হতে বাধা দেয়।

* শুধু কাঁকরোল নয় এর শেকড়ের রস আদার সঙ্গে খেলে শ্বাসকষ্ট দূর হয়।

* কিডনির পাথর নির্মূলে দুধের সঙ্গে......

শীতে যখন খুশকির সমস্যা

শীতে যখন খুশকির সমস্যা

চুলের অস্বস্তিকর একটি সমস্যা হলো খুশকি। সেবোরিক ডার্মাটাইটিসকে বাংলায় আমরা খুশকি বলে থাকি। খুশকি মাথার চুলের পাশাপাশি নাকের চার পাশে, চোখের পাপড়িতে, আইব্রোতে, কানে ও বুকেও হতে পারে। স্বাভাবিক প্রক্রিয়াতে আমাদের ত্বকের মৃতকোষগুলো ঝরে। মাথার ত্বকের এ মৃত কোষগুলোই খুশকি।

এছাড়া শীত মৌসুমে বাতাসের আর্দ্রতা কম থাকার ফলে খুশকি বেশি হয়। কখনো কখনো খুশকির পাশাপাশি মাথার ত্বকে ছোট ছোট দানার মতো গোটা হয়ে থাকে এবং মাথার ত্বকে চুলকানি হয়। তবে একটু সচেতন হলেই খুশকির এ সমস্যার সমাধান সম্ভব।

খুশকির কারণ যাই হোক না কেন, খুশকি থেকে মুক্তি পেতে প্রয়োজন বিশেষ ধরনের শ্যাম্পু।......

ডায়রিয়ায় কী ওষুধ খাবেন?

ডায়রিয়ায় কী ওষুধ খাবেন?

হঠাৎ ডায়রিয়া বা পাতলা পায়খানা হলে অনেকে এটি থামাতে নানা ধরনের ওষুধ খেতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। আসলে বেশির ভাগ ডায়রিয়ায় কোনো ওষুধ খাওয়ার প্রয়োজন নেই। কেবল যে পানি ও লবণ শরীর থেকে বেরিয়ে যায়, সেটা খাওয়ার স্যালাইন দিয়ে পূরণ করলেই চলবে। বেশির ভাগ ডায়রিয়া নিজে থেকেই সেরে যায়।

তবে বাজারে ডায়রিয়া বন্ধ করার কিছু ওষুধ প্রচলিত আছে। দোকানে গেলে দোকানি এগুলো ধরিয়ে দেন। অনেকে শুনে শুনে খান। যেমন লপেরামাইড, কোডিন-জাতীয় ওষুধ। অনেকে আবার সিপ্রোফ্লক্সাসিন বা অ্যাজিথ্রোমাইসিন ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক খেয়ে ফেলেন। ফ্লাজিল বা মেট্রোনিডাজলও খুব প্রচলিত। কিন্তু মনে রাখবেন, প্রয়োজন ছাড়া......

পিজা খেয়ে কমবে ওজন!

পিজা খেয়ে কমবে ওজন!

ওজন বেড়ে যাচ্ছে। তাই মন খারাপ করেই বাদ দিতে হয়েছে প্রিয় খাবার পিজা। শুধু তাই নয়, আইসক্রিম, পাস্তা, নুডলস সব বাদ গেছে খাবার তালিকা থেকে। কিন্তু গবেষকরা বলছেন ভিন্ন কথা। পিজা খেয়েই নাকি ওজন কমানো সম্ভব, এমনটাই জানিয়েছেন তারা।

পর্তুগালে করা একটি গবেষণায় নিশ্চিত করা হয়েছে যে পিজা, আইসক্রিম, পাস্তা ইত্যাদি পছন্দের খাবারগুলো খেয়েও ওজন কমানো সম্ভব। কিন্তু প্রতিদিন নয়, সপ্তাহে একদিন নিজের ডায়েটের সঙ্গে প্রতারণা করা সুযোগ আছে বলে জানান গবেষকরা।

গবেষণার খাতিরে দুই ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে মানুষকে। একটি দলে ওজন কমানোর ডায়েটে ‘চিট মিল’ হিসেবে পিজা, পাস্তা আইসক্রিম এর মতো......

দ্রুত ওজন কমায় বাঁধাকপি

দ্রুত ওজন কমায় বাঁধাকপি

ওজন নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভোগেন না এই পৃথিবীতে এমন লোক খুবই কম আছে। সাধারণত অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, নিয়মিত ব্যায়াম না করা, হরমোনের ভারসাম্যহীনতা, মানসিক চাপ ইত্যাদি কারণে ওজন বাড়ে। আর এই ওজন কমাতে ডায়েট ও ব্যায়াম খুব গুরুত্বপূর্ণ। তবে দ্রুত ওজন কমাতে চাইলে খাদ্য তালিকায় প্রথমেই রাখুন বাঁধাকপি। শীতকালীন সবজিগুলোর মধ্যে বাঁধাকপি এমন একটি সবজি, যা খেলে দ্রুত ওজন কমে। আবার এটি শুধু সহজলভ্যই নয়, দামেও সস্তা। পুষ্টিবিদরা বলেন, অনেক পুষ্টিগুণের সমাহার হলো বাঁধাকপি। সবজিটি নানা ধরনের ভিটামিনে সমৃদ্ধ। আছে প্রচুর পরিমাণ আঁশ। ক্যালশিয়াম, আয়রন, সালফার, ফসফরাসসহ আছে প্রয়োজনীয়......

যা খেলে ওজন কমবে

যা খেলে ওজন কমবে

অনেক খাবেন কিন্তু ওজন বাড়বে না, এমন খাবার আবার আছে নাকি? সব সময় ক্যালরি মেপে খেতে কার ভালো লাগে। তাই এবার ডায়েট তালিকায় যুক্ত করে নিতে পারেন তেমনই কিছু খাবার।

মাছ ওজন কমাতে সাহায্য করে

মাছ

ওজন কমানোর জন্য পুষ্টিবিদেরা বেশির ভাগ সময় মাছ খেতে পরামর্শ দেন। তৈলাক্ত মাছের মধ্যে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে, যা ওজন কমাতে সাহায্য করে। ৪৪ জন মানুষকে নিয়ে ছয় সপ্তাহের এক গবেষণা করা হয়। সেখানে অন্যদের তুলনায় বেশি মাছ খাওয়া মানুষেরা আধা কেজি ওজন কমিয়েছে অন্য কিছু করা ছাড়াই। তা ছাড়া মাছ আমিষের ভালো উৎস, যা হাড়ের ক্ষয় কমাতে সাহায্য করে। এমনটা বললেন পুষ্টিবিদ শামসুন্নাহার......

ডেঙ্গুজ্বর প্রতিরোধে করণীয়

ডেঙ্গুজ্বর প্রতিরোধে করণীয়

এডিস মশার কামড়ে ডেঙ্গু ভাইরাস প্রবেশ করে মানুষের শরীরে। আবার যে এডিস মশা ডেঙ্গু ভাইরাসের জীবাণু বহন করছে না এমন সাধারণ এডিস মশা ডেঙ্গু আক্রান্ত কোনো ব্যক্তিকে কামড়ালে এডিস মশাটিও ডেঙ্গু ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে পড়ে। সাধারণত শহর অঞ্চলের মানুষদের ডেঙ্গু জ্বরে বেশি আক্রান্ত হতে দেখা যায়। ডেঙ্গু জ্বরে যারা আগে আক্রান্ত হয়েছে, তাদের মারাত্মকভাবে আক্রান্ত হওয়ার সুযোগ থাকে। বিশেষ করে শিশুদের ক্ষেত্রে আশঙ্কা আরো বেশি থাকে।

ডেঙ্গু জ্বরে সাধারণত: তীব্র জ্বর হয় এবং শরীরে প্রচণ্ড ব্যথা থাকে। এছাড়া মাথা ব্যথা ও চোখের পেছনে ব্যথা থাকে। রোগী বেশ দুর্বল হয়ে পড়ে এবং ক্ষুধামন্দায়......

গোড়ালি ফেটেছে?

গোড়ালি ফেটেছে?

এ সময়টাতে ধুলায় ধূসরিত পায়ের গোড়ালি ফেটে গেলে মেজাজও কিন্তু বিগড়ে যায়। ফাটা গোড়ালি দেখলে জুতা জোড়াও যেন ভেংচি কাটে। পুরো বছর ধরেই পা ফাটার ঘটনাটি ঘটে থাকে। তবে শীতকালে এটি বেড়ে যায় বেশ। কারণ, বাতাসে আর্দ্রতা কম এবং সেই সঙ্গে রাস্তায় প্রচুর ধুলাবালিও থাকে।

সবার মোজা পরার অভ্যাস নেই। ফলে পায়ে ধুলাবালি লেগেও পা ফেটে যায়। এখন থেকে শুরু করে শীত শেষ না হওয়া অব্দি সপ্তাহে অন্তত এক দিন পায়ের যত্ন নেওয়া দরকার। যত্ন নেওয়ার কিছু পদ্ধতি জানালেন আয়ুর্বেদিক রিসার্চ অ্যান্ড হেলথ সেন্টারের প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক ও পরামর্শক শালিন ভারতী এবং হারমনি স্পার......

শরীরের ওজন দ্রুত কমাতে যা খাবেন

শরীরের ওজন দ্রুত কমাতে যা খাবেন

শরীরের ওজন দ্রুত কমানোর জন্যই নয়, সঙ্গে যদি গ্যাসট্রিটিস, ইউরিনারি ট্রাক্ট ইনফেকশন ও পেটের রোগের জন্য মোক্ষম মিক্সচারের সন্ধান দিচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। মাত্র দুটি জিনিস- টক দই আর হলুদ।

এই দুটির মিশ্রণ টানা তিন সপ্তাহ খেলে ঝরে যাবে বাড়তি মেদ। সঙ্গে থাকা নানারকম উপশমও দূর হয়ে যাবে।

প্রতিদিন সকালে এই ম্যাজিক মিক্সচারটি খেলে মিলবে দারুণ ফল। তাছাড়া হলুদ একপ্রকার কেমিক্যাল প্লান্ট। এতে রয়েছে ফিলোস্টেরল, যা শরীরের কোলেস্টেরলকে হঠাতে সাহায্য করে। মেটাবলিজমকে কমাতেও হলুদের গুণ অপরিহার্য।

সম্প্রতি ইরানের মেডিক্যাল সায়েন্সেস ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা এই মিক্সচারটি......

শীতে শিশুর শ্বাসকষ্ট

শীতে শিশুর শ্বাসকষ্ট

শীতের এই সময়ে শিশুরা যে সর্দি-কাশি ও শ্বাসকষ্টে ভুগছে, তা কিন্তু বেশির ভাগই নিউমোনিয়া নয়। ভাইরাসজনিত এই রোগের নাম ব্রংকিউলাইটিস। ব্রংকিউলাইটিসকে অনেকে নিউমোনিয়া ভেবে ভুল করেন।

ফুসফুস হলো উল্টানো গাছের মতো। গাছের কাণ্ড থেকে শাখা-প্রশাখা বিস্তারিত হয়ে পাতায় শেষ হয়। পাতার বোঁটায় প্রদাহ হলে (ভাইরাসের কারণে) এটাকে বলে ব্রংকিউলাইটিস। আর পাতায় প্রদাহ হলে নিউমোনিয়া। সুতরাং দুটি এক অসুখ নয়।

ব্রংকিউলাইটিস দুই বছরের কম বয়সের শিশুদের বেশি হয়ে থাকে। এতে নাক দিয়ে পানি পড়ার পর কাশি ও শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। জ্বরের মাত্রা কম থাকে, বুকে বাঁশির মতো আওয়াজ হয়। রক্ত পরীক্ষায় কোণ......

খাবারে অ্যালার্জি

খাবারে অ্যালার্জি

কারও দুধ খেলে পেট খারাপ হয়ে যায়। কারও বেগুনে মুখ চুলকায়। ডিম খেয়ে পেট ব্যথা শুরু হয় কারও কারও। এগুলো ফুড অ্যালার্জি বা খাবারে অ্যালার্জি। অ্যালার্জি থাকলে কেবল বেগুন, চিংড়ি বা গরুর মাংস বাদ—এই ধারণাও ভুল। কেননা একেজনের একেক ধরনের খাবারে অ্যালার্জি থাকে।

* দুধ: বিশেষ করে শিশুদের দুধে অ্যালার্জি বেশি হয়। একে বলে ল্যাকটোজ ইনটলারেন্স। দুধে যে ল্যাকটোজ নামের উপাদান থাকে তা হজম করার উৎসেচকে সমস্যা থাকে বলেই এমন হয়।

* শস্য: যব, ভুট্টা, ওট, ময়দা ইত্যাদি খাবারে গ্লুটেন থাকে, আর অনেকেরই গ্লুটেনে অ্যালার্জি থাকে। এ ছাড়া সিলিয়াক ডিজিজে আক্রান্ত রোগীরা গ্লুটেন খেতে পারেন......

ক্যান্সার রুখতে প্রয়োজন সচেতনতা

ক্যান্সার রুখতে প্রয়োজন সচেতনতা

ক্যান্সার-শব্দটি আমাদের সকলের কাছেই ভয়ংকর, রহস্যময় এবং অনাকাঙ্ক্ষিত; কিন্তু আমরা জানি কি যেকটি ক্যান্সারে আমরা আক্রান্ত হই তার প্রায় পঞ্চাশভাগ প্রতিরোধযোগ্য? আমাদের দৈনন্দিন জীবনের কিছু অভ্যাস পরিবর্তনের মাধ্যমে দূরে থাকতে পারি এই অনাকাঙ্ক্ষিত ক্যান্সার থেকে। এমনটাই দাবি করেছেন গবেষকগণ। আমেরিকান ক্যান্সার সোসাইটির বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন- ৪২ শতাংশ ক্যান্সার এবং ক্যান্সারের ফলে মৃত্যু সম্ভাবনা কমে যেতে পারে শুধু দৈনন্দিন কিছু অভ্যাস পরিবর্তনের মাধ্যমে, যেমন- ধূমপান না করা, শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমানো, খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তন ও অ্যালকোহল গ্রহণ না করা ইত্যাদি।

......

খুশকি তাড়ানোর ঘরোয়া পদ্ধতি

খুশকি তাড়ানোর ঘরোয়া পদ্ধতি

শীতকালে ত্বক শুষ্ক হয়ে যাওয়ার সমস্যা তাকে বেশি। এ সময় চুলেরও প্রচুর সমস্যা শুরু হয়। মাথার চামড়া শুকিয়ে গিয়ে খুশকির প্রকোপ কয়েকগুন বেড়ে যায়। সব থেকে চিন্তার বিষয় হলো অনেক সময়ই দামী দামী শ্যাম্পু, তেল ব্যবহার করেও খুশকিকে দূর করা যায় না।

অনেক মনে করে, বয়স কিছুটা না বাড়লে খুশকি হয় না। কিন্তু আসলে খুশকি হওয়ার কোনো বয়স লাগে না। ছোট থেকে বড়, সকলেরই হতে পারে এই ত্বকের রোগ। তবে কয়েকটি ঘরোয়া উপায়া আছে যার সাহায্য এমন সমস্যারও নিবারণ সম্ভব।

নারকেল তেল এবং লেবুর রস

মাথার তেল হিসাবে নারকেল তেলের থেকে ভাল কিছু হয় না। আর এর সঙ্গে যদি লেবুর রস মেশানো যায়, তাহলে তো কথাই নেই।......

৮৩ শতাংশ সিজারিয়ান প্রসব হয় বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে

৮৩ শতাংশ সিজারিয়ান প্রসব হয় বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে

দেশে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে প্রসবের হার ৩১ শতাংশ। এর মধ্যে ৮৩ শতাংশই সিজারিয়ান প্রসব হয় বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে। বাংলাদেশ মাতৃমৃত্যু ও স্বাস্থ্যসেবা জরিপ-২০১৬ এ তথ্য উঠে এসেছে। গতকাল রাজধানীর রেডিসনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে জরিপের এ তথ্য উপস্থাপন করা হয়। জরিপে বলা হয়, দেশে সিজারিয়ান প্রসবের হার আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি  পেয়েছে। ২০১০ সালে এ হার ছিল ১২ শতাংশ, ২০১৬-তে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩১ শতাংশে।

এর মধ্যে বেসরকারি ক্লিনিক ও হাসপাতালগুলোতে ৮৩ শতাংশ, সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ৩৫ শতাংশ এবং এনজিও’র হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে ৩৯ শতাংশ মা সিজারিয়ানের মাধ্যমে......

মাইগ্রেনের ব্যথা: কী খাবেন, কী খাবেন না

মাইগ্রেনের ব্যথা: কী খাবেন, কী খাবেন না

মাইগ্রেনের ব্যথা অনেকের কোনো কোনো দিনকে অসহ্য করে তোলে। মাথার কোনো এক পাশে প্রচণ্ড ব্যথা, বমি ভাব বা বমি, চোখে ঝাপসা দেখা ইত্যাদি সমস্যা এ সময় মানুষকে প্রায় শয্যাশায়ী করে ফেলে। মাইগ্রেনের ব্যথার আকস্মিক আক্রমণের জন্য কিছু বিষয় কাজ করে। এর মধ্যে রয়েছে কিছু খাবারদাবার, যা এই ব্যথাকে বাড়িয়ে দেয়।

অপর্যাপ্ত পানি পানের কারণে সৃষ্ট ডিহাইড্রেশন বা পানিশূন্যতা এবং দীর্ঘ সময় না খেয়ে থাকার কারণে রক্তে শর্করা কমে যাওয়া মাইগ্রেনের ব্যথাকে আমন্ত্রণ জানায়। এ ছাড়া নিয়াসিন ও ভিটামিন বি কমপ্লেক্সের অভাব ঘটলে এবং রক্তস্বল্পতার কারণেও মাথাব্যথা বাড়ে।

ব্যথার তীব্রতা কমাতে......

রক্তক্ষরণ ও প্রাথমিক চিকিৎসা

রক্তক্ষরণ ও প্রাথমিক চিকিৎসা

রক্ত হলো এক প্রকার তরল পদার্থ। এর রং লাল। হিমোগ্লোবিন নামক লাল রঞ্জক পদার্থের উপস্থিতিতে রক্তের রং লাল দেখায়। শরীরের কোনো স্থানে আঘাতের ফলে বা কেটে গেলে যে ক্ষতের সৃষ্টি হয়, এবং সেই ক্ষত হতে যে রক্ত বের হয়, তাকে রক্তক্ষরণ বা রক্তপাত বলে। বিভিন্নভাবে রক্তক্ষরণ হতে পারে; যেমন- 

মুখ দিয়ে রক্ত পড়া: মুখের ভিতরের যে কোনো অংশ থেকে রক্তপাত হলে বরফ চুষতে হবে। তাহলে রক্তপাত বন্ধ হবে। 

...

মৃত সন্তান প্রসব রোধে মা’কে কাত হয়ে ঘুমানোর পরামর্শ

মৃত সন্তান প্রসব রোধে মা’কে কাত হয়ে ঘুমানোর পরামর্শ

হ-বাংলা নিউজ: শিশুমৃত্যুর হার কমাতে অনেক দিন ধরেই চিকিত্সকরা নানা ধরনের পরামর্শ দিয়ে আসছেন। তবে নতুন এক গবেষণায় চিকিত্সকরা জানিয়েছেন, সম্ভাব্য মা কীভাবে ঘুমাচ্ছেন তার ওপর নবজাতকের স্বাস্থ্যের গভীর সম্পর্ক রয়েছে। মৃত সন্তান প্রসবরোধে সন্তানসম্ভবা নারীদেরকে একপাশে কাত হয়ে শোওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। অন্তত গর্ভধারণ কালের শেষ তিন মাস সম্ভাব্য মায়েদের এভাবেই ঘুমানোর পরামর্শ দিয়েছেন চিকিত্সকরা। ব্রিটেনের প্রায় এক হাজার নারীর ওপর চালানো এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, পিঠের ওপর চিত্ হয়ে ঘুমালে মৃত শিশু জন্মদানের ঝুঁকি......

বাড়িতে রক্তচাপ মাপেন?

বাড়িতে রক্তচাপ মাপেন?

হ-বাংলা নিউজ: শুধু রক্তচাপ মাপার জন্য চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার কোনো মানে হয় না। হোম মনিটরিং বা বাড়িতে রক্তচাপ মাপার অভ্যাসকে আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশন উৎসাহিতই করছে। এতে অনেক না জানা উচ্চ রক্তচাপের রোগীর রক্তচাপ ধরা পড়ে। তা ছাড়া যাঁরা রক্তচাপের ওষুধ খান, অন্তঃসত্ত্বা নারী ও যাঁদের রক্তচাপ ওঠানামা করে, তাঁদের জন্য এই তদারকি বেশ উপকার বয়ে আনে। আসুন, জেনে নিই কীভাবে সঠিক পদ্ধতিতে রক্তচাপ পরিমাপ করা যায়।

* রক্তচাপ মাপতে মনিটরযুক্ত যন্ত্রের চেয়ে সাধারণ স্ফিগনোম্যানোমিটারই ভালো। মনিটরযুক্ত যন্ত্র হলে ভালো কোম্পানির......

সর্বাধিক পঠিত